1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

‘এসো ভাই পড়ি লিখি দোঁহে মিলে শিখি’

বার্লিন আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে অন্যতম বিভাগ ট্যালেন্ট ক্যাম্পাস৷ বিশ্বের নানা দেশের তরুণ চলচ্চিত্রকারদের সম্মিলন এই সঙ্গমে৷

default

ট্যালেন্ট ক্যাম্পাসে আড্ডারত তরুণ চলচ্চিত্রকাররা

অ্যারিস্টটলের পাঠশালাকে গ্রিসিয়রা বলতেন ক্যাম্পাস, ‘জ্যাঠামির আখড়া'৷ অর্থাৎ এখানে যাঁরা শিক্ষার্থী, প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত প্রত্যেকে জ্ঞানবান৷ পরবর্তীকালে দর্শন-সাহিত্যে জগতজুড়ে প্রভাব বিস্তার করেছেন৷

গত ৯ বছর আগে বার্লিন চলচ্চিত্র উৎসব কর্তারা ‘ট্যালেন্ট ক্যাম্পাস' নামে একটি বিভাগ চালু করেন৷ উদ্দেশ্য, পৃথিবীর তরুণ মেধাবী, প্রতিভাবান চলচ্চিত্রকারদের একত্র করে চিন্তাভাবনার বিনিময় করা৷ হতে পারে পরিচালক, অভিনেতা-অভিনেত্রী, শব্দসংযোজন কারিগর, আলোকচিত্রী, সম্পাদক প্রমুখ৷ আসলে যাঁরা সিনেমার সঙ্গে নানাভাবে যুক্ত, তাঁদেরই সমাবেশ, সম্মিলন৷ তাঁদের হাতেকলমে প্রশিক্ষণ দেওয়া যেমন, অন্যদিকে তাঁদের নির্মিত ছবিরও প্রদর্শনী৷

এবারের ট্যালেন্ট ক্যাম্পাসে বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান, নেপাল, আফগানিস্তান সহ দুনিয়ার বিভিন্ন দেশ থেকে ৩৫০ তরুণ প্রতিভাবান চলচ্চিত্রকর্মী যোগ দেন৷ উন্নয়নশীল দেশের পরিচালক, চিত্রগ্রাহক, প্রকৌশলীরা বলেন, সিনেমা নির্মাণে বিস্তর বাধার সম্মুখীন হতে হয়৷ উপরন্তু, স্বাধীন ভাবে কাজ করার অসুবিধা তো আছেই৷ তা সত্ত্বেও , কী করে মিলেমিশে কাজ করতে হয়, কাজের পরিবেশ তৈরি করতে হয়, শিখিয়েছে বার্লিন ট্যালেন্ট ক্যাম্পাস৷

প্রতিবেদন: দাউদ হায়দার, বার্লিন

সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন

সংশ্লিষ্ট বিষয়