1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

কলার ‘চরিত্র বদল'

হাঁস ছিল, সজারু, (ব্যাকরণ মানি না), হয়ে গেল ‘হাঁসজারু' কেমনে তা জানি না – ‘খিচুড়ি' কবিতায় এভাবেই প্রাণীদের সংকর রূপ দেখিয়েছিলেন সুকুমার রায়৷ আর এবার, ফলের সংকর কীভাবে ঘটানো যায়, তারই একটা ভিডিও একদম ‘ভাইরাল' হয়ে গেছে৷

আসলে দেশি-বিদেশি ফলের যদিও সত্যিই সংকর ঘটানো সম্ভব হতো, তবে একই দামে কেমন দু-দু'টি ফল খেয়ে জীবনটা বেশ রসালো করা যেত, কী বলেন?

গত কয়েকদিনে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে টবের মধ্যে কলার আগার দিকটা পুঁতে কলা ফলানোর এই ভিডিওটি অসংখ্যবার ‘শেয়ার' হয়েছে৷ ভিডিওতে কলার সঙ্গে কিউই ফলের সংকর করা হয়েছে, ঘরের মধ্যেই, অতি সহজে৷ আর তার ফলে যে প্রজাতিটির সৃষ্টি হয়েছে, তাকে ঠিক কী নামে ডাকা যায়, সেটা হয়ত খোদ সুকুমার রায় ছাড়া আর কারুর পক্ষে বলা সহজ নয়৷ বাইরে থেকে কলার মতো দেখতে সেই ফলের ভিতরটা সবুজ, দানা দানা – একেবারে কিউই ফলের মতো৷

এহেন ‘চরিত্র বদল' দেখে আপনি অবাক হতে পারেন৷ ডাইনোসরের মতো ‘কলা' নামক ফলটিও অচিরেই হয়ত বিলুপ্ত হয়ে যাবে – এ কথাও মনে হতে পারে৷ তবে শেষ পর্যন্ত ভিডিওটার সত্যতা বিচার করার দায়িত্ব কিন্তু আপনার, কারণ, ডোরাকাটা টমেটো বা ‘টাইগার টম'-এর মতো এই ‘ডিজাইনার' কলা, থুড়ি কিউই আদৌ হয় কিনা – সেটা তো এক হয় কল্পনা অথবা বিশ্বাসের বিষয়, তাই না?

ডিজি/এসিবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন