1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

কৃত্রিম আলো স্বাস্থ্যের জন্য ভালো নয়

ধোঁয়া, ধুলা আর আলোর ছটার কারণে রাতের অন্ধকারে শহরের আকাশে গ্রহ-তারা ভালো করে দেখাই যায় না৷ প্রত্যন্ত গ্রামে কিন্তু আকাশের চেহারাই আলাদা৷ মানুষের তৈরি কৃত্রিম আলোর আরও কুপ্রভাব নিয়ে গবেষণা করছেন এক জার্মান বিজ্ঞানী৷

default

রাতের নিউ ইয়র্ক টাইম স্কয়ার

রাতের পৃথিবী – মহাকাশ থেকেও মানুষের তৈরি আলোর বিন্দু স্পষ্ট দেখা যায়৷ দেখতে বেশ সুন্দর হলেও এটা কিন্তু স্বাভাবিক নয়৷ সবচেয়ে আলোকিত অংশগুলি হলো বড় শহরাঞ্চল৷ কৃত্রিম আলো আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ হলেও বাতাস দূষণ একটা বড় বিপদ বয়ে আনে৷

কোলোন শহরের জ্যোতির্বিজ্ঞানী হারাল্ড বার্ডেনহাগেন এই বিষয়টি পরীক্ষা করছেন৷ তিনি বললেন, ‘‘অনেক ক্ষেত্রে রাতের আলোর নানারকম নেতিবাচক প্রভাব রয়েছে৷ একদিকে মানুষের স্বাস্থ্য, অন্যদিকে জীববৈচিত্র্যের ক্ষতি হয়৷ তাছাড়া রাতের কৃত্রিম আলোর ছটা আকাশের গ্রহ-তারাকেও ম্লান করে দেয়৷''

অনেক প্রাণীর উপর এর প্রভাব মারাত্মক৷ পাখিরা দিকনির্ণয় করতে না পেরে আলোকিত বাড়ি-ঘরের সঙ্গে ধাক্কা মারে৷ কচ্ছপরা চাঁদের আলো দেখে সমুদ্রের দিকে এগিয়ে যায়৷ কিন্তু শহরের আলো তাদের মনে বিভ্রান্তি আনে৷ তাই তারা অনেক সময় সমুদ্রের বদলে উলটো দিকে চলতে থাকে৷ ত্বক শুকিয়ে যায়, তাদের মৃত্যু ঘটে৷

তবে শুধু জন্তু-জানোয়ার নয়, মানুষেরও ক্ষতি হয়৷ হারাল্ড বার্ডেনহাগেন বলেন, ‘‘মানুষের স্বাস্থ্যের উপরেও এর প্রভাব পড়ে, কারণ বডি-ক্লক ওলটপালট হয়ে যায়৷ রাতে কৃত্রিম আলোর কারণে স্তন ও প্রস্ট্রেট ক্যানসারের আশঙ্কা অনেক বেড়ে যায়৷''

এই জার্মান বিজ্ঞানী তাই গবেষণার মাধ্যমে এর সমাধান খুঁজছেন৷ হারাল্ড বার্ডেনহাগেন বলেন, ‘‘এটা একটা আদর্শ আলো৷ এখানে বাল্বের নীচটা ফ্ল্যাট৷ শুধু নীচে দিয়েই আলো বেরোয়৷'' ফলে বাল্বের আলো চারিদিকে ছড়িয়ে পড়ে না, পরিবেশে আলোর দূষণ ছড়ায় না৷ আলোর উৎস যত সম্ভব কম রাখলে সবচেয়ে ভালো হয়৷ আর প্রয়োজন না থাকলে বাতি নিভিয়ে রাখাই ভালো৷ গবেষকরা আলোর রং নিয়েও পরীক্ষা করছেন৷ কারণ মানুষের ‘বায়োলজিকাল ক্লক'-এর উপর তার একটা প্রভাব রয়েছে৷

বিশেষ এক যন্ত্রের সাহায্যে আলোর স্পেক্ট্রাম নিখুঁতভাবে নিয়ন্ত্রণ করা যায়৷ রাতে খুব সাদা আলো স্বাস্থ্যের জন্য ভালো নয়৷ এমন আলো শুধু সূর্যই উৎপাদন করে৷ কৃত্রিম আলোয় নীল ও সবুজ অংশ অনেক বেশি, যা রাতে সূর্যের আলোর মতো দেখায়৷ ফলে শরীরের অর্গানিজম ওলটপালট হয়ে যায়৷

হলুদ আলো আসলে হলুদ ও লাল রশ্মি দিয়ে তৈরি৷ অর্থাৎ হলুদ আলো অর্গানিজম-কে বেশি বিভ্রান্ত করে না৷ স্বাস্থ্যের জন্য তা কম ক্ষতিকারক৷ বার্ডেনহাগেন তাই রাতে শুধু হলুদ আলো ব্যবহারের পরামর্শ দেন৷ অথবা বিশেষ এক ধরনের চশমা পরে যে কোনো পরিবেশে আলোর মধ্যে ভারসাম্য আনাও সম্ভব৷ স্লোভেনিয়া ও ইটালির মতো কয়েকটি দেশে আলোর দূষণের বিরুদ্ধে আইনও প্রণয়ন করা হয়েছে৷

জার্মানির প্রকৃতি সংরক্ষণ কর্তৃপক্ষের প্রধান অবশ্য মনে করেন, এটাই সুরক্ষার একমাত্র পথ নয়৷ জার্মান প্রকৃতি সংরক্ষণ কর্তৃপক্ষের বেয়াটে ইয়েসেল বলেন, ‘‘আমার মনে হয়, উপর থেকে আইন চাপিয়ে দিলেই তাতে কাজ হয় না৷ আসলে পৌর ও গ্রাম স্তরে আলোর ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ করতে হবে৷ বাগান, বাড়ি-ঘর সহ আমাদের দৈনন্দিন জীবনের অনেক ক্ষেত্রে প্রত্যেকেই একটু সচেতন হয়ে কিছু পরিবর্তন আনতে পারে৷''

ছোটবেলা থেকেই বার্ডেনহাগেন আকাশের তারা দেখতে ভালোবাসেন৷ কৃত্রিম আলোর ভিড়ে আজকাল আর ভালো করে তারা দেখা যায় না৷ হারাল্ড বার্ডেনহাগেন বলেন, ‘‘একবার ভেবে দেখুন, চার-পাঁচ হাজার বছর আগেও মানুষ যদি ভালো করে রাতের আকাশ দেখতে না পারতো, তাহলে কেউ ভাতেই পারতো না যে ঋতু পরিবর্তন ও তারার গতি-প্রকৃতির মধ্যে কোনো সম্পর্ক রয়েছে৷ আমাদের কোনো ক্যালেন্ডারই থাকতো না৷ ফলে আজ আমাদের উন্নতিও এই পর্যায়ে পৌঁছাতো না৷''

আলোকিত পৃথিবী ভালো দেখায় বটে৷ পৃথিবী ছাড়া আমাদের অস্তিত্বই সম্ভব হতো না৷ তবে তারায় ভরা আকাশের রোমাঞ্চই আলাদা৷ ভবিষ্যতেও তা দেখা যাবে কি না, আলো দূষণ নিয়ন্ত্রণের ক্ষমতার উপর তা নির্ভর করছে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক