1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

কোথায় যাবেন মাদারীপুরের যৌনকর্মীরা

বাংলাদেশের এক জেলায় সম্প্রতি একটি যৌনপল্লি উচ্ছেদ করেছে ইসলামপন্থিদের একটি দল৷ ঐ হামলায় অন্তত ৩০ জন যৌনকর্মী আহত হয়েছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ৷ হামলাকারীদের বক্তব্য, ইসলাম যৌনপল্লি সমর্থন করে না৷

পুলিশ কর্মকর্তা ফরিদুর রহমান জানান, মাদারীপুরের ঐ এলাকায় মঙ্গলবার কয়েক হাজার মানুষ লাঠিসোঁটা নিয়ে যৌনপল্লিটি ভেঙে গুড়িয়ে দেয়৷ ন্যাশনাল রিফর্ম কাউন্সিল নামে সংগঠনটির হামলায় পল্লিটি কেবল বিধ্বস্তই হয়নি, লুটপাটও চালানো হয়েছে সেখানে৷ হামলাকারীরা জানিয়েছে, ইসলামি মূল্যবোধের বিরুদ্ধে কাজ করছে এই যৌনপল্লি, যা কখনই ইসলাম সমর্থিত নয়৷

ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক আমলে এই পল্লিটি গড়ে ওঠে৷ অন্তত ৫০০ যৌনকর্মী তাঁদের সন্তানদের নিয়ে সেখানে বাস করে আসছেন৷ হামলার পর পরই বেশিরভাগ কর্মী অন্যত্র চলে গেছেন অথবা আশ্রয় নিয়েছেন কোনো বেসরকারি সংস্থায়৷

অডিও শুনুন 03:27

বলছেন সুলতানা কামাল

অনেকদিন ধরেই স্থানীয় কর্তৃপক্ষকে পল্লিটি উচ্ছেদের জন্য বলে আসছিল ইসলামপন্থি ঐ সংগঠনটি৷ যদিও যৌনকর্মীদের দাবি, এলাকার প্রভাবশালী কোনো ব্যক্তি সুউচ্চ ভবন বানানোর জন্য জমিটি দখল করার চেষ্টা করছেন৷ আর তাঁর ইন্ধনেই চালানো হয়েছে এই হামলা৷

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশের আইন ও সালিশ কেন্দ্রের নির্বাহী পরিচালক সুলতানা কামালের কাছে প্রশ্ন রাখা হয়েছিল: ইসলামের দোহাই দিয়ে এই যে হামলা এটাকে আপনি কি বলবেন? উত্তরে এই মানবাধিকার কর্মী বলেন, ‘‘মাদারীপুরের যৌনপল্লিগুলো বহু বছরের পুরোনো এবং যুগ যুগ ধরে এগুলো সেখানে বহাল তবিয়তে আছে৷ তাহলে হঠাৎ ধর্মের দোহাই কেন? এতদিন তো ধর্মের কথা বলা হয়নি৷'' তাই কোনো স্বার্থান্বেষী মহল এর পেছনে রয়েছে বলে মনে করেন তিনি৷ জমি দখলের জন্য প্রায়ই এ ধরনের ঘটনা হয়ে থাকে বলে জানান সুলতানা কামাল৷ তাঁর মতে, এর পেছনে রাজনৈতিক কোনো কারণও থাকতে পারে৷

দ্বিতীয় প্রশ্নটি করা হয়েছিল যৌনকর্মীদের অধিকার নিয়ে৷ এর জবাবে সুলতানা কামাল জানান, ‘‘উচ্চ আদালতের নির্দেশ আছে, পুনর্বাসন ছাড়া কোনো যৌনকর্মীকে তাঁর বাসস্থান থেকে উচ্ছেদ করা যাবে না৷ সুতরাং তাঁদের বিষয়টি রাষ্ট্র কর্তৃক স্বীকৃত৷ আর তাঁদের কাজটা তো নতুন নয়৷ প্রয়োজনের তাগিদেই তাঁরা একে পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছেন৷'' তিনি বললেন, এখানে রাষ্ট্রের করণীয় হলো, তাঁদের যাতে সঠিক পুনর্বাসন হয়, সে ব্যবস্থা করা৷

এপিবি/ডিজি (ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও