1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

কোলনের কার্নেভালে একটা দিন

কার্নেভাল দেখতে যাচ্ছি কোলনে....ট্রামে ওঠার আগেই চোখে পড়লো বিচিত্র সাজ পোশাকের নারী পুরষ শিশুদের ভিড়৷ অনেকেরই গন্তব্য কোলন৷ সকাল সাড়ে দশটা....কোলনের প্রধান স্টেশনে নামতে না নামতেই কানে আসছে উদ্দাম ব্যান্ডের শব্দ...

বাদক দলকে ঘিরে দাঁড়িয়ে নাচছে সব বয়সের মানুষ৷ একটা শোভাযাত্রা যাচ্ছে শহরের পুরনো টাউন হলের দিকে৷ স্টেশনের সামনে প্রস্তুতি চলছে তাঁর৷

পুরো শহরই যেন ছুটছে সেদিকে৷ আর কী আনন্দ সবার চোখে মুখে৷ রাস্তার মোড়ে মোড়ে পানশালাগুলোতে ভিড় উপচে পড়ছে৷ এই সাত সকালেই বিয়ার বা মদিরার পাত্র বেশিরভাগের হাতেই৷ শহরও যেন সেজেছে কার্নেভালের সাজে৷ মানুষের ভিড় অনুসরণ করতে করতেই পৌঁছে গেলাম পুরনো টাউন হলে৷ ভেতরে চলছে পার্টির প্রস্তুতি, বাইরে জনতার কোলাহল৷

Karneval in Köln

কোলন কার্নেভালে বাংলাদেশী শিল্পীদের পরিবেশনা

এখানে নারীদের ভিড়ই বেশি৷ কথা বলে জানতে পারলাম আজকের দিনটিকে বলা যেতে পারে কার্নেভালের প্রমীলা দিবস৷ মেয়েরা বস কিংবা অন্য পুরুষদের টাই কেটে নেবে৷ তবে বিনিময়ে ওই পুরুষটি কপালে জুটবে একটি চুমুও৷ নারীর ক্ষমতায়নের এ এক প্রীতীকি নাটক৷ নারীকে ক্ষমতা দাও....সে তোমাকে দেবে ভালবাসা৷ টাউন হলের ব্যাপারটিও তাই৷ আজ সকাল ১১টা ১১ মিনিটে শহরের মেয়রের কাছ থেকে চাবি কেড়ে নিয়ে টাউন হল দখল করে নেবে নারীরা৷ অবশ্য বিনা উৎপাতেই চাবি দিতে প্রস্তুত হয়েই বসে থাকেন মেয়র৷

টাউন হলের সামনেই এক নারীর কাছে জানতে চাইলাম তিনি কেন এখানে এসেছেন? তিনি বলছিলেন, ‘‘আমার নাম ইয়াসমিন৷ এখানে ভাইবার ফাস্ট নাখটের একটা বড় পার্টি আছে....আমরা এখানে পার্টির জন্যই এসেছি....খাবে দাবো কিছুটা পান করবো ফূর্তি করবো৷''

Karneval in Köln

কার্নেভালে স্কুলশিশুদের প্যারেডে ‘জলবায়ু পরির্তনে বাংলাদেশের ঝুঁকি’ ফুটিয়ে তুলেছেন শিল্পী সাইদুল হক জুইস ও ফারিহা জেবা

টাউন হলো নারীদের হাতে ছেড়ে দিয়েই রওনা দিলাম পাশের বিশাল মঞ্চের দিকে৷ মঞ্চের উল্টোদিকে সাংবাদিক প্যাভিলিয়নে দাঁড়িয়ে দেখলাম কয়েক হাজার মানুষ শিল্পীদের সঙ্গে গলা মিলিয়ে গান গাইছে গলা ছেড়ে৷ এই দৃশ্য এই কোরাস....সামনে থেকে না দেখলে না শুনলে এর মাহাত্য বোঝানো কঠিন৷ সাবই গাইছে..... কোলন আলাফ!!!

চললাম শহরের দক্ষিণ অংশের দিকে৷ অর্থাৎ কোলন স্যুড-এ৷ এখানে বিশাল এক সড়কের মুখে ব্যারিকেড দিয়ে দাঁড়িয়ে আছে পুলিশ৷ ভেতরে যাবে না কোনো গাড়িঘোড়া৷ তরুণ-তরুণীদের ভিড়ে দাঁড়িয়ে সড়কে ঢুকতেই দেখি এলাহি কাণ্ড৷ হাজার হাজার মানুষ বিচিত্র পোশাক পড়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে....দলে দলে গান গাইছে নাচছে আর একে অন্যের সঙ্গে ঠাট্টা মশকরা করছে৷ যে কথায় অন্য সময় কেউ ক্ষেপে যেতে পারতো....তাতেও বইছে হাসির ফোয়ারা৷

Karneval in Köln

আয়োজকরা জানান, জলবায়ু পরির্তনের পাশাপাশি ঢাকায় পহেলা বৈশাখের মঙ্গল শোভাযাত্রার কথা মাথায় রেখেই কোলন কার্নেভালে বিষয় করা হয়েছে বাংলাদেশকে

কিউবান ক্যাফের সামনে কয়েক তরুণ জলদস্যু হাটছে রাস্তায়৷ এমন সাজের কারণ জানতে চাইলে হাসতে হাসতে বললো, ‘‘আমি একজন জলদস্যু....তুমি হয়ত জানো না জলদস্যুতার যা কিছু হচ্ছে দুনিয়াজুড়ে সেসবের কলকাঠি আমার হাতেই৷''

সাজ কত বিচিত্র হতে পারে তা এই কার্নেভালে না আসলে বুঝতাম না৷ পাকা মিষ্টি কুমড়ো সেজে ঘুরে বেড়াচ্ছি তিন তরুণী৷ ফল, পাখি, মাছ, মোরগ, গরিলা কী না সেজেছে মানুষ৷ অনেকের সাজের পেছনে আবার আছে বিশেষ বার্তাও৷ একদল তরুণ-তরুণী চিকিৎসক সেজে ঘুরে বেড়াচ্ছে৷ জানতে চাইলে বললো....হাইতির ভূমিকম্পের চিকিৎসক সংকট দেখা গেছে সেখানে৷ দুর্গতরা সময়মতো ওষুধ ও চিকিৎসা পায়নি৷ তাই তারা এই পেশার মহান দায়িত্বের প্রতি সবার দৃষ্টি আকর্ষণ করতে চায়৷

একদল ঘুরে বেড়াচ্ছে পোকাসাকড় মারার ওষুধ দেওয়া লোকদের মতো৷ জামায় লোগো ‘ঘোস্ট হান্টার' অর্থাৎ তারা ভূত-তাড়ানোর দল৷ কেন এই সাজ জানতে চাইলে জানালো৷ ওরা মনে করে সমাজ থেকে অসুভ সব শক্তিকে ভূত তাড়ানোর মতো করেই তাড়াতে হবে৷

হঠাৎ চোখে পড়লো ভারতীয়দের মতো শাড়ি পরা এক তরুণী৷ জানতে চাইলাম কেন শাড়ি পড়েছো৷ ও বলছিল, ‘‘আমার বয়ফ্রেন্ড গত বছর ভারতে গিয়েছিল, সেখান থেকে আমার জন্য নিয়ে এসেছে এবং এটা আমার খুব ভালো লেগেছে৷''

হাইডেলব্যার্গের তরুণ অ্যালেক্স সেজেছে তালেবান৷ জানালো লোকে তাকে ওসামা বলে ডাকছে৷ বলল, ‘‘আমি তালেবানের মতো সেজেছি৷ আমি চাইবো সব তালেবানরা কোলনে চলে আসুক আর এই উৎসবে যোগ দিক৷ তারা নিজেদের মুক্ত করুক৷ এতে এক ধরণের আন্তঃসংস্কৃতি যোগাযোগের শুরু হতে পারে৷ আফগানিস্তান এবং জার্মানির৷''

আরেকটু এগিয়ে যেতেই দেখি একদল ছেলেমেয়ে গান গাইছে রাস্তায় দাঁড়িয়ে৷ দলনেতা বলছিল, ‘‘আমার নাম অ্যন্টনি....গত বিশ বছর ধরে আমি এই কার্নেভালে আসি৷ এটা দারুণ অভিজ্ঞতা৷ প্রতি বছরই দারুণ৷ কোলন আসলেই দারুণ, এই উৎসব চমৎকার৷ সারা বিশ্ব এখানে এসে এক হচ্ছে৷ তোমার এখানে আসা উচিত৷ সবারই আসা উচিত৷''

আমিও কথা দিলাম সুযোগ পেলে অবশ্যই আবারও আসবো এই কোলন কার্নেভালে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়