1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

কলেরা নিরাময়ে বাংলাদেশি গবেষকের নতুন উদ্ভাবন

বিশ্বের দেশগুলোতে যে কয়টি রোগ এখনও মানবজাতিকে ভুগিয়ে চলেছে তার মধ্যে কলেরা অন্যতম৷ সম্প্রতি এই রোগের জীবাণু নিয়ে একটি নতুন গবেষণায় সাফল্য দেখিয়েছেন বাংলাদেশের বিজ্ঞানী শাহ এম ফারুক৷

default

হাইতির কলেরা আক্রান্তরা

জাতিসংঘের বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ডাব্লিউএইচও-র হিসাব অনুযায়ী, প্রতি বছর সারা বিশ্বে ১০ লাখেরও বেশি মানুষ কলেরাতে আক্রান্ত হয়৷ এবং এই রোগে প্রাণ হারায় এক লাখেরও বেশি মানুষ৷ মূলত এশিয়া এবং আফ্রিকার দেশগুলোতেই এই রোগের প্রকোপ দেখা যায় বেশি৷ কলেরা নিয়ে দীর্ঘদিন ধরেই গবেষণা করে আসছে বাংলাদেশে অবস্থিত আন্তর্জাতিক উদরাময় রোগ গবেষণা আন্তর্জাতিক কেন্দ্র বা আইসিডিডিআরবি৷ এই গবেষণা প্রতিষ্ঠানের অন্যতম গবেষখ ড. শাহ এম ফারুক সম্প্রতি তাঁর এক গবেষণায় কলেরা জীবাণু নিয়ে এক নতুন তথ্য হাজির করেছেন৷ এতে তিনি ও তাঁর গবেষক দল দেখিয়েছেন যে কলেরার জীবাণু সব ধরণের পানিতেই থাকে৷

তবে এই জীবানুর সবগুলোই কিন্তু কলেরার জন্য দায়ী নয়৷ এর মধ্যে থাকা কিছু সংখ্যক জীবাণু কলেরার বিস্তার ঘটায়৷ গবেষক দলের প্রধান ড. শাহ এম ফারুক তাঁদের এই গবেষণার ব্যাপারে জানান, ভিব্রিও কলেরি একটি ব্যাকটেরিয়া প্রজাতি যা সব ধরণের পানিতেই থাকে৷ এর মধ্যে অল্প কিছু সংখ্যক আসলে কলেরা রোগটি তৈরি করতে পারে৷ এর বাইরে আরও অনেক ভিব্রিও কলেরি জীবাণু আছে যেগুলো কলেরার জন্য দায়ী না৷ তবে সেগুলোর সঙ্গে অনেক ভাইরাসের বিক্রিয়া ঘটে এবং সেগুলোই রোগ ছড়ানোর জীবাণুতে পরিণত হয়৷ এই ভাইরাসের সংক্রমণের প্রক্রিয়া নিয়েই মূলত গবেষণা করেছেন এবং তাতে সাফল্য পেয়েছেন ড. শাহ এম ফারুক৷

Cholera

কলেরার জীবাণু

ভাইরাস আক্রান্ত ব্যাকটেরিয়া কিভাবে কলেরার আক্রমণ ঘটায় সে ব্যাপারে তিনি আরও বলেন,‘‘যেসব ভিব্রিও কলেরির কথা বললাম এসব ব্যাকটেরিয়া দূষিত পানি পানের মাধ্যমে আমাদের পেটের ভেতর ঢুকে৷ এবং পেটের ভেতর এক ধরণের বিষ তৈরি করে যাকে বলে কলেরা টক্সিন৷ অথচ বেশিরভাগ ভিব্রিও কলেরি এটা পারে না৷ যেগুলো পারে সেগুলোর জন্য ডায়রিয়ার মত অসুখ হয় যা আমরা কলেরা বলি৷''

নতুন এই গবেষণার ফলে যেসব জীবাণু ভাইরাসে আক্রান্ত হয় তাদের বিষয়ে বিস্তারিত জানা সম্ভব হয়েছে৷ গবেষক ড. ফারুক জানান, যে ভাইরাস ব্যাকটেরিয়াকে আক্রমণ করার পর সেগুলোর মধ্যে কি ধরণের পরিবর্তন আসে, এবং এর ফলে সেটি কিভাবে কলেরার বিস্তার ঘটায় সেই প্রক্রিয়াটা আমরা জানতে পেরেছি৷ ফলে সেই জীবানুর বিরুদ্ধে ভ্যাকসিন তৈরিও এখন আমাদের জন্য সহজ হয়ে যাবে৷ এই ব্যাপারে ড. শাহ এম ফারুক আরও বলেন, ‘‘যে রোগের অসুখ, সেই রোগের জীবাণুকেই কিন্তু একটু পরিবর্তন করে ভ্যাকসিন তৈরি করা হয়৷ এখন আমরা যেহেতু জীবানুটা জানি, তাই ভ্যাকসিন তৈরি সহজ হবে৷''

কেবল বাংলাদেশ নয়, ভারত পাকিস্তান সহ অনেক উন্নয়নশীল দেশে কলেরার বিস্তার দেখা যায়৷ যেমন কয়েকদিন আগে পাকিস্তানের বন্যার পর সেখানে কলেরার বিস্তার দেখা দিয়েছিল৷ সেখানেও কলেরা নিয়ে কাজ করেছে আন্তর্জাতিক উদরাময় রোগ গবেষণা আন্তর্জাতিক কেন্দ্র আইসিডিডিআরবি৷ বাংলাদেশী বিজ্ঞানীদের নতুন গবেষণার ফলে এসব উন্নয়নশীল দেশগুলো কলেরা প্রতিরোধে আরও এগিয়ে যেতে সাহস পাবে৷

প্রতিবেদন: রিয়াজুল ইসলাম

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

সংশ্লিষ্ট বিষয়