1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ক্যামেরনের বিদায়, ব্রিটেনের নতুন প্রধানমন্ত্রী টেরেসা মে

ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে ডেভিড ক্যামেরনের ‘বিদায়' সূচিত করেছিল ‘ব্রেক্সিট'৷ এবার নতুন প্রধানমন্ত্রী পাচ্ছে ব্রিটেন৷ বুধবার নতুন এবং দেশের ইতিহাসের দ্বিতীয় নারী প্রধানমন্ত্রী হিসেবে কাজ শুরু করছেন টেরেসা মে৷

প্রথম কাজ, বাকিংহাম প্যালেসে গিয়ে রানিকে দায়িত্ব গ্রহণের কথা জানানো৷ বিদায়ী প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন ইতিমধ্যে পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী হিসেবে ঘোষণা করেছেন থেরেসা মে'র নাম৷ আন্দ্রেয়া লিডসম তাঁর প্রার্থীতা প্রত্যাহার করে নেয়ায় ৫৯ বছর বয়সি টেরেসা মে'র প্রধানমন্ত্রী হওয়া নিশ্চিত হয়ে যায়৷ তারপর ক্যামেরনও জানিয়ে দেন, থেরেসা মে'র প্রতি কনজারভেটিভ পার্টির পূর্ণ সমর্থন রয়েছে৷ মঙ্গলবারই শেষবারের মতো মন্ত্রীপরিষদ বৈঠকে যোগ দিচ্ছেন ক্যামেরন৷ বুধবার প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শেষবারের মতো সংসদেও যাবেন তিনি৷ তারপর বাকিংহাম প্যালেসে যাবেন রানির সঙ্গে দেখা করে ভবিষ্যত প্রধানমন্ত্রী হিসেবে টেরেসা মে'র ওপর সম্পূর্ণ আস্থা রাখার কথা জানাতে৷ এরপরই হবে ব্রিটেনের ইতিহাসে আরেকটি নতুন অধ্যায়ের সূচনা৷ রানির সঙ্গে দেখা করেই ব্রিটেনের দ্বিতীয় নারী প্রধানমন্ত্রী হিসেবে কাজ শুরু করবেন টেরেসা মে৷

ব্রিটেনের প্রথম নারী প্রেসিডেন্ট মার্গারেট থ্যাচার৷ ১৯৭৯ সাল থেকে ১৯৯০ সাল পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রী ছিলেন তিনি৷ ২০১৩ সালে ৮৮ বছর বয়সে থ্যাচারের পরলোক গমনের তিন বছরের মধ্যেই প্রধানমন্ত্রী হিসেবে উঠে এলেন টেরেসা মে৷

এর আগে গণভোটের মাধ্যমে ব্রিটেন ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে বেরিয়ে যাবার সিদ্ধান্ত নেয়ায়, প্রধানমন্ত্রী পদ থেকে সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নেন ডেভিড ক্যামেরন৷ ‘ব্রেক্সিট'-এর বিপক্ষে, অর্থাৎ ব্রিটেনের ইউরোপীয় ইউনিয়নে থাকার পক্ষে জোরালো অবস্থান ছিল তাঁর৷ তাই গত ২৩ শে জুনের গণভোটে ব্রিটেনের ৫১ দশমিক ৯৮ ভাগ মানুষ ‘ব্রেক্সিট'-এর পক্ষে রায় দেয়ায় পদত্যাগের সিদ্ধান্ত নেন ক্যামেরন৷ তারই ধারাবাহিকতায় ব্রিটেনের নতুন প্রধানমন্ত্রী হতে চলেছেন টেরেসা মে৷

এসিবি/ডিজি (রয়টার্স, এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়