1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

কান উৎসবে বাংলাদেশের প্রতিনিধি কামার

বাংলাদেশের তরুণ চলচ্চিত্র পরিচালক কামার আহমাদ সাইমন কান চলচ্চিত্র উৎসবে হাজির হয়েছেন তাঁর স্বপ্ন নিয়ে৷ স্বপ্নের নাম ‘শঙ্খধ্বনি'৷ বিশ্বের অন্যতম বড় চলচ্চিত্র উৎসব তাঁর এই স্বপ্ন পূরণের সুযোগ করে দিতে পারে৷

default

ব্রাজিলীয় পরিচালক ওয়াল্টার সেলস (ডান থেকে তৃতীয়) এর সঙ্গে কামার এবং অন্যান্যরা

দক্ষিণ ফ্রান্সে বিশ্বখ্যাত কান উৎসবের সঙ্গে সম্পৃক্ত বিভিন্ন আয়োজনের একটি ‘বিশ্ব সিনেমা'৷ উদীয়মান চলচ্চিত্র নির্মাতারা এই আয়োজনে অংশ নিয়ে তাদের ভবিষ্যত প্রকল্প সম্পর্কে জানাতে পারেন৷ এই আয়োজনে নির্মাতাদের প্রকল্পকে আরো সমৃদ্ধ করতে বিভিন্ন আইডিয়া যেমন দেয়া হয়, তেমনি অর্থায়নের বিষয়টিও বিবেচনা করা হয়৷

Kamar Ahmad Simon in Cannes

কান চলচ্চিত্র উৎসবের অন্যান্য অতিথিদের মাঝে পাঞ্জাবি পরা কামার

চলতি বছরের ‘বিশ্ব সিনেমা' আয়োজনে অংশ নিতে দু'শোরও বেশি আবেদন জমা পড়েছিল৷ তার মধ্যে থেকেই দশটি আবেদন গ্রহণ করা হয়৷ কামার আহমাদ সাইমন সেই দশ সৌভাগ্যবান নির্মাতার একজন, যাঁদের আবেদন গ্রহণ হয়েছে৷ তাঁর মাধ্যমে বাংলাদেশ প্রথমবারের মতো ‘বিশ্ব সিনেমা' আয়োজনে অংশ নেয়ার সুযোগ পেলো৷

কামারের নতুন চমক ‘শঙ্খধ্বনি'৷ ছবিরি কাহিনি সম্পর্কে আগেভাগে জানাতে খুব একটা স্বাচ্ছন্দবোধ করেন না তিনি৷ তবুও স্ক্রিনকমেন্ট ডটকম নামক ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তাঁর সাক্ষাৎকার থেকে কিছুটা ধারণা পাওয়া যেতে পারে৷ মূলত দুই বন্ধুর ভ্রমণ নিয়ে তৈরি হয়েছে ‘শঙ্খধ্বনি' ছবির কাহিনি৷ সমুদ্রের দিকে ছুটে চলা এক নদীর খোঁজে বের হন তাঁরা৷ ছবির এই কাহিনি কামার পেয়েছেন নিজের জীবন থেকেই৷ ছোটবেলায় আপন বন্ধুকে হারান তিনি৷ যে কিনা উন্নত আর নিরাপদ ভবিষ্যতের আশায় ঘর ছেড়েছিল৷ সেই বন্ধুর অভাব এখনো অনুভব করেন কামার৷

স্ক্রিনকমেন্ট ডটকমকে দেয়া সাক্ষাৎকারে কামার জানিয়েছেন তাঁর নিজস্ব ভাবনার কথা৷ ছবি নাকি মূলত তিনি তৈরি করেন নিজের জন্য৷ দ্বিতীয় কারণ ভবিষ্যত প্রজন্ম৷ আর তৃতীয়ত সেই সব দর্শকের জন্য ‘যারা ৯০ মিনিটের ছবি দেখার জন্য পয়সা দিয়ে পরের ৯০ মিনিটে সেই ছবির কথা ভুলে যেতে চায় না৷'

প্রসঙ্গত, কামার আহমাদ সাইমন নির্মিত প্রথম ছবির নাম ‘শুনতে কি পাও'৷ ভিন্ন ধারার এই ছবির মাধ্যমে ইতোমধ্যে দেশে, বিদেশে সাড়া জাগিয়েছেন তিনি৷ ২০১২ সালে জার্মানির লাইপসিসে বিশ্বের প্রাচীনতম চলচ্চিত্র উৎসব ‘ডক-লাইপসিশ' এর ৫৫তম আসরের উদ্বোধনী ছবি হিসেবে শুনতে কি পাও ছবিটির ‘ওয়ার্ল্ড প্রিমিয়ার' অনুষ্ঠিত হয়৷ এরপর সেটি বিশ্বের বিভিন্ন দেশে প্রদর্শিত হয়েছে৷ জয় করেছে বেশ কয়েকটি পুরস্কার৷

উল্লেখ্য, ‘শুনতে কি পাও' ছবির প্রযোজক সারা আফরীনও কান উৎসবে রয়েছেন৷ বিশ্বের অন্যতম বড় এই চলচ্চিত্র উৎসব শেষ হবে ২৫শে মে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়