1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

ক্যানসারের চিকিৎসায় আয়ন রশ্মি

ঠিক সময় ধরা পড়লে আজকাল ক্যানসারের চিকিৎসায় সাফল্যের মাত্রা কম নয়৷ জার্মানির এক চিকিৎসা পদ্ধতি মস্তিষ্ক ও প্রস্টেট ক্যানসারের ক্ষেত্রে অত্যন্ত কার্যকর ভূমিকা রাখছে৷ আয়ন রশ্মি দিয়ে এই চিকিৎসার সাফল্য চোখে পড়ার মতো৷

জার্মানির হাইডেলব্যার্গ শহরে ক্যানসারের মোকাবিলায় আয়ন রশ্মির চিকিৎসা বিশ্ববিখ্যাত৷ রোগীরা এখানে যথেষ্ট উপকার পান৷ অ্যাকসিলারেটরের আঙটির মতো দেখতে গতিপথ থেকে আয়ন সৃষ্টি হয়৷ বৈদ্যুতিক চার্জে ভরা কণিকাগুলির শুধু গতি বাড়ানো হয় না, সেগুলিকে জুড়ে রশ্মি তৈরি করা হয়৷

এরপর সেই রশ্মি নিখুঁতভাবে ক্যানসারের টিউমারের উপর নিক্ষেপ করা হয়৷ সেই ধাক্কায় শুধু ‘ম্যালিগনেন্ট' কোষগুলি ধ্বংস হয়ে যায় – আশাপেশের স্বাভাবিক কোষের কোনো ক্ষতি হয় না৷

ফলে পার্শ্ব প্রতিক্রিয়ার মাত্রা খুবই কম৷ মূলত ব্রেন ও প্রস্টেট ক্যানসারের ক্ষেত্রেই এই চিকিৎসার পদ্ধতি প্রয়োগ করা হয়৷ কারণ এই দুই ক্ষেত্রে শরীরের অঙ্গ স্থির থাকে, ফুসফুসের মতো নড়াচড়া করে না৷

ডার্মস্টাট শহরের উপকণ্ঠে জিএসআই হেল্মহলৎস-সেন্টারে এই চিকিৎসা পদ্ধতি গড়ে তোলা হয়েছিল৷ এখানেও আয়ন রশ্মির অ্যাকসিলারেটর এবং চিকিৎসার ব্যবস্থা রয়েছে৷ পদার্থবিজ্ঞানী কারোলা পমপ্লুন বলেন, ‘‘এখানে অ্যাকসিলারেটর থেকে রশ্মি বের হয়৷ লিনেয়ার ও রিং – দুটি পার্টিকেল অ্যাকসিলারেটর দিয়ে আলোর গতির প্রায় ৭০ শতাংশ বেশি দ্রুত আয়ন তৈরি করা হয়৷ সেগুলি এই জানালা দিয়ে বের হয়৷ রোগী এখানে শুয়ে থাকে৷ আয়ন রশ্মি নিখুঁতভাবে বেরিয়ে টিউমারে প্রবেশ করে এবং তার মধ্যে ক্যানসার কোষগুলি ধ্বংস করে দেয়৷''

ডার্মস্টাট শহরের চিকিৎসাকেন্দ্রে প্রায় ৪৫০ রোগীর উপর আয়ন রশ্মি নিক্ষেপ করা হয়েছে৷ কিন্তু আধুনিকীকরণের অভাবে এর মধ্যে এই কেন্দ্রটি বন্ধ হয়ে গেছে৷ তাই এখন শুধু হাইডেলব্যার্গেই চিকিৎসা চলছে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়