1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

কেনিয়ার কৃষি অর্থনীতিতে পরিবেশ বান্ধব কর্মসূচি

কেনিয়ার সরকার চাষাবাদের ক্ষেত্রে পরিবেশ বান্ধব এক কর্মসূচি হাতে নিয়েছে, যাতে দীর্ঘস্থায়ী ফলাফল পাওয়া যাবে বলে আশা করা হচ্ছে৷ দূর হবে ক্ষুধার প্রকোপও৷ জাতিসংঘের কৃষি সংস্থা এফএও এ ক্ষেত্রে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছে৷

নতুন পদ্ধতিতে উৎসাহ উদ্দীপনা

দেখা যাক এই কর্মসূচির আওতায় চাষিরা কী করছেন: তরিতরকারির খোসা, গোবর, মাটি, ব্যাকটেরিয়া ইত্যাদি দিয়ে কীভাবে সার তৈরি করা যায়, তা শিখছেন চাষিরা৷ তাদের প্রশিক্ষক এসেছে ‘কারি' নামের সংস্থা থেকে৷ কারি কেনিয়ার একটি কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট৷ কৃষক ফ্রান্সিস ওয়াইথাকা কাবাটি মনোযোগ দিয়ে শিখছেন সার তৈরি করার পদ্ধতিটা৷ তিনি জানান,

‘‘কারির সাথে কাজ করার আগে আমাদের অনেক সমস্যা ছিল৷ আমাদের ফসল থেকে পরিবারের খাওয়াও জুটতো না৷ পোকা মাকড় বিশেষ করে স্টেম বোরার নামে এক পোকার কাছে আমরা ছিলাম অসহায়৷ এটি বিশেষ করে ভুট্টাখেতে আক্রমণ চালাতো৷''

Burundi Landwirtschaft

তরিতরকারির খোসা, গোবর, মাটি, ব্যাকটেরিয়া ইত্যাদি দিয়ে সার তৈরি করা শিখছেন চাষিরা

ইতোমধ্যে কেনিয়ার চাষিরা এই কীটকে কাবু করতে পেরেছে৷ এর ফলে ক্ষেতে ফলনও ভাল হচ্ছে৷ পরিবারের সবাই আবার পেট ভরে খেতে পারছে৷ কৃষকদের কাছে বিষয়টি অত্যন্ত বিস্ময়কর মনে হয়৷ কেননা রাসায়নিক কীট নাশক ছাড়াই পরিবেশবান্ধব এক পদ্ধতিতে কীটগুলিকে নিধন করা গেছে৷ সুইজারল্যান্ডের কৃষি অর্থনীতি বিশেষজ্ঞ হান্স হেরেন কেনিয়ার কৃষিগবেষণা ইন্সটিটিউটের সহাতায় এই পদ্ধতির উদ্ভাবন করেন৷

কৃষি অর্থনীতিতে দিক পরিবর্তন

এই প্রসঙ্গে হান্স হেরেন বলেন, ‘‘এই প্রকল্পটা হলো কৃষি অর্থনীতিতে দিক পরিবর্তনের একটা উদ্যোগ৷ যা একটি কৃষি রিপোর্টের ওপরের ভিত্তি করে গড়ে তোলা হয়েছে৷ ২০০৮ সালে জাতিসংঘের তত্ত্বাবধানে এই রিপোর্ট তৈরি করেছিলাম আমরা৷ ধীরে ধীরে নতুন পদ্ধতি বাস্তবায়নের দিকে যাচ্ছে৷ অর্থাৎ আমাদের কৃষি অর্থনীতিতে নতুন একটা দিক ঠিক করতে হবে৷ আর এই নতুন পথটা হলো, দীর্ঘস্থায়ী কৃষি অর্থনীতি৷''

তিনটি দেশের মধ্যে কেনিয়া অন্যতম, যেখানে এই ধরনের পাইলট প্রকল্প চলছে৷ অন্য দুটি দেশ হলো ইথিওপিয়া ও সেনেগাল৷ আন্তর্জাতিক বিজ্ঞানীরা এই তিনটি দেশে গবেষণা করে দেখছেন, কৃষিকাজে পরিবেশ বান্ধব পদ্ধতি প্রয়োগ করায় কীরকম ফলাফল পাওয়া যায়৷

Burundi Landwirtschaft

কেনিয়ার সরকার চাষাবাদের ক্ষেত্রে পরিবেশ বান্ধব এক কর্মসূচি হাতে নিয়েছে

গতানুগতিক পদ্ধতিতে সমস্যার স্থায়ী সমাধান সম্ভব নয়

জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থা রোমে অবস্থিত এফএও এ ব্যাপারে নিশ্চিত যে, গতানুগতিক কৃষি পদ্ধতিতে আফ্রিকার খাদ্য সমস্যার স্থায়ী সমাধান সম্ভব নয়৷ তবে নতুন পথে যাওয়াটা অত সহজ নয়৷ হান্স হেরেনের ভাষায়, ‘‘প্রথমে আমাদের সমস্ত প্রক্রিয়াটা বুঝতে হবে৷ শুধু উত্পাদন নয়, গোটা ভোজ্যপণ্য সিস্টেমে একটির সঙ্গে আরেকটির সম্পর্ক বুঝতে হবে৷ অর্থাৎ উত্পাদন থেকে শুরু করে ভোক্তার কাছে যাওয়া পর্যন্ত৷ কেনিয়াতে এটা রপ্তানি পণ্যও হতে পারে৷ এই তিনটি দেশের অভিজ্ঞতা থেকে পাওয়া শিক্ষা জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থা ফাও-এর মাধ্যমে অন্যান্য দেশেও পৌঁছে দেওয়া যায়৷ এর ফলে সেসব দেশের মানুষও লাভবান হতে পারে৷

এই প্রকল্প এখনও একেবারে গোড়ার দিকে রয়েছে৷ কেনিয়ার রাজধানী নাইরোবির ওয়ার্কিং গ্রুপে সরকার, খাদ্য শিল্প কারখানা ও কৃষক, সুশীল সমাজ ও মানবাধিকার সংস্থার প্রতিনিধিরা বিষয়টি নিয়ে কাজ করছেন৷

চাষি ফ্রান্সিস ওয়াইথাকা কাবাটি নিশ্চিত যে, এই তত্পরতা বৃথা যাবে না৷ পরিবেশ বান্ধব চাষি হিসাবে তাঁর অভিজ্ঞতা থেকে তিনি এ কথা বলতে পারেন৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন