1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

কামারুজ্জামানের ফাঁসি কার্যকর করা নিয়ে আইনি বিতর্ক

জামায়াত নেতা কামারুজ্জামানের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা নিয়ে আইনি বিতর্ক শুরু হয়েছে৷ তাঁর আইনজীবীরা বলছেন রিভিউ আবেদন নিষ্পত্তির আগে দণ্ড কার্যকর করা যাবে না৷ আর রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীরা বলছেন, রিভিউ আবেদনের কোনো সুযোগ নেই৷

এদিকে, আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন কামারুজ্জামানের দণ্ড কার্যকর করতে প্রস্তুতির নির্দেশ দেয়া হয়েছে৷

সুপ্রিম কোর্ট জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারী জেনারেল কামারুজ্জামানের মৃত্যুদণ্ড বহাল রাখার রায় দেন সোমবার৷ সেসময় রাষ্ট্রপক্ষ দাবি করে, ট্রাইবুন্যাল আইন যেহেতু বিশেষ আইন, তাই রিভিউয়ের সুযোগ না থাকায় তাঁর মৃত্যুদণ্ড যে-কোনো দিন কার্যকর হতে পারে৷ আর কামারুজ্জামানের আইনজীবীরা দাবি করেন রিভিউয়ের অধিকার সাংবিধানিক৷ তাই এই অধিকার বাতিল করা যায় না৷

বৃহস্পতিবার কামারুজ্জামানের আইনজীবী শিশির মোহাম্মদ মনিরসহ কয়েকজন আইনজীবী ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে তাঁর সঙ্গে দেখা করে মামলার বিষয়ে কথা বলেন৷ এরপর মনির জানান, ‘‘আপিলের রায়ের কপি হাতে পেলে রিভিউ করার আবেদন করা হবে৷ রিভিউ খারিজ হলে মারসি পিটিশন (রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষা) করা হবে কি না সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে৷''

দণ্ড কার্যকর করার প্রস্তুতি এবং রিভিউ আবেদনের বিষয়ে আইনমন্ত্রী ও অ্যাটর্নি জেনারেলের বক্তব্যের সমালোচনা করে অ্যাডভোকেট শিশির বলেন, ‘‘তাঁরা আইনের লোক হয়ে এ ধরনের কথা বলতে পারেন না৷ কাদের মোল্লার আপিলের রায় ঘোষণার দুই মাস সাত দিন পর পূর্ণাঙ্গ রায়ের কপি হাতে পেয়েছি৷ তারপর ফাঁসি কার্যকর হয়েছিল৷'' তিনি প্রশ্ন করেন,‘‘কামারুজ্জামানের বেলায় এতো তাড়াহুড়া করা হচ্ছে কেন৷'' শিশির বলেন, ‘‘রিভিউ আবেদন একটি সাংবিধানিক অধিকার৷ কামারুজ্জামানকে এই অধিকার দিতে হবে৷''

এদিকে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বৃহস্পতিবার বলেছেন, ‘‘রায় কার্যকর করতে পূর্ণাঙ্গ নাকি সংক্ষিপ্ত রায় দরকার হবে, তার সিদ্ধান্ত আপিল বিভাগের৷ তবে আমার মত হচ্ছে সংক্ষিপ্ত রায়েই কার্যকর করা যাবে৷'' তিনি বলেন, ‘‘ট্রাইবুন্যাল কামারুজ্জামানের ফাঁসির আদেশ দিয়েছিলেন৷ আর আপিল বিভাগ তা বহাল রেখেছেন৷ সুতরাং বহালের বিষয়টি কারা কতৃপক্ষ জানলেই হলো৷ এখানে বিস্তারিত দেখার কিছু নেই৷ রিভিউয়ের কোনো সুযোগ নেই৷''

মাহবুবে আলম বলেন,‘‘কাদের মোল্লা আর কামারুজ্জামানের বিষয় এক নয়৷ একটু পাথর্ক্য আছে৷ কাদের মোল্লার যাবজ্জীবন কারাদণ্ড থেকে মৃত্যুদণ্ড হয়৷ আর কামারুজ্জামানের ক্ষেত্রে দুই আদালত একই রায় দিয়েছেন৷''

ফাঁসি কার্যকরের প্রক্রিয়া

এদিকে ফাঁসির রায় কার্যকর করার বিধান নিয়ে কারাগারের একাধিক কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলে একটি ধারণা পাওয়া গেছে৷ কারাবিধি অনুযায়ী বিচারিক অঞ্চলের জেলা ম্যাজিস্ট্রেটকে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির ফাঁসির আদেশ ঘোষণার দিনই আদেশ সম্পর্কে জানাতে হবে৷ আদেশ জানার পর জেলা ম্যাজিস্ট্রেট রায় সম্পর্কে জানাবেন কারা কর্তৃপক্ষকে৷

আপিল আদালতের রায় ও আদেশ আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে পৌঁছাতে হবে৷ রায় ও আদেশ পাওয়ার পর অপরাধ ট্রাইবুন্যাল আসামির বিরুদ্ধে মৃত্যু পরোয়ানা জারি করবেন৷ এরপর মৃত্যু পরোয়ানা জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের মাধ্যমে কারাগারে পৌঁছাতে হবে৷ কারা কর্তৃপক্ষ মৃত্যু পরোয়ানা আসামিকে পড়ে শোনাবেন৷

আসামি রাষ্ট্রপতির কাছে ক্ষমা চাইতে পারবেন৷ তবে এটি চাইতে হবে রায় ঘোষণার সাত দিনের মধ্যে৷ কোনো কারণে আসামি সাত দিনের মধ্যে প্রাণভিক্ষার আবেদন করতে না পারলেও পরবর্তী ১৪ দিনের মধ্যে সেটি করতে পারবেন৷ অর্থাৎ রায় ঘোষণার ২১ দিনের মধ্যে যে-কোনো আসামি প্রাণভিক্ষার আবেদন করতে পারবেন৷

তবে রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষার আবেদন করার পর রাষ্ট্রপতির সিদ্ধান্ত না আসা পর্যন্ত কারা কর্তৃপক্ষ রায় কার্যকর করতে পারবে না৷

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি প্রাণভিক্ষার আবেদন করবেন কারা কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে৷ কারা কর্তৃপক্ষ প্রাণভিক্ষার আবেদন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠাবে৷ এরপর আইন মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে পরামর্শ করে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সেটি পাঠাবে রাষ্ট্রপতির কাছে৷ রাষ্ট্রপতির সিদ্ধান্তও আসবে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে৷ রাষ্ট্রপতির সিদ্ধান্ত স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় কারা কর্তৃপক্ষকে জানাবে৷

কারাবিধি অনুযায়ী ফাঁসির আদেশ কারা কর্তৃপক্ষের কাছে পৌঁছানোর ২১ থেকে ২৮ দিনের মধ্যে ফাঁসি কার্যকর করতে হবে৷ তবে রাষ্ট্রপতি কিংবা সংশ্লিষ্ট আদালত রায় স্থগিত করলে রায় কার্যকর করাও স্থগিত হবে৷

আইনমন্ত্রীর বক্তব্য

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক জানিয়েছেন, ফাঁসির দণ্ড বহাল রাখার বিষয়টি কামারুজ্জামানকে জানানো হয়েছে৷ আর কারা কর্তৃপক্ষকে জেলকোড অনুযায়ী দণ্ড কার্যকর করার প্রস্তুতি নিতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে৷ তিনি জানিয়েছেন প্রাণভিক্ষার আবেদনের জন্য কামারুজ্জামান সাত দিন সময় পাবেন৷ আর এই দিন গণনা শুরু হয়েছে তাকে প্রাণদণ্ডের আদেশ জানানোর দিন থেকে৷ তবে তাঁকে কি প্রক্রিয়ায় দণ্ডের বিষয়টি জানানো হয়েছে তা স্পষ্ট করেননি আইনমন্ত্রী৷ তাঁর মতে, ‘‘পূর্ণাঙ্গ রায় নয়, সংক্ষিপ্ত রায়ের লিখিত কপি থেকেই রায় কার্যকর করা যাবে৷''

কামারুজ্জামানের আইনজীবী শিশির মনির আইনমন্ত্রীর বক্তব্যের সমালোচনা করে বলেছেন, ‘‘এখনো রায়ের শর্ট অর্ডারই (সংক্ষিপ্ত আদেশ) বের হয়নি৷ বিচারপতিদের সিগনেচার সম্বলিত কোনো অর্ডার কারও কাছে পৌঁছায়নি৷ তাই আইনমন্ত্রী রায় কার্যকর করার প্রস্তুতির নির্দেশ দিতে পারেন না৷ আর সুপ্রিম কোর্টের রুলসে আছে রিভিউ আবেদনের সঙ্গে পূর্ণাঙ্গ রায়ের কপি সংযুক্ত করতে হয়৷''

এই মামলায় আসামিপক্ষের প্রধান আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, ‘‘পূর্ণাঙ্গ রায়ের কপি চেয়ে আবেদন করা হয়েছে৷ রায় পেলে রিভিউ আবেদন দাখিল করা হবে৷ এর আগে রায় কার্যকর করা আইনসম্মত হবে না৷'' তিনি বলেন, ‘‘আপিলে বিভক্তি রায় এসেছে৷ তাই রিভিউ আবেদন করা আরো বেশি জরুরি৷''

নির্বাচিত প্রতিবেদন