1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

পাঠক ভাবনা

‘কিছু পথভ্রষ্ট হিন্দু গরুর মাংস খান...'

ভারতের ‘দ্য ন্যাশনাল স্যাম্পল সার্ভে অফিস'-এর এক জরিপ বলছে, সে দেশের সোয়া এক কোটি হিন্দু গরু ও  মহিষের মাংস খান৷ ডিডাব্লিউ-এর পাতা থেকে এ তথ্য জেনে ওপরের মন্তব্যটি করেছেন এক পাঠক৷ উঠে এসেছে মিশ্র প্রতিক্রিয়াও৷

‘হিন্দু ধর্মে গরুর মাংস খাওয়া নিষেধ নয়, তবে গরুকে দেবতার সন্মান দিয়ে তারা তা খান না৷' ডয়চে ভেলের পাঠক তৌফিকুল ইসলাম লিখেছেন এ কথা৷ তিনি এ কথাও বোঝাতে চেয়েছেন, মাংস খাওয়া মানুষের ব্যক্তিগত ব্যাপার৷ এ সম্পর্কে অন্যদের মাথা না ঘামানোই ভালো৷ তবে ভারত নিয়ে এ তথ্যটি ডয়চে ভেলের ফেসবুক পাতায় প্রকাশ করায় তিনি ডয়চে ভেলের ওপর বেশ অসন্তুষ্টও হয়েছে৷

পাঠক সিবলি জাহিরও তৌফিকুল ইসলামের মন্তব্যকে সমর্থন করেছেন৷

তবে বিষ্ণু বালার প্রশ্ন, ‘‘কোথায় লেখা আছে যে হিন্দুদের গরু খাওয়া নিষেধ?''

রাহুল চক্রবর্তী বিষয়টির তীব্র প্রতিবাদ করেছেন৷ তাঁর কথায়, ‘‘কিছু পথভ্রষ্ট হিন্দু গরুর মাংস খান...আমি তাদের হিন্দু মানতে রাজি নই...৷''

পাঠক সাইদুল হকের মন্তব্য: ‘‘হিন্দুদের গরুর মাংস খাওয়া ঠিক নয়, এ কথা কোনো ধর্মীয় গ্রন্থে লেখা নেই৷ এটা কিছু উগ্র হিন্দুর মনগড়া মতবাদ এবং গরু খাওয়ার অপরাধে মানুষ হত্যার বৈধতা দেওয়া৷''

হাসান কবির লিখেছেন, ‘‘হিন্দুরা গরু খেলে দোষের কেন? গরু যদি দেবতা হয়, তবে তো মাছ বা ‘মৎস দেবতা', শূকর বা ‘বরাহ দেবতা', কচ্ছপ বা ‘কূর্ম দেবতা'-ও রয়েছে৷ তাহলে এ সমস্ত খাওয়াও নিষিদ্ধ করা উচিত সারা ভারতে৷ কারণ এ সব প্রাণীরা তো সাক্ষাৎ ‘বিষ্ণু ভগবান'৷

অন্যদিকে হাসান কবির এবং রাহুল চক্রবর্তী একমত হয়ে লিখেছেন, ‘‘প্রণাম নেবেন৷ আমরা সম্মিলিতভাবে এই লেখাটা লিখছি কোনো ধর্মকে উদ্দেশ্য করে নয়, লিখছি জানানোর জন্য, শেখার জন্য, বোঝার জন্য যে, সব ধর্মেরই একটা মহত্ত্বপূর্ণ মর্যাদা আছে৷'' লেখা শেষে দু'জনই আমাদের দুর্গাপূজার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন৷

ওদিকে আমাদের পুরনো বন্ধু ডা. এসএম হান্নান লিখেছেন, ‘‘গরুর মাংসে যৌন শক্তি বাড়ে৷''

কৃষ্ণভক্ত মানিক রায় ডয়চে ভেলেকে কটাক্ষ করে লিখেছেন, ‘‘মিথ্যা সংবাদ দিয়ে কেন হিন্দু ধর্মে আঘাত দেয়ার চেষ্টা করছেন, কোনো প্রমাণ ছাড়া কেন এ ধরনের সংবাদ?''

এ কথা পড়ে মনে হয়, ডয়চে ভেলে প্রকাশিত ছবিঘরটি ভালোভাবে পড়েননি পাঠক কৃষ্ণ ভক্ত মানিক রায়৷ কারণ ডয়চে ভেলের থেকে প্রকাশিত তথ্যটি ছিল হুবহু এ রকম – ‘‘হিন্দু প্রধান দেশ ভারতে ধর্মীয় কারণেই গরুর মাংস কম খাওয়া হয়৷ তবে মহিষের মাংস খান অনেকেই৷ গরু এবং মহিষের মোট ভোক্তা প্রায় ৮ কোটি৷ ভারতের ‘দ্য ন্যাশনাল স্যাম্পল সার্ভে অফিস'-এর করা এক জরিপের ফলাফল থেকে পাওয়া যে সে দেশের সোয়া এক কোটি হিন্দু গরু ও  মহিষের মাংস খান৷''

পাঠক আনোয়ার হোসেন অবশ্য এই পরিসংখ্যানটা বিশ্বাস করেননি৷ তাঁর ধারণা, ‘‘এই সংখ্যাটি প্রকাশ্য, তাহলে গোপন পরিসংখ্যানটা কেমন?''

আহসান হাবীব জানিয়েছেন, ‘‘আমার প্রায় ১৫-১৬ জন হিন্দু বন্ধু আছে৷ তাঁদের অধিকাংশই গরুর মাংস খায়৷''

পাঠক মাসুদও একই কথা লিখেছেন৷ আর তাঁর সাথে একমত মেহেদি হাসান, লিহাট হাতেম'সহ অনেকেই৷

সংকলন: নুরুননাহার সাত্তার

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

 

নির্বাচিত প্রতিবেদন