1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ঐতিহাসিক সুযোগকে হেলায় হারানো ঠিক হবে না

গত ২৪শে নভেম্বর জেনেভায় জাতিসংঘের পাঁচ স্থায়ী সদস্য দেশ ও জার্মানি ইরানের সঙ্গে একটি অন্তর্বর্তীকালীন পরমাণু চুক্তি করে৷ দু’পক্ষই একটি সমঝোতায় পৌঁছায়৷ এ নিয়েই ফার্সি বিভাগের প্রধান জামশেদ ফারুকির সংবাদভাষ্য৷

২০১৪ সালের ২০শে জানুয়ারি থেকে এই চুক্তি কার্যকর হতে যাচ্ছে৷ চুক্তি অনুযায়ী, ইরান তার পরমাণু কর্মসূচির কিছু কার্যকলাপ সীমিত করবে৷ যেমন পারমাণবিক অস্ত্র তৈরির উপযোগী ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধকরণের মাত্রা কমিয়ে আনবে, যা পাঁচ শতাংশের বেশি হবে না৷ সমৃদ্ধ ইউরেনিয়ামের মজুদও কমাবে৷ এর বিনিময়ে ইরানের উপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞা শিথিল করা হবে৷ যেমন সোনা, মূল্যবান ধাতু, মোটরগাড়ি ও পেট্রোকেমিকেল রপ্তানির ওপর থেকে কিছু নিষেধাজ্ঞা স্থগিত করা হবে৷ বিদেশে আটকে থাকা ৪.২ বিলিয়ন ডলার রাজস্ব কয়েক দফায় ফিরিয়ে আনতে পারবে ইরান৷ আগামী ছয় মাসে নতুন নিষেধাজ্ঞাও জারি করা হবে না৷

শান্তির আভাস

তেহরান ব্রাসেলস ও ওয়াশিংটনকে নতুন আণবিকনীতি বাস্তবায়নের ব্যাপারে সবুজ সংকেত দিয়েছে৷ বাড়িয়ে দিয়েছে আপোস মীমাংসার হাত৷

প্রশ্ন জাগতে পারে, এই চুক্তি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ইরান ও বিশ্ব সমাজের জন্য কতটা জরুরি? উত্তরে বলা যায়, এই চুক্তির মাধ্যমে অ্যামেরিকা ইরানের সাথে আণবিক সংকটের একটা শান্তিপূর্ণ নিষ্পত্তি করতে পারবে৷ প্রেসিডেন্ট ওবামার সামনে এসেছে ইরানের সঙ্গে যুদ্ধের ঝুঁকি রোধ করার এক ঐতিহাসিক সুযোগ৷ আর বিশ্ব সমাজ এই চুক্তির মাধ্যমে কিছুটা স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলতে পারবে৷

ইরানের জন্য এই চুক্তি বয়ে আনবে শান্তির বাতাবরণ৷ এনে দেবে অর্থহীন আণবিক কর্মসূচি থেকে সরে আসা ও আন্তর্জাতিক সমাজে সম্পৃক্ত হওয়ার সুযোগ৷

প্রতিরোধের সম্মুখীন

তা সত্ত্বেও দু'পক্ষই প্রতিরোধের সম্মুখীন হতে পারে৷ ইরানের ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ আলি খামেনেই-এর অনুমোদন ছাড়া পশ্চিমা বিশ্বের সঙ্গে এই চুক্তি করা সম্ভবই হতো না৷ কিন্তু ইরানের কট্টর রক্ষণশীলদের মধ্যেও রয়েছে নানা মতভেদ৷

বিপ্লবী গার্ডদের একাংশ পশ্চিমের সঙ্গে বিরোধিতার পক্ষপাতী৷ প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট আহমেদিনেজাদের আণবিক নীতি কয়েকজন উচ্চপদস্থ অফিসারের কাছে ছিল খুব আকর্ষণীয়৷এই গোষ্ঠীটি আণবিক নীতির ব্যাপারে নতুন ধারাটি খুব সহজে মেনে নেবে না৷

অ্যামেরিকাতেও সবাই যে এই চুক্তি ব্যাপারে সন্তুষ্ট তা বলা যায় না৷ ওয়াশিংটনের ১০০ জনের মধ্যে ৫৯ জন সিনেটর ইরানের ওপর নিষেধাজ্ঞার ব্যাপারে আরো কড়াকড়ি করা পক্ষপাতী৷ তাঁদের মতে ইরানের বিরুদ্ধে নতুন করে শাস্তিমূলক পদক্ষেপ নেওয়া না হলে, যা অর্জন হয়েছিল তাও বিনষ্ট হবে৷

শান্তির সূচনা

এই অন্তর্বর্তীকালীন চুক্তির মাধ্যমে শান্তির সূচনা সবে শুরু হলো ৷ তবে দীর্ঘস্থায়ী ও আশাপ্রদ ফলাফলের জন্য প্রয়োজন সুচিন্তিত পদক্ষেপ ও ধৈর্য্য৷ রাজনৈতিক অল্পদর্শিতা ও দ্রুত সিদ্ধান্তে দেখা দিতে পারে উল্টো ফল৷ তাই বলা যায় যে, দু'পক্ষের হার্ডলাইনারদের চাপের কাছে নতি স্বীকার করা ঠিক হবে না৷ নিকট ও মধ্যপ্রাচ্যে ভুল করার মতো কোনো সুযোগ আর নেই৷

সংবাদভাষ্য: জামশেদ ফারুকি

অনুবাদ: রায়হানা বেগম

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

নির্বাচিত প্রতিবেদন