1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

কোরালের বিকল্প হতে পারে ‘ফোরামিনিফেরা’

জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব পড়ছে সর্বত্র৷ সাগরের তলদেশও বাদ নেই সেই তালিকা থেকে৷ জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে কোরাল রিফ বা প্রবাল প্রাচীরের ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ দিন দিন বাড়ছে৷

default

কোরাল রিফও জলবায়ু পরিবর্তনের শিকার হচ্ছে

বিষয়টি নিয়ে বিজ্ঞানীদের উদ্বেগ দিন দিন বাড়ছে৷ তবে ‘ফোরামিনিফেরা' নামের ছোট্ট একটি অর্গানিজম বোধ হয় এ ক্ষেত্রে সাহায্য করতে পারে৷ গরম পানিতে থাকা এই অর্গানিজম থেকে বছরে বর্গমিটার প্রতি সর্বোচ্চ দুই কেজি ক্যালসিয়াম কার্বনেট নিঃসৃত হয়৷ পরিমাণটা প্রবালের অর্ধেক হলেও এর শেলগুলো ওশান অ্যাসিডিফিকেশনের বিরুদ্ধে বেশি লড়তে পারে৷

বন বিশ্ববিদ্যালয়ের স্টাইনমান ইনস্টিটিউটের মার্টিন লাঙার ২৫ বছর ধরে ফোরামিনিফেরা নিয়ে গবেষণা করছেন

Seychellen Reef Retter

কোরালের বিকল্প খোঁজা হচ্ছে

তিনি বলেন, ‘‘প্রবালের উপর উষ্ণতা বৃদ্ধি এবং ওশান অ্যাসিডিফিকেশনের প্রভাব নিয়ে এখন অনেক আলোচনা হচ্ছে৷ ভবিষ্যতে যদি প্রবাল হারিয়ে যায়, তাহলে ফোরামিনিফেরা তার জায়গা নিতে পারে৷ কারণ ওটাই এখন পর্যন্ত আবিষ্কৃত কোরালের সম্ভাব্য বিকল্প জীবাশ্ম৷''

প্রায় একশো কোটি বছর ধরে রয়েছে এই এককোষ বিশিষ্ট ফোরামিনিফেরা৷ সাধারণের কাছে অর্গানিজমটি দেখতে অনেকটা বালুর কণার মতো৷ সাগরপৃষ্ঠে বসবাসকারী ফোরামিনিফেরার আকার একেবারে অদৃশ্যমান থেকে ২০ সেন্টিমিটার পর্যন্ত হতে পারে৷ লাঙার-এর বিশ্বাস, একটি দ্বীপকে ক্ষয়ের হাত থেকে বাঁচাতে পারে এই অর্গানিজম৷

ফোরামিনিফেরা-রা একটা দ্বীপের চারপাশ জুড়ে থাকে এবং আশেপাশের পরিবেশের জন্য পর্যাপ্ত কার্বনেট সরবরাহ করার মতো সংখ্যায়, তারা জন্মে৷

তেল-গ্যাসের নতুন ক্ষেত্র অনুসন্ধান কাজেও সহায়তা করে ফোরামিনিফেরা৷ কারণ বিশেষজ্ঞরা এটা পরীক্ষা করে পলি স্তরের বয়স সম্পর্কে ধারণা পান৷ ফলে ভুল জায়গায় অনুসন্ধান কাজ চালানো থেকে তাঁরা বিরত থাকতে পারেন৷ তবে এ সব অনুসন্ধান কাজ শুরুর আগে থেকেই মানুষের উপকার করে আসছে ফোরামিনিফেরা৷

অবশ্য ফোরামিনিফেরার একটা খারাপ দিকও আছে৷ ফোরামিনিফেরা যখন নতুন জায়গায় যায়, তখন তারা সেখানকার প্রাকৃতিক বৈচিত্র্য প্রায় ১০ থেকে ৩০ শতাংশ কমিয়ে দেয়৷ লাঙার বলেন, ‘‘একদিক দিয়ে অবশ্য এটা ভালো, কারণ ফোরামিনিফেরা যেখানে যায় সেখানে কার্বনেট উৎপাদন বেড়ে যায়৷ তবে বৈচিত্র্যের কথা ভাবলে, যেহেতু দখলদার অর্গানিজম হিসেবে এটা বৈচিত্র্য কমিয়ে দেয়, এটাকে স্বল্পমেয়াদী সমস্যা মনে করা যেতে পারে৷''

তবে জলবায়ু পরিবর্তন ও সাগরের পানির তাপমাত্রা বাড়ার কারণে ফোরামিনিফেরা আরও জায়গা পরিবর্তন করবে৷ চ্যালেঞ্জ হচ্ছে, এই ছোট্ট অর্গানিজমের সর্বোচ্চ ব্যবহার করা, যেটা কয়েকটি দেশ ইতিমধ্যে শুরু করে দিয়েছে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক