1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

কওমী মাদ্রাসার সংস্কার এখনই প্রয়োজন

রবিবার ঢাকা অবরোধের নামে মতিঝিল ও এর আশেপাশের এলাকায় যে তাণ্ডব চালিয়েছে হেফাজতে ইসলামের কর্মীরা তাতে দেশের সাধারণ মানুষের মতো হতবাক ব্লগার আর ফেসবুক ব্যবহারকারীরা৷

ফেসবুকে সক্রিয় জামাত শিবিরের সমর্থক বলে পরিচিত ফেসবুক গ্রুপগুলো৷ বেশিরভাগ গণমাধ্যমে যেখানে হেফাজতের তাণ্ডবের কথা বলা হচ্ছে সেখানে এই গ্রুপগুলো হেফাজতের উপর পুলিশি নির্যাতনের সপক্ষে বক্তব্য ও ভিডিও পোস্ট করা হচ্ছে৷

রাতের বেলায় নিরাপত্তা বাহিনীর অভিযানের মুখে আটকে পড়াদের একটি বড় অংশ ছিল বিভিন্ন মাদ্রাসার শিশু ও কিশোর৷ ডয়চে ভেলেকে তারা জানায়, হুজুররা তাদের নিয়ে এলেও তাদের রেখে পালিয়েছে৷

হেফাজতের বেশিরভাগ কর্মী কওমী মাদ্রাসার শিক্ষার্থী হওয়ায় ঐ প্রতিষ্ঠানগুলো সংস্কারের কথা উঠেছে৷ আমারব্লগ'এ ‘সত্যের সন্ধানী' এখনই এই সংস্কার প্রক্রিয়া শুরু করার দাবি জানিয়েছেন৷ তিনি বলেন, এসব মাদ্রাসায় ছাত্ররা কুরআন হাদিস শিক্ষার নামে শিখছে, তারা ছাড়া অন্য সকলকে কাফির মুনাফিক হিসেবে বিবেচনা করতে, জিহাদের নামে সন্ত্রাসী হামলা করতে আর জ্বালাও-পোড়াও-হত্যা করতে৷ ‘‘দেশের সাধারণ ধর্মপ্রাণ মুসলমানকে তারা প্রকৃত মুসলমান মনে করে না৷ আর তাই তাদের প্রতি তাদের কোনো সহানুভূতিও নেই৷ তাই যদি থাকত তাহলে ঢাকাতে যে তাণ্ডব করেছে তা করতো না কখনও,'' বলেন তিনি৷

‘সত্যের সন্ধানী' বলেন কওমী মাদ্রাসাগুলোকে সরকারের নিয়ন্ত্রণে এনে এখনই তাদের শিক্ষার পাঠ্যক্রমে পরিবর্তন আনা প্রয়োজন৷ আর যেসব ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান এসব মাদ্রাসায় অর্থ সাহায্য দিয়ে থাকে তাঁরা যেন অচিরেই মাদ্রাসাগুলোকে চাপ দিয়ে তাদের পাঠ্যক্রম পরিবর্তন করতে বাধ্য করে, সেই আহ্বান জানান তিনি৷

এদিকে, নাগরিক ব্লগে নূরুল ইসলাম খান লিখেছেন, ‘‘হেফাজতের সৃষ্ট ভয়ংকর সহিংস পরিস্থিতিতে সবচেয়ে কষ্টদায়ক যে ব্যাপারটি পীড়া দিচ্ছে তা হচ্ছে শিশু অধিকার লঙ্ঘন৷ ওরা মাদ্রাসায় পড়ুয়া এতিম নাবালক কোমলমতি অবুঝ শিশুদের হাতে লাঠি-সোটা তুলে দিয়েছে৷...হেফাজত নেতৃবৃন্দের কাছে জানতে চাই এহেন সহিংসতায় নিক্ষিপ্ত করে এই কোমলমতি শিশুদের মানসিকভাবে পঙ্গু করে তাদের ভবিষ্যৎ নষ্ট করার অধিকার আপনাদের কে দিলো?''

নির্বাচিত প্রতিবেদন