1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

কাতারে বিদেশি শ্রমিকদের প্রতি অন্যায় হচ্ছে: অ্যামনেস্টি

২০১৫ সালের প্রথমার্ধের একটি বিশদ জরিপের ভিত্তিতে মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল যে ৫২ পাতার রিপোর্ট প্রকাশ করেছে, তা-তে ২০২২ সালের বিশ্বকাপের ভেন্যু কাতারে বিদেশি শ্রমিকদের দুরবস্থার ছবি ফুটে উঠেছে৷

সাক্ষাৎকার নেওয়া হয় খলিফা ইন্টারন্যাশনাল স্টেডিয়ামের ১৩২ জন কনস্ট্রাকশন ওয়ার্কার, সেই সঙ্গে কাছের অ্যাস্পায়ার জোন নামধারী বিশ্বখ্যাত স্পোর্টস কমপ্লেক্সে ল্যান্ডস্কেপিং-এর কাজ করছে, এমন ৯৯ জন বিদেশি শ্রমিকের; এছাড়া অন্যত্র বাগানের কাজ করছে, এমন তিনজন বিদেশি শ্রমিকের৷

যে সব শ্রমিকদের সাক্ষাৎকার নেওয়া হয়েছে, তাদের অধিকাংশই এসেছেন বাংলাদেশ, ভারত ও নেপাল থেকে৷ সকলেই নানা ধরনের অপব্যবহারের কথা বলেন: যেমন অপর্যাপ্ত বাসস্থান, মাসের পর মাস মাইনে না পাওয়া, কিংবা পাসপোর্ট আটকে রাখা৷

বহিরাগত শ্রমিকরা জানান যে, তাদের ৫০০ থেকে ৪,৩০০ ডলার রিক্রুটমেন্ট ফি দিতে হয়েছে, অনেক সময় ধার করে – যদিও চাকরি দেবার জন্য কমিশন নেওয়া কাতারে আইনবিরুদ্ধ৷ অধিকাংশই কাতারে পা দেবার পর আবিষ্কার করেন যে, রিক্রুটাররা দেশ থাকতে যে মাইনের কথা বলেছিল, এখানকার মাইনে তার অনেক কম – বহুক্ষেত্রে মাসে ২০০ ডলারের বেশি নয়, সেই সঙ্গে খাবারদাবারের জন্য – মাসে – আরো ৫০ ডলার৷ যাদের জরিপ করা হয়েছে, তাদের মধ্যে ২২৮ জন নাকি প্রতিশ্রুত পরিমাণের চেয়ে কম মাইনে পাওয়ার কথা জানিয়েছেন৷

পাঁচ হাজারের বেশি বিদেশি শ্রমিক সত্তরের দশকে নির্মিত খলিফা স্টেডিয়ামকে বিশ্বকাপের উপযুক্ত করে তুলছে৷ আগামী দু'বছরে এদের সংখ্যা ধীরে ধীরে বেড়ে ৩৬,০০০, অর্থাৎ সাতগুণ হবে৷ ২০২২ সালের ফুটবল বিশ্বকাপের ফলে কাতারে প্রায় ২০০ বিলিয়ন ডলারের একটি নির্মাণযজ্ঞ শুরু হয়েছে৷

সবচেয়ে বড় সমস্যা হলো, কাতারের তথাকথিত ‘‘কাফালা'' স্পন্সরশিপ প্রণালী, যার ফলে বিদেশি শ্রমিকদের চাকরি বদলানো কিংবা কাতার ছেড়ে যাবার জন্য নিয়োগকারী সংস্থার অনুমতি লাগে৷ সেই সঙ্গে যুক্ত হয়েছে অপর একটি জটিলতা: কনস্ট্রাকশন শিল্পে বড় বড় কনট্র্যাক্টগুলো পায় বড় বড় বহুজাতিক সংস্থা – কিন্তু তার পরেই শুরু হয়ে যায় সাবকন্ট্র্যাক্টর ও আরো ছোট কন্ট্র্যাক্টরদের রাজত্ব, যারা বস্তুত লেবার সাপ্লাই করে৷ বিশেষ করে একটি লেবার সাপ্লাই কোম্পানির নাম শোনা গেছে – সেভেন হিলস – যারা নাকি মাসের পর মাস কর্মীদের মাইনা বকেয়া রেখেছে৷

খলিফা ইন্টারন্যাশনাল স্টেডিয়াম

খলিফা ইন্টারন্যাশনাল স্টেডিয়ামের ‘কনস্ট্রাকশন সাইট’

পাসপোর্ট আটক রাখার কথা অ্যামনেস্টিকে জানিয়েছেন ৮৮ জন বহিরাগত শ্রমিক, এদের মধ্যে নেপালি শ্রমিকরাও ছিলেন৷ এমনকি নেপালে বিধ্বংসী ভূমিকম্পের পরেও নাকি কিছু নেপালি শ্রমিককে কাতার ছেড়ে বাড়ি যাবার অনুমতি দেওয়া হয়নি৷

অ্যামনেস্টির রিপোর্টের প্রতিক্রিয়া হিসেবে কাতার সরকার একটি বিবৃতিতে বলেছেন, ‘‘অ্যামনেস্টি যে সব বিষয় উত্থাপন করেছে, সাম্প্রতিক আইন পরিবর্তনের মাধ্যমে তার অনেকগুলির সমাধান হওয়া সত্ত্বেও আমরা রিপোর্টের কিছু অভিযোগ নিয়ে চিন্তাভাবনা করছি৷''

কাতারে বিদেশি শ্রমিক

এমন অন্ধকার ঘরেই দিন কাটাতে হয় বিদেশি শ্রমিকদের

বিশ্বকাপ সংক্রান্ত নির্মাণকার্যের দায়িত্ব কাতারের সুপ্রিম কমিটি ফর ডেলিভারি অ্যান্ড লেগাসির হাতে৷ কমিটি জানিয়েছে যে, অ্যামনেস্টির অভিযোগগুলি বিশেষ করে চারটি কোম্পানিকে কেন্দ্র করে, যেখানে খলিফা স্টেডিয়ামে কাজ করছে মোট ৪০টি কোম্পানি৷ তাদের মধ্যে তিনটি কোম্পানিকে আবার বিশ্বকাপ সংক্রান্ত অন্যান্য প্রকল্প থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে৷

ফিফা বৃহস্পতিবার একটি বিবৃতিতে বলেছে যে, ফিফা কাতার কর্তৃপক্ষের প্রতি যথাযথ পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বান জানাবে৷

এসি/ডিজি (এপি, রয়টার্স, এএফপি)

আপনাদের চেনা কেউ কি কাতারে কাজ করছেন? আছেন চরম দুরবস্থায়? তাঁদের গল্প বলুন, নীচের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন