1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

কাম্বোডিয়ায় সারস পাখি সংরক্ষণ

কাম্বোডিয়ার শেষ সারস পাখিদের বাঁচাতে গেলে আগে বার্ড স্যাংকচুয়ারির আশপাশের চাষিদের শেখাতে হবে, তারা যেন মোষ চরিয়ে ঘাস কাটে; এছাড়া কীটনাশক বা সারের ব্যবহারও কমাতে হবে৷

ভিডিও দেখুন 05:22

কাম্বোডিয়ার শেষ সারস পাখি

কাম্বোডিয়ার এক বার্ড স্যাংকচুয়ারি৷ হউর পক একটি প্রকৃতি সুরক্ষা সংগঠনের হয়ে কাজ করেন৷ মাঝে মাঝেই তিনি এই ছোট্ট, দূরের গ্রামটিতে আসেন৷ এখানকার মুক্ত প্রান্তর সারস পাখিদের পক্ষে আদর্শ৷ কাজেই এখানে এই প্রকল্পটি চালু করা হয়েছে৷

অনেক জায়গাতে ঘাস এখনও খুব উঁচু৷ প্রকল্পটা হলো: এই ঘাস না কেটে, মোষ চরিয়ে সেই ঘাস ছেঁটে ফেলা৷ চাষিরা প্রকৃতি সুরক্ষা সংগঠনের কাছ থেকে সাতটি মোষ পেয়েছেন৷ এর মধ্যে তিনটি মোষের বাচ্চাও জন্ম নিয়েছে৷ মোষরা যেন পালিয়ে না যায়, সেজন্য ইলেকট্রিকের বেড়া লাগানো হয়েছে৷

ওয়াইল্ডফাউল অ্যান্ড ওয়েটল্যান্ডস ট্রাস্ট-এর কর্মী হউর পক জানালেন, ‘‘আমরা এখানে মোষগুলোকে চরতে দিই৷ ওরা উঁচু ঘাস খায় বা মাড়িয়ে ফেলে – যা আবার সারস পাখিদের পক্ষে খুব ভালো, কেননা তাদের চাই নীচু ঘাস৷ সারস পাখিরা কন্দ, পোকামাকড়, ছোটখাটো জীবজন্তু খেতে ভালোবাসে৷ কাজেই মোষেরা সারসপাখিদের খাবার খোঁজার জায়গা বাড়িয়ে দেয়৷’’



চাষিদেরও তা-তে লাভ আছে৷ অন্য কোনোভাবে এই প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলে প্রকৃতি সংরক্ষণের ধারণা ছড়ানো সম্ভব নয়৷ কেননা মানুষজনের রোজগারের পথ এখানে খুব বেশি নেই৷ সবাই মোটামুটি গরিব৷

ধানচাষি

কয়েক কিলোমিটার দূরে আরেকটি গ্রাম৷ এখানে বিশেষ করে ধানচাষিদের বাস৷ ধানচাষিদেরও শিখতে হবে, এমনভাবে চাষ করতে, যাতে প্রাকৃতিক পরিবেশের ক্ষতি না হয়; যাতে কীটনাশকের বিষ বার্ড স্যাংকচুয়ারিতে না গিয়ে পড়ে৷ মজার কথা: তা থেকে চাষিদের লাভই হয়, সাশ্রয় হয়! ধানচাষি কর্ন তং বলেন, ‘‘সত্যিই একটা বিরাট তফাৎ৷ ফসল আগের মতোই হচ্ছে, কিন্তু আমরা আরো কম রাসায়নিক সার ব্যবহার করতে, আরো কম কীটনাশক, আরো কম বীজধান ব্যবহার করতে শিখেছি৷ আগে প্রতি হেক্টারে তিনশ কিলো বীজধান লাগত; আজ লাগে তার অর্ধেক৷ এছাড়া আমরা নিজেরাই সেই বীজধান উৎপাদন করতে পারি৷ আগে আমাদের বীজধান কিনতে হতো; আজ আর কিনতে হয় না৷’’

