1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

ক্যানসার চিকিৎসায় নতুন অগ্রগতি

ক্যানসারের বিরুদ্ধে সংগ্রামে অনেক অগ্রগতি হয়েছে বটে, কিন্তু রোগীর চিকিৎসা কতটা কার্যকর হবে, তার পূর্বাভাষ দেওয়া কঠিন৷ জার্মানির বিজ্ঞানীরা এমন এক কম্পিউটার মডেল তৈরি করছেন, যার সাহায্যে ওষুধের কার্যকারিতা বোঝা সম্ভব হবে৷

ফুসফুসে ক্যানসার হলে চিকিৎসা হিসেবে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই কেমোথেরাপি প্রয়োগ করা হয়৷ তবে সেই প্রক্রিয়ায় ব্যবহৃত সব ওষুধ কতটা কার্যকর হবে, আগে থেকে তা বলা অত্যন্ত কঠিন৷ কারণ সব রোগীর ক্ষেত্রে একই প্রভাব দেখা যায় না৷

ভবিষ্যতে এই পূর্বাভাষ আরও উন্নত করে তোলার চেষ্টা চলছে৷ অধ্যাপক হাইকে ভালেস ও তাঁর গবেষকদল মানুষের ফুসফুসের টিউমার কোষ নিয়ে কাজ করছেন৷ সেগুলি শুকরের পাকস্থলী অথবা ছুঁচোর ফুসফুসে ‘কাল্টিভেট' করা হয়৷ গবেষকরা ছোট আকারে মানুষের ফুসফুসের নকল তৈরি করছেন, যার উচ্চতা মাত্র এক সেন্টিমিটার৷ শূকরের পাকস্থলির একটা টুকরো থেকে তার সব নিজস্ব কোষ দূর করা হয়৷ সেটিকে কাঠামো হিসেবে ব্যবহার করে তাতে মানুষের টিউমার ও ফুসফুসের কোষ বসানো হয়৷

এটি ফুসফুসের এক সহজ থ্রিডি মডেল, যার মাধ্যমে ওষুধের প্রভাব ‘সিমুলেট' বা নকল করা হয়৷ ভ্যুরৎসবুর্গ বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালের অধ্যাপক হাইকে ভালেস বলেন, ‘‘এই পরীক্ষা ব্যবস্থার বড় সুবিধা হলো, আমরা জন্তু-জানোয়ার নয়, মানুষের কোষ নিয়ে কাজ করছি৷ সুস্থ ও অসুস্থ কোষ একসঙ্গে কাল্টিভেট করতে পারি৷ ওষুধ সুস্থ কোষের কতটা ক্ষতি করতে পারে এবং কত দক্ষভাবে অসুস্থ কোষ মেরে ফেলতে পারে, তা আন্দাজ করতে পারি৷''

এই প্রক্রিয়া অবশ্য সব প্রশ্নের জবাব দিতে পারে না৷ ছুঁচোর ফুসফুসের মডেল আরও জটিল প্রশ্নের জবাব দিতে পারে৷ এ ক্ষেত্রেও ছুঁচোর নিজস্ব কোষ সরিয়ে মানুষের টিউমার ও ফুসফুসের কোষ লাগানো হয়৷

একটি পাম্প নিয়মিত উচ্চ ও নিম্ন চাপ সৃষ্টি করে ও ফুসফুসে বাতাস ঢুকিয়ে দেয়৷ অর্থাৎ আসল ফুসফুসেরই প্রায় নিখুঁত নকল করা হয়৷ রক্তবাহী শিরা ফুসফুসে পুষ্টি জোগায়৷ মানুষের শরীরের মতোই চলে সবকিছু৷

কৃত্রিম ফুসফুসের জন্য টিউমার কোষ আসে রোগীদের কাছ থেকে৷ অর্থাৎ কাগজে-কলমে প্রত্যেক রোগীর জন্যই ফুসফুসের আলাদা মডেল তৈরি করা সম্ভব৷ সেই অনুযায়ী চিকিৎসার রূপরেখাও তৈরি করা সম্ভব৷ অধ্যাপক ভালেস বলেন, ‘‘বড় আকারে অসংখ্য মানুষের জন্য এই প্রক্রিয়া সৃষ্টি করা সম্ভব নয়৷ এটি অত্যন্ত ব্যয়সাপেক্ষ৷ তাই পরের ধাপে এই কোষগুলি আরও ভালোভাবে পর্যবেক্ষণ করতে হবে৷ তারপর টিউমার রোগীদের একাধিক গ্রুপে ভাগ করতে হবে৷ ভবিষ্যতে হয়ত ১০ট়ি গ্রুপ সৃষ্টি হবে, যার ভিত্তিতে নির্দিষ্ট চিকিৎসার পরামর্শ দেওয়া যাবে৷''

ভবিষ্যতে হয়ত এমন পূর্বাভাষ শুধু কম্পিউটার সিমুলেশনের মাধ্যমেই সম্ভব হবে৷ পরীক্ষার সময় কোনো একটি ওষুধ টিউমার কোষগুলি মেরে ফলতে পারলে গবষকরা সংশ্লিষ্ট মেটাবলিজম প্রক্রিয়া ফুটিয়ে তুলে সেটি কম্পিউটার মডেলে ভরে দিতে পারবেন৷ অধ্যাপক ভালেস বলেন, ‘‘আমরা টিউমার টেস্ট সিস্টেম থেকে তথ্য নিয়ে কম্পিউটার মডেলে ভরে দেই৷ দীর্ঘমেয়াদি ভিত্তিতে কম্পিউটার মডেল তৈরি করে বিভিন্ন ধরনের রোগীদের জন্য পূর্বাভাষ দেওয়া যাবে৷ কোনো ওষুধ কাজ করবে কিনা, বায়োলজিকাল পরীক্ষা ছাড়াই তা বলা যাবে৷''

এই মিনি-ফুসফুসের মাধ্যমে অদূর ভবিষ্যতে বিফল বা অকার্যকর কেমোথেরাপি এড়ানো সম্ভব হবে৷ বিজ্ঞানীদের আশা, আগামী পাঁচ বছরের মধ্যেই ফুসফুসের প্রথম মডেল কাজে লাগিয়ে বাস্তবে রোগীদের চিকিৎসা করা সম্ভব হবে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়