1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

কোলনের আর্কাইভ ভবন ভেঙে পড়ার এক বছর

ঠিক এক বছর আগে তেসরা মার্চ তারিখে পাতাল রেলের এক নতুন লাইনের কাজ চলার সময় ভেঙে পড়ে এ শহরের ঐতিহাসিক আর্কাইভ৷ নিহত হন দুই ব্যক্তি৷ কিন্তু ধ্বংস হয়ে গেছে আর্কাইভের বেশ কিছু মহামূল্য নথিপত্র৷

default

ধ্বংস হয়ে গেছে বেশ কিছু মহামূল্য নথিপত্র

কী ছিলনা কোলনের এই আর্কাইভে ? ছিল নোবেলজয়ী জার্মান লেখক প্রয়াত হাইনরিশ ব্যোয়েল-এর বহু পান্ডুলিপি, চিঠিপত্র, মধ্যযুগের নামী জার্মান দার্শনিক ও ধর্মতাত্ত্বিক আলব্যার্টুস মাগনুসের হাতের লেখা, ষোড়শ ও সপ্তদশ শতকের বহু লেখা, সংগীতকার রিশার্ড ভাগনারের বিখ্যাত অপেরার মহামূল্য স্বরলিপি, কোলন শহরের ইতিহাসঋদ্ধ সব নথিপত্র দলিল দস্তাবেজ৷ আর্কাইভ ভবন ভেঙে পড়ার সঙ্গে সঙ্গে হারিয়ে গেছে বহু লিপি, বহু নথি৷ ভূগর্ভ থেকে বেশ কিছু জিনিস উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে৷ তবে এ কাজ এখনও বহু দিন ধরে চলবে ধরে নেয়া যায়৷ ইতিমধ্যে নির্মাণকাজে অনিয়ম, গাফিলতি আর ব্যর্থতার নানা তথ্য ফাঁস হয়ে গেছে৷ সক্রিয় হয়েছে আইন৷

Jahresrückblick 2009 Einsturz Stadtarchiv in Koeln

আর্কাইভটির ধ্বংসস্তুপ

কোলনের এই ঐতিহাসিক আর্কাইভের পরিচালিকা বেটিনা শ্মিট-চাইয়া স্পষ্ট স্মরণ করতে পারেন ২০০৯ সালের তেসরা মার্চ-এর সেই দিনটি৷ একজন অতিথি নিয়ে তিনি বসে ছিলেন তাঁর অফিস ঘরে৷ স্মৃতিচারণ করে তিনি বলেন, ‘‘হঠাৎ কানে এল যেন হৈহল্লার শব্দ৷ দ্রুত আমার রুমে ঢুকলেন বাড়ির টেকনিশিয়ান৷ সাঙ্ঘাতিক উত্তেজিত দেখাচ্ছিল তাঁকে৷ মুখটা একেবারে লাল৷ বলতে গেলে গোটা ফ্লোর জুড়ে দৌড়াচ্ছিলেন তিনি৷ আবার ছুটে গেলেন তিনি পরের রুমে৷ আমিও তাঁর পিছন পিছন কিছুটা দৌড়ে গেলাম রিডিং রুম পর্যন্ত৷ রুমের দরজা টেনে খুলে ফেললাম৷ চিৎকার করে বললাম, বেরিয়ে এস, বেরিয়ে এস সবাই৷ আর তারপর, আমি নিজেও দৌড়ে বাইরে বেরিয়ে আসি৷''

বেলা তখন ১টা বেজে ৩৮ মিনিট৷ এর ঠিক পাঁচ মিনিট আগে নির্মাণকর্মীরা পাতাল রেলের গুহায় কংক্রিটের দেয়ালের দিকে মাটি সরে আসার চিহ্ন দেখতে পান৷ তাঁরা দৌড়ে আর্কাইভ ভবন এবং আশপাশের বাড়িগুলোতে গিয়ে সবাইকে বেরিয়ে আসতে বলেন৷ আর্কাইভের ২১ জন কর্মী আর দর্শনার্থীরা ভবন ভেঙে পড়ার অল্প আগে নিরাপদ জায়গায় সরে যেতে সক্ষম হন৷ তাঁরা দাঁড়িয়েছিলেন পাশের একটি হাইস্কুলের খেলার জায়গায়৷ মাত্র কয়েক সেকেন্ডের মধ্যে তাঁদের চোখের সামনে ধসে পড়ে বিশাল এই আর্কাইভ৷ এখানেই সংরক্ষিত ছিল কোলনের হাজার বছরের ইতিহাস, ৬৫ হাজার দলিল, এক লক্ষ চার হাজার ম্যাপ, পাঁচ লাখ ফটো এবং বহু লেখককের পান্ডুলিপি৷

ইতিমধ্যে অবশ্য আর্কাইভের

Jahrestag Einsturz Kölner Stadtarchiv Flash-Galerie

একটি ডকুমেন্ট উদ্ধারের চেষ্টা চলছে

জিনিসপত্রের ৮৫ শতাংশ উদ্ধার করা হয়েছে৷ দশ শতাংশ এখনও ধ্বংসস্তূপের নীচে৷ আশঙ্কা, পাঁচ শতাংশ আর কখনো হয়ত উদ্ধার করা সম্ভব হবেনা৷ এপ্রিল মাসে বিশেষ ধরণের এক ড্রেজার ব্যবহার করে দশ মিটার গভীরে খোঁড়াখুঁড়ি করে উদ্ধার করা হবে পড়ে থাকা আরও নথিপত্র৷

লেখক হাইনরিশ ব্যোয়েল-এর পুত্র রেনে ব্যোয়েল খুবই ক্ষুব্ধ৷ ভেঙে পড়ার মাত্র তিন সপ্তাহ আগে আর্কাইভকে দেয়া হয়েছিল ব্যোয়েল-এর ৪০০ পান্ডুলিপি, কয়েক হাজার চিঠি, গোটা পরিবারের ইতিহাস সম্বলিত ৬০০০ থেকে ৮০০০-এর মত ফোটো আর নথিপত্র৷ কিন্তু এর কতটা হারিয়ে গেছে তা তিনি এখনও জানেননা৷ রেনে ব্যোয়েল শুধু এই ভেবে খুশি যে তাঁর বাবার পান্ডুলিপির বড় অংশই রাখা আছে হাইনরিশ ব্যোয়েল আর্কাইভে৷

প্রতিবেদক: আব্দুল্লাহ আল-ফারূক

সম্পাদনা: আবদুস সাত্তার

সংশ্লিষ্ট বিষয়