1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

কুমিররাও চিবিয়ে খেত

কুমিরের খাওয়া, তা তো বড় দাঁত দিয়ে কামড়ে ধরা, এরপর গিলে ফেলা৷ তবে এক সময় জলের এই প্রাণীটি না কি চিবিয়ে খেতে পারতো৷ বিজ্ঞানীদের কথায়, স্তন্যপায়ী প্রাণী হওয়ার দৌড়ে শামিল ছিলো কুমিরও৷ তবে সফল হতে পারেনি৷

Crocodile

দাঁতওলা এই কুমির এককালে চিবিয়ে খেতে পারতো

অগত্যা সরীসৃপ হিসেবেই তাদের বেঁচে থাকতে হচ্ছে...

কুমির নিয়ে সর্বশেষ এই গবেষণার ফলাফল প্রকাশ হলো গত বুধবার৷ তা প্রকাশ করলেন যুক্তরাষ্ট্রের ওহাইয়ো ইউনিভার্সিটির গবেষকরা৷ কুমিররাও বিবর্তনের একটা পর্যায়ে চিবিয়ে খেতে পারতো - এই সিদ্ধান্তে আসতে তাদের পথ দেখিয়েছে তানজানিয়ায় পাওয়া একটি জীবাশ্ম৷ আফ্রিকার দেশটিতে ২০০৮ সালে পাওয়া যায় কুমিরের গোত্রের ওই প্রাণীর জীবাশ্ম৷ এনিয়ে টানা দুই বছর ধরে চলে নিবিড় গবেষণা৷ এরপরই সিদ্ধান্ত টানলেন গবেষকরা৷

প্রাণীটি দেখতে কুমিরের মতো হলেও আকারে ছিলো অনেক ছোট৷ ১০ থেকে ১৫ কোটি বছর আগে আফ্রিকায় ছিলো এই প্রাণীর বাস৷ বিজ্ঞানীরা এর নাম দিয়েছেন ‘পাকাসুশাস কালিলিমাই'৷ সোয়াহিলি ভাষায় ‘পাকা' মানে হলো বিড়াল৷ লম্বায় বড় ধরনের বিড়ালের মতো হওয়ায় এর এই নাম৷ কাপিলিমাই শব্দটি এসেছে তানজানিয়ার প্রখ্যাত জীবাশ্মবিদ সাইদি কালিলিমাই-এর নাম থেকে৷

Crocodile

আজকের কুমিরও কম ভয়ঙ্কর নয়

গবেষক দলের প্রধান প্যাট্রিক ও কনর বললেন, ‘‘এর মাথাটি মানুষের হাতের তালুতেই এঁটে যাবে৷ প্রায় সব কিছু কুমিরের মতো হলেও এর দাঁতের দিকে যদি দৃষ্টি কেন্দ্রীভূত করা যায়, তখন এটাকে আর কুমির বলে মনে হবে না৷ মনে হবে, ম্যামাল, মানে কোনো স্তন্যপায়ী প্রাণী৷ খাবার চিবিয়ে খাওয়ার জন্য চর্বন দাঁতও এর ছিল৷''

গবেষক দলের অন্যতম সদস্য ন্যান্সি স্টিভেন্স বললেন, এখনকার কুমিরের কর্তন দাঁত ছাড়া আর কিছু নেই৷ অর্থাৎ একটি বিষয়ে এই পূর্ব পুরুষের সঙ্গে গুরুত্বপূর্ণ অমিল রয়েছে কুমিরের৷ শুধু তাই নয়, এই প্রাণীটির মেরুদণ্ডও ছিলো নমনীয়, যা স্তন্যপায়ীদের বেলায় দেখা যায়৷ যার মানে হলো, স্তন্যপায়ী প্রাণী হওয়ার কাছাকাছি চলে গিয়েছিলো এই জীবটি৷ কিন্তু কোনো কারণে তারা বিলুপ্ত হয়ে যায়৷ বিজ্ঞানীদের ধারণা, ‘পাকাসুশাস কালিলিমাই' জলে নয়, জীবনের বেশি অংশই কাটাতো স্থলে৷ আর এর আহার ছিলো কীটপতঙ্গ আর ক্ষুদে জীব৷

প্রতিবেদন: মনিরুল ইসলাম
সম্পাদনা: আব্দুল্লাহ আল ফারূক

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়