1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

কুকুরশিল্প

কুকুর শুধু প্রভুভক্তই নয়, মাঝেমধ্যে সে তার মানুষ প্রভুকে শিল্পের প্রেরণাও জুগিয়ে থাকে৷ কেউ হয়ত কুকুরের পোর্ট্রেট আঁকেন৷ কেউ আবার কুকুরকে সুট-টাই পরিয়ে ফ্যাশন মডেল করে তোলেন...৷

কুকুরের প্রদর্শনী নয়, কুকুর নিয়ে প্রদর্শনী৷ বার্লিনের কুপফারস্টিশকাবিনেট সংগ্রহশালার পরিচালক হাইনরিশ শুলৎসে আল্টকাপেনব্যার্গ চিত্রকলায় কুকুরদের ভূমিকা নিয়ে রীতিমতো গবেষণা করেছেন: শেফার্ড ডগ থেকে শুরু করে মহিলাদের ভ্যানিটি ব্যাগের সাইজের পুডল বা চিহুয়াহুয়া, শ্লেজ টানা কুকুর থেকে শুরু করে বাড়ির ভুলো কুকুর৷ শুলৎসে বলেন, ‘‘শিল্পী আর কুকুরদের মধ্যে সত্যিই একটা বিশেষ সম্পর্ক গড়ে উঠেছে৷ আগে শিল্পীরা অনেক জায়গায় ঘুরে বেড়াতেন; প্রকৃতির কোলে একা ঘুরে বেড়ানোর সময় সঙ্গে থাকত কুকুর৷ স্টুডিওতেও কুকুর একপাশে শুয়ে-বসে থাকত৷ কিছুটা মনোরঞ্জনের জন্য, আবার খেলার সাথী হিসেবেও বটে৷''

আজও বহু শিল্পীকে প্রেরণা যোগায় কুকুর৷ ব্রিটিশ শিল্পী মার্টিন আসবর্ন তাঁর খুদে স্নাউৎসার কুকুরটির কল্যাণে কুকুরদের ছবি তোলার আইডিয়া পান৷ তাঁর সবচেয়ে নামকরা আলোকচিত্র পর্যায় হলো ‘গাড়িতে মালিকের অপেক্ষায় কুকুর'৷ দেখলে মনে হবে যেন তাদের মন খারাপ, না জানি কতো দুঃখ৷ অথচ প্রভুর প্রতি অচল বিশ্বাস৷ বার্লিনের চিত্রশিল্পী বার্বারা ভ্রেডে-ও অপেক্ষমান কুকুরদের ছবি তোলেন৷ ১৯৯৪ সাল থেকে তিনি এই সব কুকুরদের ছবি তুলছেন: দোকান কিংবা লনড্রেটের সামনে প্রভুর অপেক্ষায় বিশ্বস্ত কুকুর৷

পোজ করা ছবি নয়, স্ন্যাপশট৷ ছবি তোলা থেকেই কুকুরদের সঙ্গে একটি দীর্ঘকালের সম্পর্কে গড়ে উঠেছে৷ ‘রাস্তার কুকুরদের ক্লাব' নাম দিয়ে বিভিন্ন পত্রপত্রিকার জন্য কার্টুন এঁকে থাকেন বার্বারা ভ্রেডে৷ সামান্য কয়েকটি রেখা টেনে একটি কুকুরের চরিত্র ফুটিয়ে তুলতে পারেন৷ বার্বারা বলেন, ‘‘আমার পক্ষে শিল্পী হিসেবে বড় চ্যালেঞ্জ হলো একটি কুকুরকে তার গোটা চরিত্র সহ ফুটিয়ে তোলা৷ আমার কুকুরের ছবিগুলো এমন, যেন আমি মানুষের পোর্ট্রেট আঁকছি৷ যেমন একটি ভালো জাতের কুকুরকে আমি আঁকব কোনো সম্ভ্রান্ত মানুষের মতো বসে থাকা অবস্থায়৷''

বোধি নামের কুকুরটিও পোজ দিয়ে বসে থাকতে পারে৷ এটি শিবা ইনু জাতের একটি জাপানি কুকুর, বাস নিউ ইয়র্কে৷ ফ্যাশনের জগতে যে সব কুকুরেরা নাম করেছে, তাদের মধ্যে বোধি একেবারে প্রথম সারির! ‘মেনসওয়্যার ডগ' ব্লগটিতে পুরুষদের ফ্যাশন পরিবেশন করে থাকে বোধি৷ পোশাক-আশাক বাছেন তার প্রভু৷ তাতে প্রভুর রোজগার হয় মাসে পনেরো হাজার ডলারের ওপর৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক