1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

খেলাধুলা

ওয়েম্বলে’র টিকিটের আশায় পাঁচ লাখ ডর্টমুন্ড ফ্যান

২৫ মে লন্ডনের ওয়েম্বলে স্টেডিয়ামে চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনাল হবে যেন একটি বুন্ডেসলিগার ম্যাচ: বায়ার্ন বনাম ডর্টমুন্ড৷ টিকিটের দাম বুন্ডেসলিগার চেয়ে অনেক বেশি হওয়া সত্ত্বেও টিকিটের আবেদন করেছে পাঁচ লাখ ডর্টমুন্ড ফ্যান৷

ওয়েম্বলে'র ফাইনালের জন্য বোরুসিয়া ডর্টমুন্ড উয়েফা'র কাছ থেকে পাচ্ছে ঠিক ২৪,০৪২টা টিকিট৷ এছাড়া যাদের দৃষ্টিশক্তির সমস্যা আছে, তাদের জন্য আরো ৪৫০টি টিকিট৷ টিকিটের জন্য আবেদন করার সময় ছিল গত শনিবার সন্ধ্যা অবধি৷ আবেদন জমা পড়েছে ৫০২,৫৬৭৷ মনে রাখা দরকার, ডর্টমুন্ডের সদস্যসংখ্যা এক লাখের বেশি নয়৷

ওদিকে ইংল্যান্ডে মাটিতে এই ‘জার্মান-জার্মান ডুয়েল' যে কীরকম হবে, তা নিয়ে জার্মান ফুটবলের ‘কাইজার' বা সম্রাট ফ্রানৎস বেকেনবাউয়ার'কে চিন্তিত দেখা যাচ্ছে৷ তার কারণও আছে৷

Franz Beckenbauer Bayern München

ফ্রানৎস বেকেনবাউয়ার

গত শনিবার বায়ার্ন ও ডর্টমুন্ডের মধ্যে সত্যিই একটি বুন্ডেসলিগা ডুয়েল ছিল, যদিও তার গুরুত্ব বলতে আর কিছু বাকি ছিল না, কারণ একে তো সামনে চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনাল; দ্বিতীয়ত, বায়ার্ন ইতিমধ্যেই এ'মরশুমের বুন্ডেসলিগা চ্যম্পিয়ন হয়ে বসে আছে; তৃতীয়ত, পয়েন্টের তালিকায় ডর্টমুন্ডের দ্বিতীয় স্থান ও আগামী মরশুমে চ্যাম্পিয়নস লিগে খেলার অধিকারটাও বাঁধা৷

‘লন্ডনে আমাদের মুখ ডুবিও না'

শনিবার বায়ার্ন কিংবা ডর্টমুন্ড, কেউই তাদের প্রাথমিক একাদশকে মাঠে নামায়নি৷ খেলার ফলাফলও হয়েছে দু'পক্ষের মান ও মুখরক্ষা করার মতো: ১-১ ড্র৷ তা বলে যে মাঠে হাওয়া গরম হয়নি, এমন নয়৷ সাইডলাইনে ডর্টমুন্ডের কোচ ইয়ুর্গেন ক্লপ'এর সঙ্গে বায়ার্নের স্পোর্টস ডাইরেক্টর মাটিয়াস সামার'এর বেঁধে যায়৷ মাঠের ভিতরে বায়ার্নের রাফিনিয়া ডর্টমুন্ডের ব্লাজিকোভস্কি'কে কনুই'এর গুঁতো মেরে হলদে-লাল কার্ড দেখেন৷ কাজেই কাইজার ‘বিল্ড' পত্রিকায় তাঁর কলামে লিখেছেন: ‘‘এ'সব বন্ধ করো! লন্ডনে আমাদের মুখ ডুবিও না৷... সারা বিশ্ব ওয়েম্বলে'র দিকে তাকিয়ে থাকবে৷'' বেকেনবাউয়ার চান, ২৫শে মে'র ফাইনাল যেন ‘‘জার্মানি ও বুন্ডেসলিগার পক্ষে একটি বিজ্ঞাপনের মতো হয়৷''

জার্মান জাতীয় একাদশের ম্যানেজার অলিভার বিয়ারহফ ইউরোপীয় ফুটবলের সিংহাসনে স্পেনের পর জার্মানির আরোহণ নিয়ে যে সব কথাবার্তা চলেছে, সে বিষয়ে সন্দিহান থাকলেও, একটা নবসূচনা যে ঘটতে পারে অথবা ঘটতে চলেছে, তাতে বিশ্বাস করেন৷ বিয়ারহফ ‘কিকার' পত্রিকাকে বলেন, জার্মান ফুটবলের ক্রমোন্নতি ঘটেছে৷ রেয়াল মাদ্রিদ ও বার্সেলোনার বিরুদ্ধে ডর্টমুন্ড ও বায়ার্ন যে খেলা খেলেছে, তা ভবিষ্যৎ দিকনির্দেশের সমতুল্য৷ ‘‘শৃঙ্খলা, শারীরিক পটুতা ও দৌড়নোর ক্ষমতার মতো জার্মান উৎকর্ষগুলির যুক্ত হয়েছে খেলোয়াড়দের বর্ধিত ফুটবল শৈলীর সঙ্গে''৷

এসি / এসবি (ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন