1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

কর্মক্ষেত্রে মানসিক চাপ নতুন নয়

সবসময় এবং সব জায়গায় নাগালের মধ্যে থাকা, একই সঙ্গে অনেক কাজ করা, শিফটে কাজ করা – এ সব কিছুই মানসিক চাপ বাড়ায়৷ কিন্তু এ সব কি আদৌ পরিমাপ করা যায়?

কর্মক্ষেত্রে মানসিক সমস্যা, ক্লান্তি, উত্সাহ হারানো – এ সব নিয়ে দীর্ঘ দিন তেমন মাথা ঘামানো হয়নি৷ ইতোমধ্যে কর্ম ক্ষেত্রে ‘মানসিক চাপ' একটা পরিচিত শব্দ হয়ে দাঁড়িয়েছে৷ ‘‘প্রযুক্তির উন্নয়ন এত দ্রুত হচ্ছে যে, আমরা এখন বলতেই পারবো না, পেশা ক্ষেত্রে দশ বছর আগে অবস্থাটা কেমন ছিল৷'' বলেন মনস্তত্ত্ববিদ হিলট্রাউট পারিডোন৷

হাঁপ ছাড়ার সুযোগ থাকে না

মোবাইল টেলিফোনের সাহায্যে কর্মীরা সর্বক্ষণ কর্মদাতাদের আয়ত্তের মধ্যে থাকেন৷ অফিস ছুটির পর কিংবা সপ্তাহান্তে, যখন তখন৷ কিছুটা হাঁপ ছেড়ে নতুন করে শক্তি অর্জন করার সুযোগই থাকে না৷

এছাড়া একসাথে অনেক কাজ করতে হয় কর্মীদের৷ মাঝে মাঝে কাজে বাধা পড়ে৷ যার নেতিবাচক প্রভাব পড়ে মনোজগতে৷ শারীরিক ও মানসিক অসুখ বিসুখ দেখা দেয়৷ ‘‘যেমন হার্ট ও পেশির অসুখ, অবসন্নতা ইত্যাদি৷ দুর্ঘটনার সম্ভাবনা বেড়ে যায়৷ উত্সাহ স্তিমিত হয়৷ ইমিউন সিস্টেম দুর্বল হয়৷'' বলেন মনস্তত্ত্ববিদ পারিডোন৷ এরফলে অনেকেই পেশাগত জীবন থেকে বিদায় নেন৷ ২০১২ সালে প্রায় ৭৫ হাজার কর্মী মানসিক অসুস্থতার কারণে কাজে অপারগ হয়ে পড়েন৷

পরিমাপ করা কঠিন

কর্মজগতে মানসিক চাপ পরিমাপ করাটা বেশ কঠিন৷ এক্ষেত্রে কোনো নির্দিষ্ট সীমারেখা নেই৷ অবশ্য গত বছর পেশাগত নিরাপত্তা ও স্বাস্থ্য আইনে পরিবর্তন আনা হয়েছে৷ এতে বলা হয়েছে, প্রত্যেক প্রতিষ্ঠানকে কর্মক্ষেত্রে ঝুঁকি দূর করার জন্য বিশেষ পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে৷ ‘‘জৈবিক, রাসায়নিক কিংবা যান্ত্রিক ঝুঁকির সঙ্গে এখন যুক্ত হলো মানসিক চাপও, যদিও তা ঠিকমতো মাপা যায় না৷'' জানান পারিডোন৷

এক্ষেত্রে কর্মীদের সম্পৃক্ত করতে হবে৷ কাজের চাপ সম্পর্কে তাঁদের বাস্তবানুগ ও প্রকৃত তথ্য দিতে হবে৷ চাপের মাত্রাটা বুঝতে হবে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়