1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

কূটনীতিকদের উপস্থিতিতে নতুন মন্ত্রিসভার শপথ

বাংলাদেশে নতুন সরকারের মন্ত্রিসভা যাত্রা শুরু করেছে৷ রবিবার বঙ্গভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ৪৮ জন মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন৷ এর মধ্যে ২৯ জন মন্ত্রী, ১৭ জন প্রতিমন্ত্রী ও ২ জন উপমন্ত্রী৷

default

তৃতীয়বার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

নতুন মন্ত্রিসভার শপথ অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছেন বাংলাদেশে নিযুক্ত বিদেশি কূটনীতিকরাও৷ ছিলেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ৷ তবে বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়াকে শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানানো হলেও তিনি ছিলেন না৷ প্রসঙ্গত বিএনপির নেতৃত্বাধীন ১৮ দলীয় জোট দশম সংসদ নির্বাচন বর্জন করেছে৷ এই সরকার ও মন্ত্রিসভাকে অবৈধ বলেছে বিএনপি৷

রাষ্ট্রপতির আহ্বানে সাড়া

রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের আমন্ত্রণে সাড়া দিয়ে সরকারের নতুন মন্ত্রিসভার শপথ অনুষ্ঠানে যোগ দেন ঢাকায় নিযুক্ত বিদেশি কূটনীতিকরা৷ রবিবার দুপুর আড়াইটার দিকে পুলিশ পাহাড়ায় ক্যানাডিয়ান রাষ্ট্রদূত হিদার ক্রুডেনের বাসা থেকে বঙ্গভবনে যান কূটনীতিকরা৷ এর আগে সকাল সাড়ে ৯টায় ঢাকাস্থ ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) রাষ্ট্রদূত উইলিয়াম হানার বাসায় এক বৈঠকে শপথ অনুষ্ঠানে যোগ দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়৷ ওই বৈঠকটিতে অংশ নেন জার্মানি, ব্রিটেন, নেদারল্যান্ডস, ফ্রান্স, ইতালি, ডেনমার্ক ও স্পেনসহ বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূতরা৷ এছাড়া ভারত, রাশিয়া ও চীনের রাষ্ট্রদূতরাও বঙ্গবভবনে শপথ অনুষ্ঠানে যোগ দেন৷ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত ড্যান ডাব্লিউ মোজিনাও বঙ্গভবনে শপথ অনুষ্ঠানের সময় উপস্থিত ছিলেন৷

Abdul Hamid

বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ (ফাইল ফটো)

তৃতীয়বার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

বঙ্গভবনে বিকেল সাড়ে তিনটায় প্রথমে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন শেখ হাসিনা৷ তাঁর নেতৃত্বে তৃতীয়বারের মতো রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্ব নিল আওয়ামী লীগ৷ নিয়ম অনুযায়ী প্রথমে প্রধানমন্ত্রীকে শপথ পড়ান রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ৷ এরপর পর্যায়ক্রমে মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রীদের শপথ পড়ানো হয়৷ জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও নতুন সংসদের বিরোধী দলীয় নেতা রওশন এরশাদও বঙ্গভবনে ছিলেন

মন্ত্রী হলেন যারা

নতুন মন্ত্রিসভায় ২৯ জনকে পূর্ণমন্ত্রী হিসেবে শপথ পড়ালেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ৷ মন্ত্রীরা হলেন: আবুল মাল আবদুল মুহিত, আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, মতিয়া চৌধুরী, আব্দুল লতিফ সিদ্দিকী, মোহাম্মদ নাসিম, সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, ওবায়দুল কাদের, খন্দকার মোশাররফ হোসেন, রাশেদ খান মেনন, অধ্যক্ষ মতিউর রহমান, সায়েদুল হক, এমাজ উদ্দিন প্রামানিক, হাসানুল হক ইনু, আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, আনোয়ার হোসেন মঞ্জু, নুরুল ইসলাম নাহিদ, শাজাহান খান, আনিসুল হক, মুজিবুল হক, আসাদুজ্জামান নূর, ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী, মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার, শামসুর রহমান শরীফ, কামরুল ইসলাম, আ ক ম মোজাম্মেল হক, অধ্যক্ষ মতিউর রহমান ও মহসিন আলী৷

প্রতিমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েছেন ১৭ জন৷ তারা হলেন: মো. মুজিবুল হক চুন্নু, ইয়াফেস ওসমান, এম এ মান্নান, মির্জা আজম, প্রমোদ মানকিন, বীর বাহাদুর, নারায়ণ চন্দ্র চন্দ, বীরেন শিকদার, আসাদুজ্জামান খান কামাল, সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ, ইসমত আরা সাদেক, মেহের আফরোজ চুমকি, মশিউর রহমান রাঙ্গা, শাহরিয়ার আলম, জাহিদ মালেক স্বপন, নসরুল হামিদ বিপু, জুনায়েদ আহমেদ পলক৷ আর উপমন্ত্রী দুই জন হলেন: আবদুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব ও আরিফ খান জয়৷ নতুন মন্ত্রিসভার ৪২ জন আওয়ামী লীগের৷ বাকি ৬ জনের মধ্যে জাতীয় পার্টির সদস্য তিনজন৷ আর ওয়ার্কার্স পার্টি, জাসদ ও জেপির একজন করে সদস্য রয়েছে৷

অনেকে বাদ

এদিকে, আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকারের মন্ত্রিসভার বেশ কয়েকজন প্রভাবশালী মন্ত্রীর জায়গা হয়নি নতুন মন্ত্রিসভায়৷ আলোচিত-সমালোচিত এসব রাজনীতিবিদের মধ্যে রয়েছেন মহিউদ্দিন খান আলমগীর, ডা. দীপু মনি, হাছান মাহমুদ, দিলীপ বড়ুয়া, আ ফ ম রুহুল হক, আফসারুল আমীন, এনামুল হক মোস্তফা শহীদ, রমেশ চন্দ্র সেন, রাজিউদ্দিন আহমেদ রাজু, সাহারা খাতুন, শফিক আহমেদ, শামসুল হক টুকু, জাহাঙ্গীর কবির নানক, মোতাহার হোসেন ও আব্দুল মান্নান খান৷

উল্লেখ্য, বিএনপির চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়াকে বঙ্গভবনে মন্ত্রীদের শপথ অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল৷ তবে শনিবার জাতীয় পার্টির রওশন এরশাদকে বিরোধীদলীয় নেতা বানিয়ে গেজেট প্রকাশের পর থেকে বিরোধী দলীয় নেতার মর্যাদা হারান খালেদা জিয়া৷ শনিবার রাতে গুলশানের কার্যালয়ে যাওয়ার সময় তাঁর গাড়িতে জাতীয় পতাকা ছিল না৷ ছিল না বিরোধী দলীয় নেতার প্রটোকল৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন