1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

কান তো অস্কার নয়, এখানে সব ছবিই বিদেশী

যে কারণে বিশ্বের চলচ্চিত্র উৎসবগুলির মধ্যে কান তার বিশেষ জায়গাটি ধরে রেখেছে৷ প্রমাণ ইরানি পরিচালক আব্বাস কিয়ারোস্তমি’র কিংবা জাপানি পরিচালক তাকেশি কিতানো’র ছবি৷

default

এবার কান চলচ্চিত্র উৎসবের পোস্টারেই আছেন জুলিয়েট বিনোশ

কিয়োরোস্তমি ১৯৯৭-তেই একবার পাম দ'র জিতেছিলেন, তাঁর ‘‘টেস্ট অফ চেরি'' বা ‘চেরিফলের স্বাদ' ছবিটির জন্য৷ এবার হয়তো দ্বিতীয়বার স্বর্ণ জয় করতে পারেন ‘‘সার্টিফায়েড কপি'' ছবিটির জন্য৷ মনে রাখা দরকার, এটিই কিয়ারোস্তমি'র প্রথম ইউরোপে তোলা ছবি৷ দ্বিতীয়ত, তাঁর ছবি তাঁর স্বদেশ, অর্থাৎ ইরানে দেখানো হয় না৷

সোমবার কান'এ ছিল ‘‘সার্টিফায়েড কপি''-র মোহরত৷ দর্শকরা খুবই খুশী৷ ছবির নায়িকা জুলিয়েট বিনোশ, নায়ক এক আনকোরা অভিনেতা, ইংলিশ অপেরা গায়ক উইলিয়াম শিমেল, যিনি এর আগে কোনো ছবিতে অভিনয় করেননি৷ গল্পের পটভূমি হল ইটালির টাসকানি অঞ্চল৷ বিনোশ'এর চরিত্রটি হল একজন আর্ট ডীলার বা চিত্রকলা বিক্রেতার, শিমেল অভিনয় করেছেন এক ব্রিটিশ লেখকের ভূমিকায়৷ বাকিটা হল বাস্তবের সঙ্গে বিবাহ নামক প্রতিষ্ঠানটির কল্পনাবিলাসের সংঘর্ষ৷

সেখান থেকে আমরা যদি যাই তাকেশি কিতানো'র ‘‘আউটরেজ'' বা ‘নিষ্ঠুরতা' ছবিটিতে, তাহলে গোড়াতেই দেখতে পাবো কালো কালো লিমুজিন গাড়ির লম্বা সারি দাঁড়িয়ে আছে জাপানের অপরাধ জগতের চাঁইদের মধ্যাহ্ন ভোজন শেষ হবার অপেক্ষায়৷ গল্পটা টোকিও'র বিভিন্ন গুন্ডার দলের রেষারেষি, খুনোখুনি নিয়ে, কিতানো যা'তে সিদ্ধহস্ত৷ জাপানী ভাষায় এই অপরাধবৃত্তির জগতের নাম ইয়াকুজা৷ কিতানো নাকি এবার তাঁর আগের ছবিগুলোর সহিংসতার সঙ্গে সংলাপ যুক্ত করেছেন৷ কিন্তু সে সংলাপ বস্তুত অকথ্য গালাগালি৷

কিতানো'র ছবির মুখ্য চরিত্র ওতোমো নামধারী এক পুরনো ধরণের ইয়াকুজা ঘাতক৷ এবং ছবির বক্তব্য সম্ভবত এই যে, ইয়াকুজা'র দুনিয়ায় যতোই পরষ্পরের প্রতি বিশ্বস্ততার কথা হোক না কেন, আসলে সবাই শুধু নিজের স্বার্থটাই দেখছে৷ সকলেই চায় বিত্ত এবং ক্ষমতা৷ এছাড়া ইয়াকুজা এখন তার দৃষ্টি দিয়েছে শেয়ারবাজার এবং তথ্য প্রযুক্তির দিকে৷ কাজেই ওতোমো'তে বুঝতে হবে যে, তার আমলের ইয়াকুজা এখন অতীত হতে চলেছে৷

প্রতিবেদন: অরুণ শঙ্কর চৌধুরী

সম্পাদনা: ফাহমিদা সুলতানা

সংশ্লিষ্ট বিষয়