‘‘শেষে তোমরা সবাই লাখপতি হবে’’, বলছেন ট্রেনার৷ সবার অবশ্য তা ঠিক বিশ্বাস হয় না৷ গোটা এলাকা জুড়ে মানুষজনকে প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে৷

দিচ্ছে স্থানীয় এনজিও-রা, যাদের অনেকেই জার্মান আন্তর্জাতিক জলবায়ু সুরক্ষা উদ্যোগের কাছ থেকে সাহায্য পেয়ে থাকে৷ জলবায়ু পরিবর্তন আর অস্বীকার করার উপায় নেই৷ বর্ষাকাল আসছে দেরিতে৷ অথবা হঠাৎ বৃষ্টিতে দেশ ভেসে যাচ্ছে৷ কাজেই চাষিরা আরো জোরদার চাষ করতে শুরু করেছিলেন: আরো বেশি কীটনাশক, আরো বেশি রাসায়নিক সার৷ কিন্তু এখন চাষিরা শিখছেন: পোকামাকড় দেখলেই বিষ স্প্রে করে তার দফারফা করার কোনো প্রয়োজন নেই – দেশের অনেক জায়গায় যা আজও করা হচ্ছে৷ ধানচাষি নিয়েৎ তিদা বলেন, ‘‘গতবছর ধানের ক্ষেতে অনেক বেশি অসুখবিসুখ করেছে, কারণ বৃষ্টি কম হয়েছে৷ বর্ষার জলে ধুয়ে ধানক্ষেতে যে পলি এসে পড়ে, তা-ও কম ছিল৷’’

বিপন্ন প্রজাতি

এখন চেষ্টা চলেছে রাসায়নিক বর্জিত, পরিবেশ বান্ধব কৃষিকাজ চালু করার৷ স্কুলেও পরিবেশ সুরক্ষা ক্রমেই আরো বেশি গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠছে৷ আজ এই ছেলে-মেয়েরা এসেছে সারস পাখি দেখতে৷ কচিকাঁচাদের অধিকাংশ চাষি পরিবারের সন্তান৷ অনেকে জানেই না যে, সারস পাখিরা একটা বিপন্ন প্রজাতি৷ অথবা তাদের বাবা-মায়ের পেশা – অর্থাৎ চাষবাসের সঙ্গে তার কী সম্পর্ক থাকতে পারে৷ কাজেই চাই প্রচারণা, যেমন একটা কুইজ কিংবা একটা ছবি আঁকার প্রতিযোগিতা৷ ছোটরা শিখছে যে, এত বড়ো এই পাখিটা দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে ঘুমোয়৷ আগে নাকি আরো অনেক সারস পাখি ছিল৷ আরো আশ্চর্যের ব্যাপার হলো:



‘‘সারস পাখি নাকি পৃথিবীর সব ক্রেন পাখিদের মধ্যে সবচেয়ে বড়৷’’

ধীরে ধীরে তারা সারস পাখিকে চিনতে আর বুঝতে শিখছে৷ হউর পক বলেন, ‘‘ওরা বাড়ি গিয়ে বাড়ির লোকজনকেও এ কথা বলবে৷ ওরা সবাই বার্ড স্যাংকচুয়ারির চারপাশেই থাকে৷ এভাবেই ওরা শিখছে যে, পরিবেশ সুরক্ষা ওদের ভবিষ্যৎ জীবনের একটা গুরুত্বপূ্র্ণ অঙ্গ হবে৷’’

বিশ্বের যত জলাভূমির অর্ধেকই নিশ্চিহ্ন হয়েছে৷ শুধুমাত্র যারা এই অনন্য প্রাকৃতিক পরিবেশের মূল্য বুঝতে শিখেছে, তারাই এর সুরক্ষার জন্য কিছু একটা করতে প্রস্তুত থাকবে৷ একমাত্র সেভাবেই ভবিষ্যতেও মেকং নদীর বদ্বীপের দক্ষিণাংশে সারস পাখিদের দেখা পাওয়া সম্ভব হবে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও