1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

ক্রেতার স্বাস্থ্যের দিকেও নজর কোকাকোলা, পেপসিকোলার

অতিরিক্ত কোমল পানীয় পান করলে কী ক্ষতি হয় – তা অনেকেই জানেন৷ তবু দেদার বিক্রি হচ্ছে পানীয়গুলো৷ যুক্তরাষ্ট্রের কোমল পানীয় কোম্পানিগুলো বলেছে, এখন থেকে ক্যালরি কমানোর পাশাপাশি স্বাস্থ্য সচেতনতা বাড়ানোরও উদ্যোগ নেবে৷

কোকাকোলা, পেপসিকোলা এবং ড. পেপার স্ন্যাপি – যুক্তরাষ্ট্রের এই তিন কোমল পানীয় কোম্পানি বলেছে, আগামী ২০২৫ সালের মধ্যে তারা নিজেদের পন্যে ক্যালরির মাত্রা ২০ শতাংশ কমাবে৷ যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকদের মধ্যে মুটিয়ে যাওয়ার প্রবণতা বাড়ছে৷ পুষ্টিবিদরা বলছেন, বেশি ‘স্ন্যাকস' খাওয়া এবং কোমল পানীয় পান করার কারণেই এমনটি হচ্ছে৷ বেশি মুটিয়ে গেলে শরীরে নানা রকমের রোগ বাসা বাঁধে৷ এসব রোধ করতেই উঠেছে কোমল পানীয়ে ক্যালরি কমানোর দাবি৷ যুক্তরাষ্ট্রের ‘ক্লিনটন গ্লোবাল ইনিশিয়েটিভ'-এর উদ্যোগে নিউ ইয়র্ক শহরে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে এ দাবি পূরণে ভূমিকা রাখার অঙ্গীকার করেছে যুক্তরাষ্ট্রের বেভারেজ, অর্থাৎ কোমল পানীয় কোম্পানিগুলো৷

কোকাকোলা, পেপসিকোলা আর ড. পেপার স্ন্যাপি জানিয়েছে, তারা ধীরে ধীরে প্রচলিত বোতলের চেয়ে ছোট আকারের বোতল বাজারে ছাড়তে শুরু করবে৷ এ ছাড়া পানীয়ে চিনির মাত্রা কমানো এবং ক্রেতাদের স্বাস্থ্য সচেতনতা বাড়ানোর উদ্যোগ নেবে বলেও জানিয়েছে তারা৷ এর বাইরে বিভিন্ন স্থানে যে স্বয়ংক্রিয় মেশিন (অটোম্যাট) রয়েছে সেগুলো থেকেও কম ক্যালরিযুক্ত পানীয় সরবরাহ করার আশ্বাস দিয়েছে কোম্পানিগুলো৷

কোকাকোলা, পেপসিকোলা এবং ড. পেপার স্ন্যাপি-কে এভাবে অপেক্ষাকৃত কম ক্ষতিকর পানীয় বাজারে ছাড়তে রাজি করানোর পেছনে ভূমিকা রেখেছে ‘ক্লিনটন গ্লোবাল ইনিশিয়েটিভ'৷ সংগঠনটির প্রতিষ্ঠাতা যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটন৷ কোমল পানীয় কোম্পানিগুলো জনস্বাস্থ্যকে গুরুত্ব দিয়ে পন্যে ক্যালরি কমাতে সম্মত হওয়ায় ক্লিনটনের প্রশংসা করেছেন অনেকে৷

তবে যুক্তরাষ্ট্রের ‘দ্য সেন্টার ফর সায়েন্স ইন দ্য পাবলিক ইন্টারেস্ট' এক বিবৃতিতে বলেছে, ‘‘এ উদ্যোগের জন্য আমরা প্রেসিডেন্ট ক্লিনটনকে ধন্যবাদ জানাই৷ কিন্তু আমরা মনে করি, জনস্বাস্থ্য রক্ষার জন্য আরো দ্রুত এবং বেশি হারে (ক্যালরি) কমানো দরকার৷ ''

নিউ ইয়র্ক বিশ্ববিদ্যালয়ের পুষ্টি এবং জনস্বাস্থ্য বিভাগের অধ্যাপক মারিয়ন নেসলে মনে করেন, এক দশকে ২০ ভাগ ক্যালরি কমানো খুব উল্লেখযোগ্য কাজ নয়৷ তাঁর মতে, কোকাকোলা, পেপসিকোলার মতো প্রতিষ্ঠান যদি সত্যি জনস্বাস্থ্যের ক্ষতি করা থামাতেই চায়, তাহলে তাদের উচিত সোডাজাত দ্রব্যের ওপর উচ্চহারে কর আরোপের দাবির বিরোধিতা না করা৷

এসিবি/ডিজি (এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন