1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

ক্যালিফোর্নিয়ায় ‘বিশ্বের অ্যাকোয়ারিয়াম'

ক্যালিফোর্নিয়া উপসাগরের ইসাবেল দ্বীপকে সংরক্ষিত এলাকা ঘোষণা করলেই হবে না, তার উপকূলবর্তী সামুদ্রিক এলাকাকেও রক্ষা করতে হবে৷ তবেই পাখিরা থাকবে, গভীর জলে তিমি-হাঙর আসবে-যাবে৷

গাল্ফ অফ ক্যালিফোর্নিয়ায় ইসাবেল দ্বীপ৷ মেরিন বায়োলজিস্ট জাক-ইভ কুস্তো একবার এলাকাটির নাম দিয়েছিলেন ‘বিশ্বের অ্যাকোয়ারিয়াম'৷ ধীবর ফেলিসিয়ানো মেন্দিয়াস গনসালেস বলেন, ‘‘আমরা সবাই এই দ্বীপের ওপর নির্ভরশীল, আমি, আমার স্ত্রী, আমার ছেলে, গোটা পরিবার৷ এই দ্বীপ আমাদের সম্পদ৷ এর ভালোমন্দ আছে, যেমন জীবনেরও ভালোমন্দ আছে৷ আমরা এই দ্বীপ নিয়েই বেঁচে আছি৷''

এদের বাস দ্বীপ থেকে ৬০ কিলোমিটার দূরে, মূল ভূখণ্ডে৷ কিন্তু মাছ ধরতে বেরিয়ে এরা অনেক সময় দ্বীপে রাত কাটান৷ ফেলিসিয়ানো-র ভাষ্যে, ‘‘বড় ট্রলার দিয়ে মাছ ধরা আর আমরা ছোট জেলেদের মাছধরার ফলে মাছ পাওয়া ক্রমেই আরো শক্ত হয়ে উঠছে৷ আগে দু'টো বা তিনটে জাল পাততাম; আজ আমরা পাঁচটা করে জাল ছাড়ি৷''

প্রাণীবৈচিত্র্য

আগ্নেয়গিরি থেকে দ্বীপটার সৃষ্টি৷ গত ১৫ বছর যাবৎ এটি একটি সরকারিভাবে সংরক্ষিত এলাকা৷ এখানকার প্রাণীবৈচিত্র্য মেক্সিকোর বাইরেও সুপরিচিত৷ দ্বীপের এক বর্গকিলোমিটার এলাকায় হাজার হাজার সামুদ্রিক পাখি ভিড় করে৷

Folgen des Huricane Sandy auf dem Barrier Island vor New Jersey

যুক্তরাষ্টের একটি দ্বীপ

জার্মান উন্নয়ন সহযোগিতা সংস্থা জিআইজেড-এর গবেষকরা মেক্সিকোর ন্যাশনাল পার্ক কর্তৃপক্ষের সঙ্গে একযোগে কাজ করে ইসাবেল দ্বীপের চারপাশের সামুদ্রিক এলাকাটিকেও সংরক্ষিত ঘোষণা করার চেষ্টা করছে৷ ইসাবেল দ্বীপ ন্যাশনাল পার্কের প্রধান খর্খে কাস্ত্রেখন পিনিয়েদা বলেন, ‘‘এখানে গোটা অঞ্চলের নানা ধরনের মাছ বিপুল সংখ্যায় দেখতে পাওয়া যায়৷ মজার কথা, গাল্ফ অফ ক্যালিফোর্নিয়া থেকে শুরু করে কোস্টা রিকা আর অন্যান্য দেশ থেকে আসা সামুদ্রিক স্রোত এখানে পৌঁছায় – যা কিনা প্রাণীবৈচিত্র্য বৃদ্ধির জন্য অনন্য৷''

সেই প্রাণীবৈচিত্র্য এখানেও অক্ষত নেই৷ বিজ্ঞানীরা চান, দ্বীপের অব্যবহিত কাছে মাছধরা পুরোপুরি নিষিদ্ধ করা হোক৷

পাখির পরে মাছ?

আরো মাছ এবং অন্যান্য সামুদ্রিক প্রাণীকে এখানে আনানোর প্রচেষ্টায় বায়োলজিস্টরা কয়েক সপ্তাহ আগে একাধিক কৃত্রিম ‘রিফ' বা প্রবালদ্বীপ সৃষ্টি করেছেন৷ এবার তারা ডুবুরি হয়ে জলের নীচে নেমে দেখতে চান, সে প্রচেষ্টা সফল হয়েছে কিনা৷

গুয়াদালাহারা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানী আমিলকার কুপুল মাগানিয়া উচ্ছ্বসিত৷ তিনি বলেন, ‘‘যা দেখলাম, তাতে আমি খুব খুশি, সব কিছু ঠিকঠাক চলেছে৷ নতুন নতুন সামুদ্রিক শ্যাওলা, পাশের এলাকাগুলোর চেয়ে অনেক বেশি মাছ, নানা ধরনের মাছ৷ কাজেই আমরা আমাদের লক্ষ্য সাধন করেছি, বলা চলে৷''

হঠাৎ একটি হোয়েল-শার্ক বা তিমি-হাঙর! দ্বীপের চারপাশের এলাকাটি তার খাবার খোঁজার জায়গা৷ ওদিকে সে নিজেই বিজ্ঞানীদের কাছে পরম কৌতূহলের বস্তু৷

পাখি বাঁচাতে হলে চাই মাছ

দ্বীপের পাখিগুলোর কোনো স্বাভাবিক শত্রু নেই৷ দ্বীপে যে ক'টি মানুষ আসেন, পাখিরা তাদের বিশেষ ভয় পায় না৷ গ্যানেট পাখি আর ফ্রিগেট বার্ডরা এখানে তাদের ছানাপোনা মানুষ করতে পারে৷ সৈকতগুলোতে যথেষ্ট খাদ্য পাওয়া যায়৷ জাতীয় উদ্যানটির পরিচালকের বহুবছরের প্রচেষ্টা হলো, মাছধরার ট্রলারগুলো যেন ইসাবেল দ্বীপের ধারে-কাছে না আসে৷ তিনি বলেন, ‘‘শুধু দ্বীপকে সংরক্ষিত করে লাভ নেই, আশপাশের সমুদ্রকেও সংরক্ষণ করতে হবে, যাতে এখানকার প্রাণীবৈচিত্র্য বজায় থাকে৷ মাছেদের বাঁচাতে হবে, যাতে পাখিরা তাদের খাবার পায়৷ জেলেদেরও মাছ চাই, যাতে তারা আরো বেশি মাছ ধরতে পারে৷''

বিজ্ঞানীরা জেলেদের সঙ্গে সংযোগ রেখে চলেন – ইতিমধ্যে তারাও বুঝেছে যে, দ্বীপের চারপাশের এলাকা সংরক্ষণ করা প্রয়োজন৷ ধীবর হোসে মার্তিন সাঞ্চেস বলেন, ‘‘আমাদের লক্ষ্য হবে, এখানকার মাছধরার পেশা আর ঐতিহ্যকে আগামী প্রজন্মের জন্যও বাঁচিয়ে রাখা৷ আমার ছেলে ইতিমধ্যেই জেলে হতে চায়, আমিও চাই, মাছধরা ওর পেশা হোক৷ এখান থেকে একজনকে যেতে হলে, আমাদের সকলকেই যেতে হবে৷''

পাখিরাও যদি একদিন কোনো খাবার না খুঁজে পায়, তাহলে তারাও বিদায় নেবে...

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক