1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

কলা চাষে জাতিসংঘের সতর্ক সংকেত

এক ধরনের মারাত্মক ছত্রাক কলা বাগানকে ধ্বংস করছে৷ শিগগিরই ল্যাটিন অ্যামেরিকায় পৌঁছে যেতে পারে এই সংক্রমণ৷ এর ফলে দারিদ্র্য বাড়তে পারে কলার মূল্যও বৃদ্ধি হতে পারে বলে জাতিসংঘ সতর্কবাণী উচ্চারণ করেছে৷

ল্যাটিন অ্যামেরিকার কলাবাগানে তথাকথিত ‘ট্রপিক্যাল রেস ৪' ভীতির সৃষ্টি করছে৷ এটিকে পানামা রোগও বলা হয়৷ জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থার তথ্য অনুযায়ী এশিয়ার বিভিন্ন দেশ, জর্ডান ও মোজাম্বিকেও দেখা গেছে এই রোগ৷ তাই সংস্থাটি কলা উত্পাদনকারী দেশগুলিকে প্রতিরোধ কর্মসূচি গ্রহণ করার আহ্বান জানিয়েছে৷

ফিউসারিয়াম অক্সিপোরাম আক্রমণ চালায়

এই রোগটিতে ফিউসারিয়াম অক্সিপোরাম নামের ফাংগাস বা ছত্রাক গাছের শেকড়ে আক্রমণ চালায়৷ এর ফলে গাছগুলি শুকিয়ে মরে যায়৷ ৯০-এর দশক থেকেই এই ছত্রাক কলার ঘাতক বলে পরিচিত৷ এই জীবাণু মাটিকে দূষিত করে৷ ৩০ বছর পর্যন্ত টিকে থাকতে পারে তারা৷

Symbolbild Bananen Panama-Krankheit Pestizide

ফিলিপাইনের মিন্দানাও দ্বীপের এই বিশাল কলা বাগানে বিমান থেকে ওষুধ ছিটানো হচ্ছে

সর্ববৃহৎ কলা রপ্তানিকারক মহাদেশ ল্যাটিন অ্যামেরিকায় পানামা রোগটি কলাবাগানে ছড়িয়ে পড়তে পারে বলে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ছে৷ কেননা সকল ছত্রাকের মধ্যে এটিই অত্যন্ত আক্রমণাত্মক৷

৫০-এরও বেশি ধরনের কলাকে আক্রমণ করে এটি৷ এর মধ্যে রয়েছে ক্যাভেন্ডিশ কলাও৷ ‘‘ব্রাজিলে এই জীবাণু বিস্তৃত হবে কিনা তা বলা সহজ নয়৷ আমার মতে এই সম্ভাবনা প্রবল৷ এটা শুধু সময়ের ব্যাপার মাত্র৷'' বলেন ব্রাজিলের কৃষি অর্থনীতি গবেষণা প্রতিষ্ঠানের মিগেল রদরিগেস৷ দূষিত মাটি, সংক্রমিত চারা কিংবা অন্য কোনো উদ্ভিদের মাধ্যমে৷

পানামায় লক্ষ্য করা যায়

প্রথমে ১৮৯০ সালে পানামায় লক্ষ্য করা যায় এই অসুখ৷ আর এই নাম থেকেই এই অসুখটিকে পানামা রোগও বলা হয়৷ সেই সময় মাত্র এক দশকেই এই রোগটি কস্টা রিকা, গুয়েতেমালা, হন্ডুরাস, জ্যামাইকা, কিউবা, সুরিনাম এবং ত্রিনিদাদে ছড়িয়ে পড়ে এই অসুখ৷

১৯২০ থেকে ১৯৫০ সালের মধ্যে সমগ্র অ্যামেরিকা মহাদেশে ছড়িয়ে পড়ে ফিউসেরিয়ান ছত্রাক৷ সে সময় রপ্তানির জন্য গ্রোস মিশেল বা জ্যামাইকা কলা নামে অন্য আরেক ধরনের কলা উৎপাদন করা হতো৷

ভাল জমির খোঁজে

এর ফলে কলা উৎপাদনকারীরা ছত্রাকমুক্ত জমির জন্য এক জায়গা থেকে আরেক জায়গায় যেতে থাকেন৷ বলেন পেনসিলভেনিয়ার কার্নেগি মেলন ইউনিভার্সিটির ইতিহাসবিদ জন সোলুরি৷ পাঁচ থেকে ২০ বছর পর্যন্ত ভালই যায়৷ তারপর আবার জীবাণুর প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়৷''

৫০ এর দশকের প্রথম দিকে ক্যাভেন্ডিশ, গ্রোস মিশেল কলাকে হটিয়ে দেয়৷ ক্যাভেন্ডিশ প্রজাতির কলা রোগ প্রতিরোধী ও ফলবতী৷ এখন আবার এই জাতীয় কলার মানও পড়ে গিয়েছে বলে মনে হয়৷

ইতিহাসবিদরা মনে করেন, বিশেষ করে স্থানীয় বাজারে চাহিদা মেটায় যে সব ক্ষুদ্র চাষি, তাদের ক্ষতিকর ছত্রাকের কবলে পড়তে হবে৷ উন্নয়নশীল দেশগুলিতে হাজার হাজার পরিবার কলা উত্পাদনের ওপর নির্ভরশীল, বিপন্ন হবেন তাঁরাই৷

কলাচাষ ধ্বংস হবে না

তবে পানামা রোগটি বিস্তৃত হওয়ার ফলে কলাচাষ ধ্বংস হয়ে যাবে বলে মনে করেন না সোলুরি৷ ‘‘এ জন্য জৈবিক বা পরিবেশগত কোনো যুক্তি নেই৷ কলার ‘সমাপ্তি' ঘটতে পারে, এই ভীতিটা আসলে এক মার্কেটিং সমস্যা৷''

পানামা রোগ প্রতিরোধে ব্রাজিল ভালভাবে প্রস্তুত৷ ‘‘কলার বৈচিত্র্য কম নয়৷ অনেক প্রজাতি জীবাণু প্রতিরোধী৷ তবে এগুলির উৎপাদন ক্ষমতা ও মুনাফার ব্যাপারে যথেষ্ট পরীক্ষা নিরীক্ষা করা হয়নি৷'' বলেন কৃষিবিদ মিগেল রদরিগেস৷

কলা রপ্তানি থেকে আসে বছরে প্রায় সাত বিলিয়ন ডলার ৷ বেশিরভাগই এক ফসলি চাষ৷ জিনগত দিক দিয়ে সামঞ্জস্য রয়েছে বলে জীবাণুও দ্রুতগতিতে বিস্তৃত হয়৷

খাদ্য ও কৃষি সংস্থার তথ্যমতে, আটটি গুরুত্বপূর্ণ খাদ্যদ্রব্যের মধ্য কলা অন্যতম৷ ১৩৫ টি বেশি দেশে এটি উৎপন্ন হয়৷ বিশেষ করে ক্ষুদ্র চাষিরা স্থানীয় বাজারে কলার চাহিদা পূরণ করেন৷ সবচেয়ে বড় উত্পাদকারী দেশ হলো ভারত, ব্রাজিল, চীন, উগান্ডা, ইকুয়েডর ও ফিলিপাইন্স৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন