1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

‘কাপুরুষ' ডাক্তারকে কি পাবে জিম্বাবোয়ে?

সিংহ হত্যার অভিযোগে বিচার করতে যুক্তরাষ্ট্রের কাছে ওয়াল্টার জেমস পামারকে ফেরত চেয়েছে জিম্বাবোয়ে৷ সিংহ হত্যা তোলপাড় শুরুর পর যুক্তরাষ্ট্রের বিমান সংস্থাগুলো আফ্রিকার ‘বিগ ফাইভ' প্রাণীদের বহন না করার সিদ্ধান্ত নিচ্ছে৷

ঘটনার নায়ক জিম্বাবোয়ের ‘সেসিল' নামের একটি সিংহ৷ কালো কেশরধারী সিংহটি ছিল জিম্বাবোয়ের হয়াঙ্গে ন্যাশনাল পার্কের প্রধান আকর্ষণ৷ কালো কেশরের সিংহ এমনিতেই বিরল, তার ওপর জিম্বাবোয়ের সবচেয়ে বেশি বয়সি সিংহও সেসিল৷ জিম্বাবোয়ের বন্য প্রাণীকূলের তারকা সেসিলকে শিকারের নামে নৃশংসভাবে হত্যা করেন ওয়াল্টার জেমস পামার৷ যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক পামার পেশায় দাঁতের ডাক্তার৷ তবে নেশা তীর-ধনুক দিয়ে বন্যপ্রাণী শিকার করা৷ শিকারের নেশাতেই তিনি যুক্তরাষ্ট্র থেকে উড়ে যান জিম্বাবোয়ে এবং গিয়ে সেসিলকে হত্যা করেন৷ ঘটনাটি জানাজানি হলে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে তোলপাড় শুরু হয়৷ বিশ্বব্যাপী ওঠে সেসিল হত্যার বিচারের দাবি৷ পামারকে ‘কাপুরুষ' বলে তার শাস্তির দাবিতে সোচ্চার হয়ে ওঠে বিভিন্ন দেশের মানুষ৷ ইন্টারনেটে একটি ফর্মে স্বাক্ষর করে এ পর্যন্ত মোট ৮ লাখ ৫০ হাজার মানুষ এই দাবি জানান৷

এদিকে জিম্বাবোয়ে সরকার সেসিল হত্যায় জড়িত একজনকে ইতিমধ্যেই গ্রেপ্তার করেছে৷ গ্রেপ্তারকৃত ব্যক্তি সেসিল হত্যায় পামারের গাইড হিসেবে কাজ করেছিলেন৷ তাকে গ্রেপ্তার করার পাশাপাশি যুক্তরাষ্ট্র সরকারের কাছে ওয়াল্টার জেমস পামারকে ফেরতও চেয়েছে জিম্বাবোয়ে৷ যুক্তরাষ্ট্রের অনেকেই চান পামারকে বিচারের জন্য জিম্বাবোয়েতে পাঠানো হোক৷ এ বিষয়ে জিম্বাবোয়েকে সার্বিকভাবে সহযোগিতা করার অনুরোধ জানিয়ে ইতিমধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের লক্ষাধিক নাগরিক হোয়াইট হাউসে চিঠি লিখেছেন৷

ধনাঢ্য ডাক্তার ওয়াল্টার জেমস পামার ঘটনা জানাজানির পরই দুঃখ প্রকাশ করেন৷ তাঁর দাবি, সেসিল যে সুপরিচিত সিংহ এবং তা নিয়ে যে গবেষণা চলছিল, তা তিনি জানতেন না৷ পামার জানিয়েছেন, বৈধভাবে সিংহ শিকার করার জন্য তিনি ৫০ হাজার ডলার খরচ করেছেন৷ সেসিলকে শিকারের সময় জিম্বাবোয়ের একজন গাইডও ছিলেন তাঁর সঙ্গে৷ পামার জানান, সেসিলকে হত্যা করার পর তার গলায় ‘ট্র্যাকিং কলার' দেখেই তিনি সিংহটির গুরুত্ব বুঝতে পারেন৷

পামারের এমন দাবির ফলে অবশ্য তার বিরুদ্ধে জনরোষ কমেনি৷ তবে জিম্বাবোয়ে সরকার হয়াঙ্গে ন্যাশনাল পার্কের সিংহ, চিতাবাঘ, হাতি, গন্ডার এবং মহিষ হত্যার বিরুদ্ধে আইন কঠোর করছে৷ শিকার করা কঠিন বলে আফ্রিকায় এই পাঁচটি প্রাণী ‘বিগ ফাইভ' নামে পরিচিত৷

জানা গেছে, গত ৩ জুলাই পামার ও তাঁর লোকজন গাড়ির পেছনে মাংসের টোপ বেঁধে সেসিলকে প্রলুব্ধ করে৷ মাংসের লোভে গাড়ির পেছনে ছুটতে ছুটতে ন্যাশনাল পার্কের বাইরে চলে যায় সেসিল৷ তারপর সিংহটিকে তীর ছুড়ে আহত করেন পামার৷ আহত সেসিল প্রাণ বাঁচাতে গহিন জঙ্গলে ঢুকে পড়ে৷ কিন্তু পামার এবং তার সাঙ্গপাঙ্গরা তবু তাকে ছাড়েনি৷ ৪০ ঘণ্টা ধরে খুঁজে অবশেষে তারা পেয়ে যায় সিংহটিকে৷ বাগে পেয়ে আহত সিংহটিকেই গুলি করে হত্যা করেন পামার৷ পরে সিংহের মাথা কেটে, দেহ থেকে চামড়া ছাড়িয়ে নিয়ে ‘ট্র্যাকিং কলার' লুকানোরও চেষ্টা করা হয়৷ শেষ পর্যন্ত ‘ট্র্যাকিং কলার'-এর কারণেই সেসিলের মৃত্যু সম্পর্কে নিশ্চিত হয় জিম্বাবোয়ের বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ বিভাগ৷

মৃত্যুর সময় সেসিলের বয়স হয়েছিল ১৩ বছর৷ তাকে দেখতে প্রতি বছর অসংখ্য মানুষ যেত হয়াঙ্গে ন্যাশনাল পার্কে৷ অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকদের গবেষণার অংশও ছিল সেসিল৷ সেই বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে সেসিলের গলায় বেঁধে দেয়া হয়েছিল ‘জিপিএস ট্র্যাকিং কলার'৷ স্বাভাবিক অবস্থাতে যাতে সিংহটিকে খুঁজে পাওয়া যায় এবং তার সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহ করা যায়, সেই উদ্দেশ্যে ব্যবহার করা হলেও কলারটি শেষ পর্যন্ত সেসিল হত্যার রহস্য উন্মোচন করেছে৷

এসিবি/ডিজি (এপি, এএফপি, রয়টার্স, ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন