1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

‘ওবামা আন্তরিকভাবে চাইলে আইসিস এতদিনে ধ্বংস হয়ে যেত’

জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে বারাক ওবামার বক্তব্যের সমালোচনা করেছেন অনেকে৷ কেউ বলছেন, ওবামা মুখে যা-ই বলুন, আসলে তিনি জঙ্গিবাদের মদদদাতা৷ কেউ বলছেন, বাস্তবতা বুঝতে তিনি একটু বেশি সময় নিয়ে ফেলেছেন৷

হোয়াইট হাউজে ধর্মীয় উগ্রপন্থাবিরোধী সম্মেলনে ওবামা ইসলামের নামে বিভিন্ন দেশে সন্ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করা জঙ্গি সংগঠনগুলোর বিরুদ্ধে একতাবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান৷ যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বলেন, শুধু যুদ্ধ করে আইএস এবং বিশ্বের অন্যান্য ইসলামি জঙ্গি সংগঠনকে হারানো যাবে না৷ এ সময় তিনি জঙ্গি সংগঠনগুলো যে তাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধরতদের ‘ইসলামের শত্রু' হিসেবে আখ্যায়িত করে সন্ত্রাসবাদকে যৌক্তিক প্রমানের চেষ্টা করছে – তার সমালোচনা করে বলেন, এসব চরম মিথ্যাচার৷ ইসলাম সন্ত্রাসকে অনুমোদন করে না৷ সুতরাং ইসলামের নামে সন্ত্রাস করলে আর সেই সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে নামলে সেটা কখনোই ইসলামের বিরুদ্ধে লড়াই হতে পারে না, এটা শুধুই ইসলামের অপব্যাখ্যাকারী সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে লড়াই৷

ওবামার এ বক্তব্য সবার মনযোগ কেড়েছে৷ টুইটারে অনেকে সন্ত্রাসবাদ নির্মূল করার কাজে তাঁর আন্তরিকতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন৷ মিলাদ বেসাদা নামের একজন লিখেছেন, ‘‘ওবামা যদি সন্ত্রাসবাদ দমনে আন্তরিক হতেন, তাহলে আইসিস এতদিনে ধ্বংস হয়ে যেত, তা তো হয়ইনি, বরং যুক্তরাষ্ট্র বিমান হামলা শুরু করার পর থেকে ওদের শক্তি আরো বাড়ছে৷''

আরেকজন মনে করিয়ে দিয়েছেন, আইএস-এর বিরুদ্ধে ওবামা কথা বলছেন ঠিকই, কিন্তু জঙ্গি সংগঠনটির বিরুদ্ধে তার প্রশাসন মিশরকে সমর্থন দেয়নি৷

বব উইলসন নামের এক টুইটার ব্যবহারকারী মনে করেন, ওবামা মিশরে মুসলিম ব্রাদারহুডকে মদদ দিয়ে জঙ্গিবাদের বিস্তারে সহায়তা করছেন৷

জাস্টিন এডোয়ার্ডস মার্কিন প্রেসিডেন্টের বক্তব্যের সমালোচনা করতে গিয়ে প্রশ্ন রেখেছেন, ‘‘প্রেসিডেন্ট ওবামা তো নিজে একজন খ্রিষ্টান বলে দাবি করেন, তাহলে আইসিস ইসলামসম্মত নয় এ কথা তিনি বলেন কী করে?''

মাজিদ নওয়াজ মনে করেন, জঙ্গিবাদ সম্পর্কে ওবামা যা বলেছেন তা ঠিক, তবে বড় দেরিতে যু্দ্ধের পাশাপাশি আদর্শের লড়াইটাকেও তিনি গুরুত্ব দিলেন৷

সংকলন: আশীষ চক্রবর্ত্তী

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়