1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

ক্যানসারের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ভাইরাস

শুনতে অদ্ভুত লাগলেও সত্যি, ক্যানসারে আক্রান্ত টিউমার সেল বা ক্যানসারের কোষ ধ্বংস করবে ভাইরাস৷ এটা কতটা কার্যকর সেটা নিয়েই কাজ করছেন জার্মান বিজ্ঞানীরা৷ তাঁদেরই একজন জানিয়েছেন ক্যানসারের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের এই নতুন তথ্য৷

বিজ্ঞানীরা এই প্রক্রিয়াকে বলছেন ‘অনকোলাইসিস'৷ অর্থাৎ ভাইরাসগুলো ক্যানসার কোষের ভেতর প্রবেশ করে বংশবৃদ্ধি করতে থাকে এবং ওসব কোষকে ধ্বংস করে দেয়৷ অনকোলাইসিসকে এভাবেই ব্যাখ্যা করেছেন ট্যুবিঙ্গেন ইউনিভার্সিটি মেডিকেল ক্লিনিক উলরিশ লাওয়ের৷

তবে এটা যে সম্প্রতি পর্যবেক্ষণ করা হয়েছে তা কিন্তু নয়৷ লাওয়ের ডয়চে ভেলেকে জানিয়েছেন, অন্তত একশ বছর আগে থেকে এই প্রক্রিয়াটা পর্যবেক্ষণ করছেন বিজ্ঞানীরা৷ দেখা গেছে, যেসব ক্যানসার রোগীর দেহে ভাইরাসের প্রবল সংক্রমণ হয়, তাদের ক্যানসার কোষগুলোর বিস্তার বন্ধ হয়ে যায় এবং টিউমার ছোট হতে থাকে৷ এমনকি কয়েকটি রোগীর ক্ষেত্রে দেখা গেছে ক্যানসার কোষ পুরোই নির্মূল হয়েছে৷

এই প্রক্রিয়ায় উদ্বুদ্ধ হয়ে ট্যুবিঙ্গেন ক্লিনিক এবং পল এরলিচ ইনস্টিটিউট একটি প্রকল্প হাতে নিয়েছে৷ তারা একটি ‘অনকোলাইটিস্ট মিজেলস ভ্যাকসিন' আবিষ্কারের চেষ্টা করছেন৷ জার্মান শিক্ষা এবং গবেষণা মন্ত্রণালয় এই প্রকল্পের অর্থায়ন করছে৷

লাওয়ের জানালেন, তারাই প্রথমবারের মতো ভাইরাসকে রূপান্তরের চেষ্টা করেছেন যেন একটি টিউমার কোষগুলোকে আক্রমণ করে৷ অনকোলাইটিক ভাইরাসগুলো সেইভাবে রূপান্তর করা হবে যাতে তারা ক্যানসার কোষগুলোকে আক্রমণ করে এবং তাদের মেরে ফেলে৷

জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং বা জীনগত প্রকৌশলের মাধ্যমে ভাইরাসকে রূপান্তর করা সম্ভব বলে জানালেন লাওয়ের৷ বিজ্ঞানীরা বেশিরভাগ ভাইরাসের জীনগত গঠন পর্যবেক্ষণ করে রূপান্তরের চেষ্টা করছেন৷ ভাইরাসটি রূপান্তরের পর রোগীর দেহে প্রবেশ করিয়ে এরপর রক্ত পরীক্ষা করা হয়৷ তখন দেখা হয়, ভাইরাসটি আসলেই রোগীর দেহে সংক্রমিত হয়েছে কিনা আর সেটা কতদিন রোগীর দেহে অবস্থান করছে৷

লাওয়ের জানান, রূপান্তরের আসল কাজটা হলো ভাইরাসগুলো কত দ্রুত বংশবৃদ্ধি করে এবং ক্যানসার কোষকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারে৷ তবে যেসব ক্যানসার রোগী ছোটবেলায় মিসেল ভ্যাকসিন বা বসন্তের টিকা নিয়ে থাকেন, তাঁদের এক ধরনের সমস্যা দেখা দেয় বলে জানালেন বিজ্ঞানী৷ তিনি বলেন, যদি ভ্যাকসিন দেয়া থাকে, বেশিরভাগ ক্ষেত্রে সম্ভাবনা থাকে ভাইরাস দেহে প্রবেশ করা মাত্র ক্যানসার কোষকে আক্রমণের আগেই তাকে আটকে দেয় ভ্যাকসিন৷

যেসব রোগীকে অনকোলাইটিক চিকিৎসা দেয়া হবে, খুবই স্বাভাবিক যে তাঁরা রেডিয়েশন থেরাপি এবং কেমোথেরাপির মধ্য দিয়ে যাবেন৷ তাই বিজ্ঞানীরা এটাও পর্যবেক্ষণ করছেন ভাইরাস দেহে প্রবেশ করালে কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া বা ক্ষতির আশঙ্কা রয়েছে কিনা৷ লাওয়ের বললেন, যেহেতু তাঁরা প্রকল্পের একেবারে প্রথম ধাপে রয়েছেন তাই এখনোই এ সম্পর্কে বলাটা কঠিন৷

তবে ক্যানসার চিকিৎসার পরবর্তীতে ভাইরাসটি রোগীর দেহে থেকে যায় কিনা, বা যেসব চিকিৎসক এই প্রক্রিয়ার সাথে সংশ্লিষ্ট বা পরিবারের সদস্যদের সংক্রমণের সম্ভাবনা আছে কিনা, সেসবও পর্যবেক্ষণ করছেন তাঁরা৷

ট্যুবিঙ্গেন ক্লিনিকের অ্যাবডোমিনাল ক্যানসার রোগীদের দেহে ২০১২ সালের এপ্রিল থেকে এই পদ্ধতিতে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে৷ সেখানে রোগীদের তলপেটে সরাসরি ভাইরাস ভ্যাকসিন প্রবেশ করানো হয়, যাতে ভাইরাসটি খুব দ্রুত ক্যানসার কোষের সংস্পর্শে আসে৷ তবে লাওয়ের বেশ আশাবাদী৷ তাঁর ধারণা, ভবিষ্যতে ‘অনকোলাইসিস' ক্যানসারের চিকিৎসায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন