1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ব্রিটেন

কড়া ব্রেক্সিট চান টেরেসা মে, উদ্বিগ্ন জার্মানি

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী টেরেসা মে ব্রিটেনকে ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে বের করে আনার পরিকল্পনা ব্যক্ত করেছেন৷ মে চান ‘হার্ড ব্রেক্সিট', অর্থাৎ ব্রিটেন ইউরোপীয় একক বাজার থেকেও বেরিয়ে আসবে৷ মে-র এই সিদ্ধান্তে উদ্বিগ্ন জার্মানি৷

ইউরোপীয় একক বাজার (সিঙ্গল মার্কেট) বা অভ্যন্তরীণ বাজার (ইন্টারনাল মার্কেট) হলো ইইউ-এর সেই এলাকা, যার অভ্যন্তরে পণ্য, পুঁজি, পরিষেবা ও মানুষজনের মুক্ত আসা-যাওয়া সম্ভব৷ এগুলিকে বলা হয় ‘চার স্বাধীনতা'৷

মে লন্ডনে বলছেন, যুক্তরাজ্যর পক্ষে ইউরোপীয় একক বাজারের ‘চার স্বাধীনতা' মেনে চলা সম্ভব নয়, বিশেষ করে মানুষজনের অবাধ যাতায়াতেরস্বাধীনতা৷ মে বলেন, যুক্তরাজ্য ইউরোপীয় একক বাজারে যতদূর সম্ভব প্রবেশাধিকার বজায় রাখার আশা করে বটে, কিন্তু সেজন্য ব্রাসেলসকে ‘‘বিপুল পরিমাণ অর্থ'' প্রদান করতে রাজি নয়৷

ভিডিও দেখুন 01:06

মে তাঁর ভাষণের সূচনায় ইউরোপ সম্পর্কে ঘোষণা করেন যে, ‘‘ইইউ-এর সাফল্য ব্রিটেনের স্বার্থে'' এবং যোগ করেন যে, ব্রিটেন ‘‘একক বাজারে বৃহত্তম সম্ভব প্রবেশাধিকার'' পাবার ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের সঙ্গে ‘‘একটি সাহসী ও উচ্চাভিলাষী'' মুক্ত বাণিজ্য চুক্তি সম্পাদনের চেষ্টা করবে৷ কিন্তু যুগপৎ তিনি বলেন, বিশ্বের অপরাপর অংশের সঙ্গে বাণিজ্যও একটি অগ্রাধিকার৷

‘‘আমরা বৃহত্তর বিশ্বে বেরিয়ে পড়তে চাই'', বলেন মে৷ মার্কিন প্রেসিডেন্ট-ইলেক্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প যে বলেছেন, অ্যামেরিকার সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য চুক্তির ক্ষেত্রে ব্রিটেন ‘‘লাইনের শেষে নয়, লাইনের আগে'', মে সে-কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে ইইউ-কে একটি ‘‘শাস্তিমূলক'' ব্রেক্সিট চুক্তির প্রচেষ্টা করা সম্পর্কে সাবধান করে দেন৷

মে বলেন, ব্রিটেনে কত মানুষ আসছেন, যুক্তরাজ্য তা নিয়ন্ত্রণ করবে৷ অপরদিকে তিনি বলেন যে, তিনি ব্রিটেনে বসবাসকারী ইইউ নাগরিক ও ইইউ-তে বসবাসকারী ব্রিটিশ নাগরিকদের অধিকারসমূহ নিশ্চিত করতে চান৷

মে জানান যে, ব্রিটেন ইউরোপিয়ান কোর্ট অফ জাস্টিসের এক্তিয়ার থেকে পশ্চাদপসারণ করবে৷ ইইউ-এর সঙ্গে ব্রেক্সিট সংক্রান্ত আলাপ-আলোচনায় স্কটল্যান্ড, ওয়েলস ও উত্তর আয়ারল্যান্ডের সঙ্গে শলাপরামর্শ করা হবে৷ চূড়ান্ত ব্রেক্সিট চুক্তি সম্পর্কে পার্লামেন্টে ভোট হবে, বলে মে জানান৷

এদিকে মে-র এই সিদ্ধান্তে উদ্বিগ্ন জার্মানি৷ তাই খুব তাড়াতাড়ি ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করবেন বলে জানিয়েছেন জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল৷

এসি/ডিজি (এএফপি, রয়টার্স)

বন্ধু, এ ব্যাপারে আপনার কোনো মন্তব্য থাকলে লিখুন নীচের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়