কোলনে ভারতীয়, কৃষ্ণাঙ্গ এবং অ্যামেরিকানদের ভিড় | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 28.09.2010
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

কোলনে ভারতীয়, কৃষ্ণাঙ্গ এবং অ্যামেরিকানদের ভিড়

কোলন শহরে বসবাস করছে বিশ্বের প্রায় ১৭০টি দেশের মানুষ৷ প্রতি তিন জনের মধ্যে একজন বিদেশি৷ অনেকেই বলছে, এই কোলন শহরের মধ্যেই বিশ্বভ্রমণ সম্ভব৷ আসলেই কী তাই ?

Deutschland Megacity Ruhrgebiet Hohe Straße in Köln

কোলনের একটি ব্যস্ত সড়কের দৃশ্য

যখনই কোন বিদেশি জার্মানিতে আসেন নিঃসন্দেহে বলা যায় তিনি তাঁর দেশ থেকে সংস্কৃতি, ঐতিহ্যও সঙ্গে নিয়ে আসেন৷ কোলন শহর তার জলজ্যান্ত প্রমাণ৷ এই শহরটিতে বসবাস করছে অসংখ্য বিদেশি৷ অনেকেই খুলে বসেছেন নিজস্ব দোকান বা রেস্ট্যুরেন্ট৷ দক্ষিণ আ্যামেরিকা থেকে শুরু করে আফ্রিকা, ভারত, মধ্য প্রাচ্য কোন অঞ্চলই বাদ পড়েনি৷

কিউবা

শুরুতেই কিউবা৷ কিউবাকে পরিচিত করতে প্রতিষ্ঠিত করা হয়েছে সিগারের একটি দোকান৷ নাম ‘লা গালানা'৷ কিউবার ঘরবাড়ি দেখতে যেমন দোকানটিও ঠিক সেভাবেই তৈরি করা হয়েছে৷ সবাই বলছে, এ যেন কোলনে এক টুকরো কিউবা৷

Kölner Dom bei Nacht

রাতের বেলা রাইন নদীর তীরে কোলন শহর

ভারত

নয় মার্কট এলাকাটি ভারতীদের দখলে৷ দোকান থেকে ভেসে আসছে হিন্দি গান৷ বোঝা যাচ্ছে আমজাদ আলী খানের অনেক ভক্ত রয়েছে এই এলাকায়৷ দোকান থেকে ভেসে আসছে আগরবাতির গন্ধ৷ আর এখানেই রয়েছে কোলনের সবচেয়ে বড় ভারতীয় রেস্ট্যুরেন্ট ‘কড়াই'৷ আরো রয়েছে, যোগব্যায়ামের একটি কেন্দ্র৷ চার বছর আগে রাজু কারামবান কেন্দ্রটি খোলেন৷ তিনি জানান, ‘‘আমি সবাইকে বলতে চাই, নিজের স্বাস্থ্যের জন্য কিছু করুন৷ নিজের যত্ন নিন৷ সুস্থ, সুন্দর থাকুক৷ এটাই মূল উদ্দেশ্য৷ তাই মেডিটেশনও করা হয় এখানে৷''

ইরিত্রিয়া

জার্মান-ইরিত্রিয় বংশোদ্ভূত লেখক-গায়ক সামি ওমার৷ বড় হয়েছেন জার্মানির দক্ষিণে উল্ম শহরে৷ কিন্তু শেষ পর্যন্ত আস্তানা গড়েছেন কোলনে৷ তিনি পড়ে শোনালেন তাঁর নিজের লেখা, ‘‘আমি বেলুন নই৷ বেলুনের মত টাই এবং স্কার্টেও অনেক রঙ দেখা যায়৷ যাদের গায়ের রঙ বাদামি বা খয়েরি তারাও কি রঙীন ? আমরা সবাই রঙীন, আমাদের সবার মধ্যেই রঙ আছে৷ আমি কিন্তু কোন বেলুন নই৷''

প্রতিবেদন: মারিনা জোয়ারদার

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

নির্বাচিত প্রতিবেদন