1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

খেলাধুলা

কালবৈশাখি ঝড়ে উড়ে গেল বাংলাদেশ

ব্যাট হাতে কালবৈশাখি ঝড় শুরু করেছিল পাকিস্তান৷ সেই ঝড়ে ২০ ওভারে তাদের সংগ্রহ দাঁড়ায় ২০১ রান৷ জবাবে ৬ উইকেটে বাংলাদেশের সংগ্রহ ১৪৬৷ বলছি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের কথা৷

কলকাতার ইডেন গার্ডেনে বহু বছর পর খেলতে নামে বাংলাদেশ৷ হয়ত আশা ছিল, বাঙালি সমর্থকদের জোর সমর্থন মিলবে সেখানে৷ তবে ক্রিকেট মাঠে ভারতের সঙ্গে বৈরিতা যে সমর্থকদের মাঝেও ছড়াচ্ছে তা বোঝা গেল পাকিস্তান দলের প্রতি সমর্থন দেখে৷ গ্যালারির দর্শকদের এক বড় অংশ পাকিস্তান দলের আনন্দেই শরিক হয়েছে বেশি৷ কেউ কেউ তো ফেসবুকে লিখেই দিলেন, মনে হচ্ছে পাকিস্তানের কোনো মাঠে খেলা হচ্ছে৷

দর্শকদের আনন্দিত না হয়ে উপায়ই বা কি? বাংলাদেশি বোলারদের যে তুলাধুনা করেছেন আফ্রিদিরা৷ চারটি চার আর চারটি ছয় হাকিয়ে ১৯ বলে ৪৯ করেছেন শহিদ আফ্রিদি৷ তবে দলের জয়ের ভিত্তিটা গড়ে দিয়েছেন আহমেদ শাহজাদ আর মোহাম্মদ হাফিজ৷ ওপেনার শাহজাদের সংগ্রহ ৩৯ বল খরচায় ৫২৷ অন্যদিকে, হাফিজ করেছেন ৬৪৷

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে মুখোমুখি পাকিস্তান ও বাংলাদেশ ক্রিকেট দল

জেতার পর পাকিস্তান দলের উল্লাস

বাংলাদেশের কোনো বোলারই তেমন একটা চমক দেখাতে পারেননি৷ প্রথম ইনিংসে সেদলের চমক বলতে ছিল সৌম্য সরকারের ধরা হাফিজের ক্যাচটি৷ সীমান্তে দাঁড়িয়ে অসাধারণ নৈপুণ্যে সেটি তালুবন্দি করেন সৌম্য৷ তাসকিন আহমেদ এবং আরফাত সানি দু'টি করে উইকেট নিলেও কোনো বোলারই রান কম দেননি৷

পাহাড় সমান টার্গেট নিয়ে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই হোচট খায় বাংলাদেশ৷ প্রথম ওভারের তৃতীয় বলে সৌম্য সরকারকে বোল্ড করেন মোহাম্মদ আমির৷ এরপর নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারিয়ে বাংলাদেশ ৬ উইকেটে ১৪৬ রান তুলতে সক্ষম হয়৷ ফলে পাকিস্তান ৫৫ রানের জয় পায়৷ ও হ্যাঁ, এই ম্যাচে বাংলাদেশের প্রাপ্তি হচ্ছে সাকিব আল হাসানের অর্ধশতক৷ পাঁচটি চার আর একটি ছয়ের সহায়তায় সে রান তোলেন তিনি, খেলেছেন ৪০ বল৷

বাংলাদেশের পরবর্তী ম্যাচ অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে, আগামী সোমবার৷ ব্যাঙ্গালুরুর সে ম্যাচে মুস্তাফিজুর রহমান দলে থাকলে বদলে যেতে পারে বাংলাদেশ৷ অন্তত মাশরাফির আশা তেমনটাই৷

এআই/ডিজি (এপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়