1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

কালো টাকা সাদা করার বিরুদ্ধে টিআইবি

ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ বাজেটে কালো টাকা সাদা করার বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে৷ টিআইবি-র নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেছেন, এভাবে বার বার কালো টাকা সাদা করার সুযোগ দেয়া হলে দুর্নীতি উত্‍সাহিত হবে৷

স্বাধীনতার পর থেকে এ পর্যন্ত ১৭ বার কালো টাকা সাদা করার সুযোগ দেয়া হয়েছে৷ কিন্তু তাতে কাজের কাজ কিছুই হয়নি৷ বিভিন্ন সময়ের সরকার আশা করেছিল কালো টাকা কর দিয়ে সাদা করার সুযোগ দেয়া হলে রাজস্ব আদায় বাড়বে৷ এবং সেই টাকা দেশের বিনিয়োগে কাজে লাগবে৷ কিন্তু সে উদ্দেশ্য পূরণ হয়নি বলে ডয়চে ভেকে জানান টিআইবি-র নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান৷

তিনি বলেন, অর্থমমন্ত্রী নিজেই বলেছেন দেশের অর্থনীতির ৭০ ভাগ কালো টাকা৷ কিন্তু এ পর্যন্ত কত কালো টাকা সাদা হয়েছে তা কখনোই প্রকাশ করা হয়নি৷ জানা যায়নি কালো টাকার কত অংশ দেশে বিনিয়োগ হয়েছে৷ তাঁর মতে, কালো টাকা সাদা করার সুযোগ নেয় অসত্‍ লোকজন৷ এতে দুর্নীতিবাজ এবং অসত্‍ লোকজন উত্‍সাহিত হয়, পায় দুর্নীতি প্রাতিষ্ঠানিক রূপ৷ সংবিধানের ২০ (২) অনুচ্ছেদ, কালো টাকা বা অনুপার্জিত আয় ভোগ করতে দেয়ার বিরুদ্ধে৷ সরকার কালো টাকা সাদা করার সুযোগ দিয়ে স্পষ্টই সংবিধান লংঘন করছে৷ এর ফলে মানুষ অসত্‍ উপায়ে উপার্জন করে তার একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ দিয়ে রেহাই পেয়ে যাচ্ছে, যা ন্যায় বিরোধী৷

ড. ইফতেখার বলেন, সত্‍ উপায়ে উপার্জন করে মানুষকে বেশি কর দিতে হচ্ছে৷ আর অসত্‍ উপায়ে উপার্জন করে তা নাম মাত্র কর দিয়ে বৈধ করা হচ্ছে৷ এটা রাষ্ট্রে এবং সমাজে বৈষম্য সৃষ্টি করছে, যা সুশাসন বিরোধী৷

তিনি বলেন, এবার হাউজিং এবং আবাসন খাতে কালো টাকা সাদা করার সুযোগ দেয়ার কথা বলা হচ্ছে৷ যার ফল হবে আরো ভয়াবহ৷ কারণ এই খাতে এমনিতেই কালো টাকা এবং অসত্‍ লোকদের দাপট৷ এর ওপর যদি প্রাতিষ্ঠানিকভাকে এই খাতে কালো টাকাকে সুযোগ দেয়া হয়, তাহলে সত্‍ মানুষ এবং যাঁদের কালো টাকা নেই তাঁরা ভিড়তে পারবেন না৷ সাধারণ মানুষের জন্য আবাসন ব্যবস্থা আরো কঠিন হয়ে পড়বে৷

বর্তমান সরকার তার নির্বাচনী ইশতেহারে দুর্নীতি দূর এবং কালো টাকা সাদা করার সুযোগ না দেয়ার কথা বলেছিল৷ কিন্তু এখন তারা তাদের নির্বাচনী প্রশ্রিুতি ভঙ্গ করছে বলে জানান ড. ইফতেখার৷ সরকারের এই আচরণে রাষ্ট্রীয় কাঠামোতে দুর্নীতি স্থায়ীভাবে জায়গা করে নিচ্ছে, যা উদ্বেগজনক এবং হতাশাব্যঞ্জক৷

তাঁর মতে, কালো টাকা আর করযোগ্য আয়কে গুলিয়ে ফেলা হচ্ছে৷ বৈধ আয়ের কর দেয়া না হলে, সেই আয়ের কর দেয়ার সুযোগ দেয়া যেতে পারে৷ কিন্তু অবৈধ আয়, কর দেয়ার মাধ্যমে বৈধ করার নীতি কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়৷ বরং সেই অবৈধ আয় চিহ্নিত করে বাজেয়াপ্ত করে সরকারি কোষগারে নেয়া উচিত৷ অন্যদিকে, অবৈধ আয়ের জন্য সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানকে শাস্তির আওতায় আনা প্রয়োজন৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়