1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

‘কেন ন্যায় বিচার নয়?’

যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কে পুলিশের হাতে এরিক গার্নারের মৃত্যুর দৃশ্য ঘটনাক্রমে একজন ভিডিও করেন, যা ইন্টারনেটে ছড়িয়ে পড়ায় ব্যাপক সমালোচনা শুরু হয়েছে৷ কৃষ্ণাঙ্গদের বিরুদ্ধে পুলিশের আচরণ নিয়ে আবারো প্রশ্ন উঠেছে৷

যুক্তরাষ্ট্রের পুলিশ প্রয়োজন না থাকলেও বেছে বেছে কৃষ্ণাঙ্গদের ক্ষেত্রে বল প্রয়োগ করছে বলে অভিযোগ উঠেছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে৷ যে ভিডিওটি প্রকাশ হয়েছে তাতে দেখা যায়, কয়েকজন পুলিশ সদস্য নিরস্ত্র গার্নারকে রাস্তায় ফেলে চেপে ধরেছেন৷ এর মধ্যে একজন পেঁচিয়ে ধরেছেন তাঁর গলা৷ শ্বাসকষ্টের রোগী গার্নারকে এ সময় চিৎকার করে বলতে শোনা যায়, ‘‘আমার দম বন্ধ হয়ে আসছে৷''

নিউ ইয়র্কের গ্র্যান্ড জুরি শ্বেতাঙ্গ পুলিশের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন না করার সিদ্ধান্ত জানানোর পর নিউ ইয়র্কের রাস্তায় যেমন মানুষ নেমে এসেছেন, তেমনি পুরো যুক্তরাষ্ট্রের মানুষ টুইটারে জানাচ্ছেন তাদের প্রতিবাদ৷ হ্যাশ ট্যাগ হিসেবে তারা বেছে নিয়েছেন #EricGarner ও #ICantBreathe৷

ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল একটি প্রতিবেদন ছেপেছে, কীভাবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এই প্রতিবাদের আগুনে ঘি ঢালছে৷

জন গ্যাল্ট ব্রুকলিন ব্রিজে প্রতিবাদের কিছু ছবি টুইটারে প্রকাশ করেছেন৷

ন্যান্সি হেনেন বিক্ষোভের একটি ছবি শেয়ার করেছেন টুইটারে৷

নিউজউইকসহ বেশ কয়েকটি পত্রিকা প্রতিবাদ বিক্ষোভের একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে টুইটারে৷

ক্রিস রক লিখেছেন গার্নার নিরস্ত্র ছিল, ভিডিওতেই যার প্রমাণ রয়েছে৷

লটে লাইসট লিখেছেন, ভিডিওতে সব প্রমাণ আছে, তাহলে কেন ন্যায় বিচার নয়?

ক্রিস্টিনা এভারেট লিখেছেন প্রতিবাদে উচ্চারিত স্লোগানের কথা৷

পুয়ের্তো রিকোর এক শিল্পী অ্যান্ড্রু জে পাডিলা লিখেছেন, শান্তিপূর্ণ এই বিক্ষোভের সময় অন্তত ৪০ জনকে আটক করেছে পুলিশ৷

আনাবেলে পেরেজ টুইটারে লিখেছেন, এরিক গার্নারের শ্বাসরোধে মৃত্যু: শ্বেতাঙ্গ পুলিশের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন না করার সিদ্ধান্তে সাধারণ মানুষের শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ৷

জনেতা নামের এক ব্যক্তি অপর একটি নিউজের একটি প্রতিবেদন শেয়ার করে লিখেছেন, বিক্ষোভটি ছিল শান্তিপূর্ণ৷

টুইটারে রবিন রবার্টস লিখেছেন, বৃহস্পতিবার সকালে শ্বেতাঙ্গ পুলিশের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন না করার সিদ্ধান্তে মানুষের প্রতিক্রিয়া৷

এরিক গার্নারের স্ত্রীর একটি সাক্ষাৎকার শেয়ার করে মেলেয়া এম. লিখেছেন, তখনই ক্ষমা চাওয়া উচিত ছিল যখন আমার স্বামী বলছিলেন, ‘আমার দম বন্ধ হয়ে আসছে৷'

আন্তোনিও ফ্রেঞ্চ লিখেছেন, এর একটা উপসংহার টানা উচিত৷ এভাবে মানুষকে হত্যা করা চলতে পারে না৷

জারেড রবিনসন এরিক গার্নারকে গ্রেপ্তারের সময় ধারণকৃত ভিডিওটি শেয়ার করে লিখেছেন, এমন তুচ্ছ কারণে একজন পুলিশ কোনো মানুষকে হত্যা করতে পারে না৷

সংকলন: অমৃতা পারভেজ

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়