1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

পাঠক ভাবনা

ক্রসফায়ার নিয়ে পাঠকদের প্রতিক্রিয়া

ক্রসফায়ারে জঙ্গি নিহতের ঘটনা নিয়ে পাঠকরা তাঁদের মন্তব্য জানিয়েছেন৷ ডয়চে ভেলের কাছে করা আইন ও সালিশ কেন্দ্রের পরিচালক নূর খানের একটি মন্তব্যের প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন তাঁরা৷

ডয়চে ভেলেকে নূর খান বলেছিলেন, ‘‘আটক কাউকে নিরাপত্তা দেয়া রাষ্ট্র ও পুলিশের দায়িত্ব৷ সে যদি ক্রসফায়ারে নিহত হয়ে থাকে তাহলে তা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়৷'' পাঠকদের কাছে জানতে চাওয়া হয়েছিল যে, তাঁরা নূর খানের সঙ্গে একমত কিনা?

শরিফুল ইসলাম খান লিখেছেন, ‘‘কোনো আটক ব্যক্তিকে নিরাপত্তা দেওয়া রাষ্ট্রের দায়িত্ব৷ এটা স্বাভাবিক ক্ষেত্রে৷ এখানে স্বাভাবিক ঘটনার ব্যত্যয় বা বিচ্যুতি ঘটেছে৷ রাষ্ট্রের দায়িত্বের লিমিটেশন আছে৷'' ওসমান সরকার বলেছেন, তিনি নূর খানের মন্তব্যে সঙ্গে শতভাগ একমত৷

সাদিক মাহমুদ লিখেছেন, ‘‘অসাধারণ বন্দুকযুদ্ধ! আসামিকে নিয়ে পুলিশ যাবে তার সহযোগীদের ধরতে, অপরদিকে তারা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছুড়বে, আর মধ্যখানে জনৈক আসামি মারা যাবে! অতঃপর কয়েকটা বন্দুক উদ্ধার করা হবে!!! কিন্তু কখনোই আসামির সহযোগী বা পুলিশ মারা যাবেনা!!! সম্পূর্ণ যুদ্ধটা হবে সাইলেন্ট মুডে, পুলিশ ছাড়া আর কেউ গুলাগুলির শব্দ শুনতে পারবে না!''

Bangladesh Bus Gefängnis

‘কোনো আটক ব্যক্তিকে নিরাপত্তা দেওয়া রাষ্ট্রের দায়িত্ব৷ কিন্তু এখানে স্বাভাবিক ঘটনার ব্যত্যয় বা বিচ্যুতি ঘটেছে’

আসাদুজ্জামান সরকারের মন্তব্য, ‘‘আমাদের দেশের মিডিয়া এবং সুশীলরা দেখি সবসময়ই সন্ত্রাসীদের মানবাধিকার নিয়ে ব্যস্ত!!! সে ঘটনায় একজন পুলিশও নিহত হয়েছে৷ সেই পুলিশের কথা কেউ বলছে না!! কিছুদিন আগে চট্টগ্রামে এক পুলিশকে গুলি করা হয়েছিল, যে গুলি তার বুক দিয়ে ঢুকে পিঠ দিয়ে বের হয়ে গেছে!! তাঁদের কথা কেউ বলছে না কেন!! তারা কি কোনো মায়ের সন্তান নাহ্‌!! সব সন্ত্রাসীরাই কি শুধু কোনো মায়ের সন্তান!!!''

তন্ময় ভৌমিক লিখেছেন, ‘‘এরা (সন্ত্রাসীরা) আইনকে বৃদ্ধাঙুলি দিয়ে সবরকম অপকর্ম করে যায়৷ তাদেরকে ক্রসফায়ারে হত্যা করা হলে আমি মনে করি এটা অন্যায় নয়৷ কারণ এরা হাজারো অপকর্মকাণ্ডের মূল হোতা৷ দুই একটি হিংস্র জানোয়ারের জন্য কোনো কথা বলা উচিত নয় বলে মনে করি৷''

এদিকে, জঙ্গি ছিনতাইয়ের ঘটনায় বিস্ময় প্রকাশ করেছেন মাহমুদা শেলি৷ তিনি লিখেছেন, ‘‘অবাক হচ্ছি যে এমন দুর্ধর্ষ জেএমবির দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের নিয়ে প্রিজনভ্যানে নিয়ে যাবার মুহূর্তে আগেপিছে কঠোর নিরাপত্তার ব্যবস্থা নেয়া হয়নি...? তাহলে কি আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর গোপনে আতাত ছিল এই দুর্ধর্ষ আসামিকে ছিনতাই করার...? একদম হিন্দি ফিল্মের কায়দায় এই ঘটনাটি ঘটিয়েছে...! এক্ষেত্রে প্রশাসন সম্পূর্ণভাবে ব্যর্থতার প্রমাণ দিয়েছে...!''

মো: রমজান চৌধুরী মনে করেন, এই সরকারের আমলে ক্রসফায়ারের নামে বেশিরভাগ বিরোধী দলের নেতা কর্মী হত্যা করা হয়েছে৷ ক্ষমতার এত অপব্যবহার অন্য কোনো সরকারের আমলে হয়নি বলেও মন্তব্য করেছেন তিনি৷

সংকলন: জাহিদুল হক

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

নির্বাচিত প্রতিবেদন