1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

কোকোর ফেরত আনা অর্থ নিয়ে বিতর্ক

দুর্নীতি দমন কমিশন বিরোধী দলীয় নেত্রী এবং বিএনপি’র চেয়ারপার্সন আরাফাত রহমান কোকোর বিদেশে পাচার করা অর্থের আরো এক কিস্তি ফেরত আনায় তা নিয়ে শুরু হয়েছে রাজনৈতিক বিতর্ক৷

বিএনপির নেতারা বলছেন সাধারণ মানুষের দৃষ্টি অন্য দিকে ফেরাতেই সরকার এই নাটক শুরু করেছে৷ আর আওয়ামী লীগ নেতারা বলছেন আবারও প্রমাণ হল বিএনপি একটি দুর্নীতিবাজ দল৷

আরাফাত রহমানের পাচার করা অর্থের তৃতীয় কিস্তি ফেরত আনা হয়েছে সিঙ্গাপুরের ওয়েসিস ব্যাংক থেকে৷ এর পরিমাণ বাংলাদেশি মুদ্রায় ৭ কোটি ৫০ লাখ টাকা৷ গত ১৩ই আগস্ট এই অর্থ ফেরত আসলেও তা প্রকাশ করা হয় মঙ্গলবার৷ এর আগে গত নভেম্বরে এবং চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে দু'দফায় মোট ২৬কোটি ৬০ লাখ টাকা ফেরত আনা হয়৷ এনিয়ে তিন দফায় মোট ৩৪ কোটি ১০ লাখ টাকা ফেরত আনা হলো৷ এই অর্থ সোনালী ব্যাংকে দুদকের হিসেবে ‘স্টোলেন রিকভারি অ্যাসেট' হিসেবে জমা হয়েছে৷

তৃতীয় দফা টাকা আসার পর এনিয়ে আগের মতোই রাজনৈতিক বিতর্ক শুরু হয়েছে৷ বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বুধবার বলেছেন সরকার এক নতুন নাটক শুরু করেছে৷

Arafat Rahman Koko

আরাফাত রহমান কোকো

দেশের মানুষ যখন সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলনে নেমেছে, তারা যখন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিতে সোচ্চার, তখন জনগণের দৃষ্টি ভিন্ন খাতে নেয়ার জন্য সরকার নাটক সাজিয়েছে৷ তিনি বলেন আরাফাত রহমান কোকো এবং বিএনপিকে হেয় প্রতিপন্ন করতেই এই কথিত পাচার করা অর্থ ফেরত আনার কথা বলা হচ্ছে৷ এর উদ্দেশ্য হলো প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করা৷ তিনি বলেন পদ্মা সেতু নিয়ে কারা ঘুস খেয়েছে তা দেশের মানুষ জানে৷ তার বিচার চলছে ক্যানাডায়৷

এদিকে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ বলেছেন, খালেদা জিয়ার পুত্র আরাফাত রহমান কোকোর অর্থ পাচারের মধ্যে দিয়ে আবারো প্রমাণিত হয় বিএনপি হাওয়া ভবন সৃষ্টি করে সীমাহীন দুর্নীতি করেছিলো৷ বিএনপির সরকার ছিল একটি দুর্নীতিবাজ সরকার৷ তারা দেশের সাধারণ মানুষের অর্থ লুটপাট করে দেশের বাইরে পাচার করেছে৷ আর সেই অর্থ বর্তমান সরকার যখন ফেরত আনছে তখন বিএনপি'র গা জ্বালা করছে৷ তিনি বলেন বিএনপি আবার ক্ষমতায় এলে দেশ আবারও ঘুস, দুর্নীতিতে ছেয়ে যাবে৷ আবারো হাওয়া ভবন সৃষ্টি হবে৷ তিনি বলেন, দুর্নীতি আর জঙ্গিবাদের উত্থানের জন্য বিএনপি-জামাতকে জনগণ আর ক্ষমতায় আনতে চায় না৷

তবে দুদকের আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল ডয়চে ভেলেকে বলেন, তারা আইন অনুযায়ী কাজ করছেন৷ আরাফাত রহমান কোকোর অর্থ পাচারের ঘটনা বাংলাদেশ নয়, প্রথমে বিদেশি গোয়েন্দা সংস্থাই শনাক্ত করে৷ আর এই অর্থ পাচারের ঘটনায় তাঁর বিরুদ্ধে মামলা চলছে৷

উল্লেখ্য, আরাফাত রহমান কোকো বিগত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় গ্রেফতার হওয়ার পর চিকিৎসার জন্য প্যারোলে মুক্তি নিয়ে দেশের বাইরে যান৷ এখনো তিনি বিদেশেই অবস্থান করছেন৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন