1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

কম্পিউটারে ভাষা শেখাচ্ছে ‘বাবেল'

ব্যবসা-বাণিজ্য, উচ্চশিক্ষা বা পারিবারিক কারণে অনেককেই নতুন ভাষা শিখতে হয়৷ কিন্তু ক্লাসে গিয়ে ঠিকমতো শেখার সময় বা সুযোগ অনেকেরই নেই৷ সেই সমস্যা মেটাতেই আসরে নেমেছে এক জার্মান সফটওয়্যার৷

ছোট্ট এলিয়ট ডেনিশ ভাষা শিখেছে, এবার তার বাবা হান্স রাফাউফ-এর পালা৷ সঙ্গে আছে মুশকিল আসান সফটওয়্যার৷

হান্স-এর স্ত্রী কোপেনহেগেন-এর মেয়ে৷ মা নিজের ছেলের সঙ্গে ডেনিশ ভাষায় কথা বলেন৷ হান্স-ও তাদের সঙ্গে কথা বলতে চান৷ তাই ভাষা শেখার সফটওয়্যার ‘বাবেল' ব্যবহার করছেন হান্স৷ মাসে ১০ ইউরো দিলে যে কোনো জায়গা থেকে সেটি ব্যবহার করা যায়৷ সফটওয়্যারই শব্দ শেখায়, উচ্চারণ শুধরে দেয়৷ তিনি বললেন, ‘‘বাবেল বেশ ভালো৷ যখন খুশি, যেখানে খুশি শেখা যায়৷ অন্য কেউ আমাকে বলে দেয় না, কখন শিখতে হবে৷ ভাষা শেখার অন্যান্য সফটওয়্যারের তুলনায় খরচও কম৷ তাছাড়া বার্লিনের একটি ছোট কোম্পানি যে ভাষা শিক্ষার জগত দখল করছে, এটা ভেবেই আমার বেশ ভালো লাগে৷''

‘বাবেল' সংস্থায় মোট ১৩টি ভাষা শেখানোর ব্যবস্থা আছে৷ ইংরিজি, স্প্যানিশ ও ফরাসি তো বটেই, আছে বাহাসা ইন্দোনেশিয়া, তুর্কি ও ডেনিশের মতো ভাষাও৷

তবে ভাষা শেখার সফটওয়্যার ডিজাইন করা মোটেই সহজ নয়৷ বিশেষ করে প্রবাদ-প্রবচন শেখানো বেশ কঠিন৷ সংস্থায় ইটালিয়ান ভাষাশিক্ষারর দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মী বারবারা বাইসি বলেন, ‘‘ইটালিয়ান ভাষায় যেমন বলে, ‘চোখের উপর হ্যাম'৷ অথচ জার্মানে আমরা বলি, ‘চোখের উপর টমেটো'৷ ছবির মাধ্যমে আমরা এই তফাত তুলে ধরতে চেয়েছিলাম৷ আমি নিজেই চোখের উপর হ্যাম লাগিয়ে ছবি তোলালাম৷ ইটালিয়ান শিখতে গেলে আমাদের সাইটেই সেই ছবি দেখতে পাবেন৷ যেখানে খাবার-দাবারের প্রসঙ্গ আছে, সেখানে৷''

03.06.2013 DW Made in Germany Babbel 5

‘বাবেল' থাকায় সুবিধা হয়েছে হান্স রাফাউফ-এর

১৯টি দেশের প্রায় ১৮০ জন কর্মী বাবেল-এ কাজ করেন৷ প্রতি সপ্তাহেই নতুন একজন সংস্থায় যোগ দেন৷

মার্কুস ভিটে ২০০৭ সালে ‘স্টার্টআপ' কোম্পানিটি চালু করেন৷ বর্তমানে ১ কোটি ৬০ লক্ষেরও বেশি গ্রাহক তাদের সফটওয়্যার ব্যবহার করছেন৷ আরও সম্প্রসারণের লক্ষ্যে মার্কুস অ্যামেরিকায় একটি কোম্পানি অধিগ্রহণ করেছেন৷ তিনি বললেন, ‘‘বাজার ফুলে-ফেঁপে উঠছে৷ আসল প্রশ্ন হলো, সেই বাজারে কার কী বিশেষ জ্ঞান রয়েছে৷ সিলিকন ভ্যালি বা সান ফ্রানসিস্কোর ‘প্লে-সে' নামের যে কোম্পানিটি আমরা অধিগ্রহণ করেছি, তারা প্রায় পাঁচ বছর ধরে ‘মোবাইল লার্নিং'-এর ক্ষেত্রে অভিজ্ঞতা অর্জন করেছে৷ এটাই ছিল আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ – বাজার সম্পর্কে জ্ঞান ও সেই বাজারে পা রাখার সুযোগ৷''

বাবেল-এর সৃষ্টিকর্তা অ্যামেরিকার বাজারও দখল করতে চান৷ জার্মানিতে নাকি তারা এর মধ্যেই শীর্ষ স্থানে পৌঁছে গেছে৷ যে সব প্রকাশক বই ও সিডি দিয়ে ভাষা শেখানোর চেষ্টা করে আসছে, বাবেল তাদের মোটেই প্রতিপক্ষ হিসেবে দেখে না৷ নতুন ‘স্টার্টআপ' কোম্পানিগুলির সঙ্গেই তাদের প্রতিযোগিতা৷ মার্কুস আরও বললেন, ‘‘অনেক সংস্থাই বাজারে পা রেখেছে৷ বিনিয়োগকারীদের কৌতূহলও বাড়ছে৷ অর্থাৎ মূলধনের তেমন অভাব নেই৷ অনেক কিছুই ঘটবে, তবে আপাতত আমাদের নিজস্ব পথ তৈরি করে নিতে হবে৷''

হান্স রাফাউফ ও তাঁর পরিবার কিছুকাল কোপেনহেগেন-এ বসবাস করতে চান৷ হান্স তাঁর নিজের ইন্টারনেট কোম্পানি সেখানে বসেই চালাতে পারেন৷ তিনি বললেন, ‘‘বাবেল আমাকে একেবারে ‘কমার্শিয়াল' পর্যায়ের ভাষা শিখিয়ে দেবে, এতটা আমি আশা করি না৷ আসলে ভাষা শেখার কোর্স করে নিখুঁতভাবে শেখার প্রত্যাশাই ঠিক নয়৷ মোটামুটি কথা চালানোর মতো ভাষা শেখাই যথেষ্ট৷ তারপর সেখানে পৌঁছে বাকিটা না হয় শেখা যাবে৷''

এলিয়ট একাই আইসক্রিম অর্ডার দিতে পারে৷ তার বাবাও ডেনিশ ভাষায় এতটুকু বলতে শিখে গেছে৷ তবে সেখানে চাকরি করতে হলে হান্স-কে আরও অনেকটা ডেনিশ শিখতে হবে৷

এসবি/ডিজি

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়