1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

মুক্তিযুদ্ধ

কুমিল্লার সুবিধা বঞ্চিত নারী মুক্তিযোদ্ধা কাজী হেলেন

মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে প্রথমে জিবি হাসপাতাল এবং পরে খেলাঘর হাসপাতালে মুক্তিযোদ্ধাদের চিকিৎসা সেবা দিয়েছেন সাহসী নারী কাজী হেলেন৷ তবে মানব সেবায় একনিষ্ঠভাবে নিয়োজিত থেকেও সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত হয়েছেন তিনি৷

১৯৫৪ সালের ১১ই ফেব্রুয়ারি হবিগঞ্জে জন্ম কাজী হেলেনের৷ পিতা মুক্তিযোদ্ধা কাজী সফর আলী৷ মাতা কাজী আবু জাহান বেবী৷ পিতা ছিলেন ব্রিটিশ শাসনামলের একজন সেনা সদস্য৷ ফলে মুক্তিযুদ্ধের সময় তিনি অনেককে অস্ত্র প্রশিক্ষণ দিয়েছেন৷ তিনি ছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শের সৈনিক৷ ফলে বাবার বীরত্ব ও সাহসিকতার ছোঁয়া মেয়ে হেলেনকেও অনুপ্রাণিত করে মুক্তিযুদ্ধের কাজে যোগ দিতে৷

Bangladesch Monument Jatiyo Smriti Soudho

‘মুক্তিযোদ্ধা হওয়া সত্ত্বেও স্বাধীন দেশে বঞ্চনার শিকার হয়েছেন কাজী হেলেন’

১৯৭১ সালে যুদ্ধ শুরুর সময় নবম শ্রেণির ছাত্রী কাজী হেলেন৷ চা বাগানে মুক্তিযুদ্ধে যেতে আগ্রহী মানুষদের প্রশিক্ষণ দিতেন বাবা সফর আলী৷ তাই পাক সেনারা তাঁদের বাড়ি-ঘর জ্বালিয়ে দেয় এবং তাঁর বাবা, মামা, মামাতো ভাইসহ একসাথে নয়জনকে হত্যা করে৷ অবশ্য এর আগেই হেলেন এবং তাঁর ছোট-ছোট ভাই-বোনেরা বাড়ি থেকে সরে গিয়ে গোপন জায়গায় আশ্রয় নিয়েছিলেন৷ পরে অনেক কষ্ট করে সীমান্ত পাড়ি দিয়ে আগরতলার রাজবাড়িতে যান হেলেন এবং পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা৷

এসময়ের ঘটনা স্মরণ করে হেলেন বলেন, ‘‘দু'দিন অনাহারে পার করতে হয়েছে আমাদেরকে৷ এমনকি ভাত খাওয়ার জন্য একটি থালাও ছিল না৷ পরে দাদু অর্থাৎ আব্বার দূর সম্পর্কের আত্মীয় কর্নেল রউফ আমাদের জন্য সবকিছুর ব্যবস্থা করেন৷ একটা থালা আর একটা গ্লাস কিনে দিয়েছিলেন৷ মাঠের মধ্যে তখন একটু চিড়া আর মুড়ি খেয়ে কাটাতে হয়েছে৷ এছাড়া অনেক সময় পাক সেনাদের গোলা এসে কাছেই পড়েছে৷ তবুও ভাগ্য ভালো বলেই কোন রকমে প্রাণে বেঁচে গেছি৷''

সেখানে কর্নেল রউফ'এর সহায়তায় তিন মাসের প্রাথমিক প্রশিক্ষণ কোর্সে অংশ নেন কাজী হেলেন৷ এরপর তাঁকে জিবি হাসপাতালে চিকিৎসা সেবায় নিয়োজিত করা হয়৷ পরে তাঁকে মেলাঘর হাসপাতালে দায়িত্ব দেওয়া হয়৷ হবিগঞ্জে জন্ম এবং বড় হলেও মুক্তিযুদ্ধে গিয়ে পরিচয় হয়েছিল তৎকালীন কুমিল্লার জেলা প্রশাসকের সাথে৷ ফলে দেশ স্বাধীন হওয়ার পর তিনি কুমিল্লায় এসে আশ্রয় নেন৷ তখন সিভিল সার্জন নূরুন্নবীর কাছে কাজী হেলেনকে হাসপাতালে নিয়োগ দানের জন্য সুপারিশ করেন জেলা প্রশাসক৷ ফলে কুমিল্লা হাসপাতালে তিনি সেবিকার কাজ শুরু করেন৷

Freiheitskämpferin Kazi Helen von Comilla, Bangladesch

হাসপাতালে মুক্তিযোদ্ধাদের চিকিৎসা সেবা দিয়েছেন সাহসী নারী কাজী হেলেন

সেই থেকে কুমিল্লায় চিকিৎসা সেবা দিয়ে যাচ্ছেন মুক্তিযোদ্ধা কাজী হেলেন৷ কিন্তু এতোদিন পর্যন্ত মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে গেজেট-এ তাঁর নাম অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি৷ গেজেট-এ নিজের নাম অন্তর্ভুক্তির প্রতীক্ষায় রয়েছেন তিনি৷ হবিগঞ্জের মেয়ে হওয়ায় কুমিল্লার মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডাররা তাঁর নাম অন্তর্ভুক্তির ক্ষেত্রে বাধা দিয়েছে বলেও উল্লেখ করেন হেলেন৷ কুমিল্লা জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদে গিয়ে জানা গেছে, কাজী হেলেনের নাম মুক্তিযোদ্ধাদের গেজেট-এ অন্তর্ভুক্তির বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে৷

একজন মুক্তিযোদ্ধা হওয়া সত্ত্বেও স্বাধীন দেশে বঞ্চনার শিকার হয়েছেন কাজী হেলেন৷ তাঁর অভিযোগ, সিনিয়র নার্স হিসেবে নিয়োগ থাকা সত্ত্বেও তিনি সিনিয়র স্কেলে বেতন-ভাতা পাননি৷ বিশেষ করে ম্যাট্রন অফিস তাঁকে সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত করেছে বলে ডিডাব্লিউ'এর সাথে সাক্ষাৎকারে জানান কাজী হেলেন৷ তাঁর ভাষায়, ‘‘একদিকে সিনিয়র স্টাফের পোস্টে কাজ করা সত্ত্বেও আমাকে বেতন-ভাতা দেওয়া হয়েছে জুনিয়র স্টাফ হিসেবে৷ এছাড়া আমাকে ২৫ বছর ধরে ডায়রিয়া ওয়ার্ডে দায়িত্ব দিয়ে রাখা হয়েছে এবং শুধু রাত অথবা বিকেলের ডিউটি দেওয়া হতো৷ এভাবে আমার উপর নির্যাতন করা হয়েছে৷ পরে গত ছয় বছর আগে ডেপুটি সিভিল সার্জন নিজে এ ব্যাপারে শক্ত পদক্ষেপ নেন এবং আমাকে ডায়রিয়া ওয়ার্ড থেকে প্রথমে মেডিসিন ও পরে ইসিজি শাখায় নিয়ে আসেন৷''

স্বাধীনতার ৪১ বছরে বাংলাদেশের অর্জন ও প্রাপ্তি সম্পর্কে কাজী হেলেন বলেন, ‘‘দেশের ভেতরে যে রাজাকাররা আছে তারাই দেশের সবচেয়ে ক্ষতি করছে৷ তা না হলে আমাদের এই দেশ খুব শান্তিতে চলতো৷ আমি একজন মুক্তিযোদ্ধা এবং শহিদ মুক্তিযোদ্ধার সন্তান হিসেবে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার ও শাস্তি চাই৷''

প্রতিবেদন: হোসাইন আব্দুল হাই

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও