1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

কৃত্রিম হাত ফিরিয়ে দেবে অনুভূতি

দুর্ঘটনা বা অন্য কারণে অঙ্গহানি মানুষের পক্ষে মেনে নেওয়া অত্যন্ত কঠিন হয়৷ এমনকি হাত না থাকা সত্ত্বেও হাতের ব্যথা অনুভব করেন কেউ কেউ৷ বিজ্ঞানীরা এবার এমন কৃত্রিম হাত তৈরির পথে এগোচ্ছেন, যা অনুভূতি জাগিয়ে তুলতে সক্ষম৷

কৃত্রিম হাতের যে প্রোটোটাইপ তৈরি হয়েছে, তার মধ্যে ইলেকট্রোড বসানো হয়েছে৷ হাতের যে স্নায়ু অবশিষ্ট রয়েছে, তার মধ্যে তিনটির সঙ্গে যুক্ত সেই ইলেকট্রোড৷ কৃত্রিম হাতের ১৬টি জায়গায় রয়েছে বিশেষ সেন্সর৷ সেই হাত দিয়ে ধীরে ধরে কিছু ধরা যায়, গাছ থেকে ফল পাড়া যায়৷ এই রোবট হাত পরে কোনো কিছু ছুঁলে তা কিছুটা অনুভবও করা যায়৷ আসলে হাত কাটা গেলে মস্তিষ্কের যে অংশ সুপ্ত হয়ে পড়ে, সেই অংশকে আবার জাগিয়ে তোলাই গোটা উদ্যোগের মূলমন্ত্র৷

তবে এখনো সেটি পরে স্বাধীনভাবে ঘোরাফেরা করা সম্ভব নয়৷ গবেষণাগারে বিজ্ঞানীদের তত্ত্বাবধানে সেটি পরিয়ে পরীক্ষা চালানো যায়৷ সঙ্গে থাকে বিশেষ একটি যন্ত্র, যার কাজ শরীরের কৃত্রিম ও স্বাভাবিক অংশের মধ্যে ইলেকট্রিক সংকেত চালাচালি করা৷

বিজ্ঞানীরা দুই ব্যক্তির শরীরে এমন কৃত্রিম হাত লাগিয়ে দেখেছেন৷ দু'জনেই কারখানার দুর্ঘটনায় হাত হারিয়েছেন৷ বহুকাল পর হাতের অনুভূতি পেয়ে তাঁরা অভিভূত৷ তাঁদেরই একজন ইগর স্পেটিচ৷ এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, কৃত্রিম হাত দিয়ে কিছু ধরার অনুভূতি প্রায় স্বাভাবিক৷ তবে গবেষকরা যখন সেই হাতে বিভিন্ন অংশ স্পর্শ করেন, তখন কখনো তা তুলোর মতো লাগে, কখনো বা স্যান্ডপেপারের মতো৷ তবে সবচেয়ে বড় কথা হলো, কৃত্রিম হাত পরে দু'জনেরই হাতের ‘ফ্যান্টম পেন' বা ভৌতিক ব্যথা দূর হয়ে গেছে

গবেষণায় এমন সাফল্য সংশ্লিষ্ট বিজ্ঞানীদের মনে আরও উৎসাহ যোগাচ্ছে৷ তবে চূড়ান্ত সাফল্য পেতে আরও অনেক বছরের গবেষণা লাগবে বলে তাঁরা মনে করছেন৷ তাঁদের লক্ষ্য এমন কৃত্রিম হাত তৈরি করা, যা মানুষ সর্বক্ষণ পরে থাকতে পারবে৷ হাতের স্বাভাবিক অনুভূতিও আবার ফিরে আসবে৷ অর্থাৎ মানুষ ভুলেই যাবে যে সে কৃত্রিম হাত পরে আছে৷

এই মুহূর্তে প্রস্থেটিক বা কৃত্রিম হাত নিয়ে অনেক সমস্যা রয়েছে৷ সেই হাতের উপর শরীর বা মস্তিষ্কের নিয়ন্ত্রণ না থাকায় তা সব সময় চোখে চোখে রাখতে হয়৷ অনেক কসরত করে সামান্য কাজ সারতে হয়৷ ফলে অনেকেই সেই হাত ত্যাগ করেন৷

এসবি/ডিজি (এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়