1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

কী করলে আমরা ভালো বোধ করি?

সুখ বোধ করার বিষয়টি আসলে নির্ভর করে পরিবার, সামাজিক কর্মকাণ্ড, ধর্ম, এবং নিজের কাজের ধরণের ওপর৷ সম্প্রতি সুখ নিয়ে চালানো এক সমীক্ষায় তাই দেখা গেছে৷

default

কাভি খুশি, কাভি গাম ছবির একটি দৃশ্য

অনেকেই ভাবেন যে, বংশগতি বা জিনের ওপরই নির্ভর করে মানুষের সুখ বোধের ব্যাপারটি৷ আসলে কিন্তু তা নয়৷ জার্মানিতে দীর্ঘদিন ধরে চালানো এক সমীক্ষায় দেখা গেছে, নিজেদের ব্যক্তিগত পছন্দ অনুযায়ী কাজ করার ওপরেই সুখ বোধ করার বেশিরভাগটা নির্ভর করে৷ বার্লিনে জার্মান সোশিয়ো-ইকোনমিক প্যানেল সার্ভে বা এসওইপি-র ডাটা নিয়ে, আন্তর্জাতিক গবেষকরা একটি বিশ্লেষণ পরিচালনা করেছেন৷ এসওইপি, ২৫ বছরের ঊর্ধ্বে ৬০ হাজার জার্মান তরুণের ওপরে সমীক্ষা চালিয়েছে৷ গবেষকরা সেখানে দেখেছেন, অর্থের চেয়ে অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ মানুষের লক্ষ্যগুলো৷ তাঁরা দেখেছেন, সুখ বোধ করার বিষয়টি আসলে নির্ভর করে পরিবার, সামাজিক কর্মকাণ্ড, ধর্ম, এবং নিজের কাজের ধরণের ওপরে৷ তাঁদের এই সমীক্ষার ফলাফল সম্প্রতি ‘প্রোসিডিংস অফ দ্য ন্যাশনাল অ্যাকাডেমি অফ সায়েন্স' জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে৷

মনস্তত্ত্ববিদরা কয়েক দশক ধরেই খুঁজে করার চেষ্টা করছেন মানুষের সুখ বোধ করার কারণ৷ ১৯৭০ এর দশকে অনেক গবেষকই ভাবতেন, প্রত্যেকেরই সুখ বোধ করার একটি মাত্রা আছে

Smiley - Smile face button Emoticon

এবং জীবনের উত্থান-পতন সত্ত্বেও, মানুষ সবসময়ে সেখানেই ফিরে আসে৷ এটাকে বলা হয়, ‘সেট পয়েন্ট থিওরি'৷ আগে ভাবা হত যে এই বিষয়গুলোই বংশগতি এবং এবং শৈশবের অভিজ্ঞতার ওপরে নির্ভর করে৷

বার্লিনে জার্মান ইন্সটিটিউট অফ ইকোনমিক রিসার্চ-এর একজন অর্থনীতিবিদ গ্যার্ট ভাগনার৷ তিনি মাক্স প্লাঙ্ক ইন্সটিটিউট ফর হিউম্যান ডেভেলপমেন্টের একজন ফেলো এবং এই সমীক্ষার একজন লেখকও৷ তিনি বলেন, ‘সেট পয়েন্ট থিওরি'-টা আসলে শতকরা ৫০ ভাগ জনসংখ্যার ক্ষেত্রে খাটে৷ তবে সময়ের সাথে সাথে জীবন পরিবর্তিত হচ্ছে বলে যারা ভাবেন তাদের জন্যে এই থিওরি সঠিক না৷

গ্যার্ট ভাগনার বলেন, ‘‘পরিবর্তনের এক তৃতীয়াংশ নেতিবাচক৷ যেমন কেউ কেউ তার জীবনসঙ্গীর অসুস্থতা অথবা মৃত্যু কামনা করে৷ বাকিদের মধ্যে দুই তৃতীয়াংশ ইতিবাচক পরিবর্তন চায়, তবে তাদের সংখ্যা নগণ্য৷''

ভাগনার বলেন, ফলাফলে দেখা গেছে, সংকটপূর্ণ জীবনের চেয়ে অসুখী থাকাটা সহজ বলে অনেকে মনে করেন এবং সঠিক পছন্দের মাধ্যমে জীবনের আশা আকাঙ্ক্ষার উন্নয়ন ঘটানো আরো কঠিন বলেই মানুষ মনে করে৷ আর এই বিষয়টিই গবেষকদের আন্দোলিত করেছে সবচেয়ে বেশি৷ ভাগনার বলেন, ‘‘আমাদের সমীক্ষার যে বিষয়টি নতুন সেটি হচ্ছে, আপনার পছন্দের দিকে আমরা নজর দিচ্ছি৷ আর হাতে কলমে আমরা যেটা দেখেছি, তা হচ্ছে, পছন্দই পার্থক্য তৈরি করছে৷''

Frau mit Kopfhörern in einer virtuellen Welt

তার মানে হচ্ছে, মানুষ নিজেদের জীবনে যে বিষয়গুলোকে প্রাধান্য দেয় সুখের চাবিকাঠি সেটিই৷ এবং ফলাফল দেখে কারোরই অবাক হবার কিছু নেই৷ ভাগনার আরো বলেন, ‘‘জীবনে জিনিসপত্র অর্জনের লক্ষ্যের চেয়ে সামাজিক লক্ষ্য অর্জন অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ৷ এবং সুস্থ থাকা এবং সুস্থ থাকতে চাওয়ার ব্যাপারটি খুব ভালো৷ অল্প বিস্তর খেলাধুলা অর্থাৎ দৌড়ানো ও শরীর চর্চা করাটাও আপনার জন্যে ভালো৷''

এগুলো খুব যুক্তিযুক্ত শোনায়৷ কিন্তু সুখী হওয়াটা কি এতো সহজ? এক অর্থে হ্যাঁ৷ প্রতিদিন আমরা আমাদেরকে সুখী করা জন্যেই সব কিছু করি৷ এবং বার্লিনের পথের লোকজনও অধ্যাপক ভাগনারের এই বিশ্লেষণের সাথে একমত৷ একজন বললেন, ‘‘আমি প্রচুর স্পোর্টস করি এবং যারা আমাকে আনন্দ দেয় এবং সুখী করতে চাই আমি তাদের চারপাশেই থাকি৷''

আরেকজন বললেন, ‘‘সংগীত আমি ভীষণ পছন্দ করি৷ আমি নিজে গান করি, এমনকি নিজের মেয়ের সঙ্গেও অনেক সময় কাটাই আমি গান করে৷ আমরা একসাথে বাইরে বেড়াতে যাই, প্রকৃতির কাছে যাই এবং গান গাই৷’’

সম্পর্ক একটি খুব গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার৷ তবে ভাগনার এবং তাঁর সহকর্মীদের মতে, মানসিকভাবে অসুস্থ সঙ্গী পছন্দ করলে, যে কেউ জীবনে নিশ্চিতভাবে অসুখী হবেন৷ কিন্তু সুস্থ সম্পর্ক সবসময়েই সহজ৷ তবে অন্য কথায়, সুখী হবার ব্যাপারটি একটি কঠিন প্রক্রিয়া৷ কেননা, সুখী হবার ক্ষেত্রে অনেক ব্যক্তি, প্রকৃতি এবং পরিবেশও মানুষকে প্রভাবিত করে৷ কিন্তু শেষ কথাটি হচ্ছে, আপনি কেমন বোধ করবেন, তার অনেকটাই নির্ভর করে আপনার ওপরে৷

প্রতিবেদন: ফাহমিদা সুলতানা

সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন