1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

এলভিসের কাছে আজ আবার ফিরে যাওয়ার দিন

রক এন রোলের রাজা চলে গিয়েছিলেন আজকের দিনে৷ সেই ১৯৭৭ সালে৷ কিন্তু এলভিসকে ভোলা যায় না৷ আর তাই তাঁর সমাধিতে আজ হাজির হাজার হাজার ফ্যান৷

Elvis Presley,এলভিস প্রেসলি,রক এন রোল,মৃত্যুবার্ষিকী, ফ্যান,প্রাসাদ,মেমফিস,গ্রেসল্যান্ড,জনপ্রিয়,Rock n Roll,Chocolate,Memfis,Graceland,USA,Honeymoon,Elvis controversy,Charisma,Elvis,Song,Music

রক এন রোলের রাজা এলভিসের মৃত্যুবার্ষিকী আজ

জায়গাটার নাম মেমফিস৷ গ্রেসল্যান্ডের এই মেমফিসে তেরো একর জমি কিনে একটা প্রাসাদ গোছের খামারবাড়ি বানিয়েছিলেন এলভিস প্রেসলি৷ ‘মুডি ব্লু' অ্যালবামটা রিলিজ করল জুলাইয়ে আর তারপর পরবর্তী কনসার্ট ট্যুরের সবকিছু ঠিকঠাক করতে এলভিস গ্রেসল্যান্ডের খামারবাড়িতে চলে গেলেন সপরিবারে৷ সেখানে ১৬ অগাস্ট মাঝরাতের কিছু পরে দাঁতের ডাক্তারের কাছ থেকে ঘুরে এসে নিজের মস্তবড় শোবার ঘরে ঢুকে গেলেন রক এন রোলের সর্বকালীন বিস্ময়৷ এলভিসের সেই ঘুম আর ভাঙল না৷ সকাল সাতটায় তাঁকে নিজের বিছানায় মৃত অবস্থায় পাওয়া গেল৷ মৃত্যুর কারণ হার্টফেল৷ গোটা বিশ্বে বিদ্যুতগতিতে খবর রটে গেল৷ শোকে মুহ্যমান এলভিসের কোটি কোটি ফ্যান৷

সেই শোক আজও একইভাবে বহমান৷ তা বোঝা যায় প্রতি বছর এই দিনটা এলে৷ গ্রেসল্যান্ডেই এলভিসের কবর৷ তাঁর পরিবারের অন্যান্যদের সঙ্গেই৷ সেখানে এই ষোলো অগাস্ট জড়ো হয় গোটা দুনিয়া থেকে এলভিসের ফ্যানেরা৷ যেমন আজও৷ তারা প্রাণভরে স্মরণ করে গত শতাব্দের দুনিয়ায় তাক লাগিয়ে দেওয়া গায়ক নায়ক এলভিস প্রেসলিকে৷

‘এলভিস আসলে একটা স্বপ্নের নাম'- বলছেন তাঁর অগণিত ফ্যানেদের একজন৷ গ্রেসল্যান্ডের প্রবল তাপমাত্রা উপেক্ষা করে ফ্যানেরা দীর্ঘ লাইনে অপেক্ষা করছেন এলভিসের কবরে যাওয়ার জন্য৷

Elvis Geburtstag

এলভিসকে ভোলা সহজ নয়৷

তাঁদের অনেকের হাতে টেডি বিয়ার, ফুল, চকোলেট৷ তাঁরা কেউ কেউ এসেছেন সুদূর জাপান বা অস্ট্রেলিয়া থেকে৷ কেউ বসে আছেন হুইল চেয়ারে৷ কারও বা সদ্য বিয়ে হয়েছে৷ এলভিসের কাছে ফিরে এসেই সেই নবদম্পতি যাপন করতে চায় মধুচন্দ্রিমা৷

এক বিতর্কিত বিস্ময়কর মৃত্যু কেড়ে নিয়ে গেছে রক এন রোলের মাধ্যমে বিশ্বকে দুলিয়ে দিয়ে যাওয়া এলভিসকে৷ আজও তা নিয়ে সংশয়, প্রশ্ন রয়ে গেছে মানুষের মনে৷ আর সেজন্যই অনেকে আজও বিশ্বাস করতে পারে না যে সত্যিই এলভিস চলে গেছেন৷ এলভিসের ক্যারিশমা, তাঁর ব্যক্তিত্ব, তাঁর কন্ঠস্বর, মানুষের মন পলকে কেড়ে নেওয়া মধুর ব্যবহার আর সর্বোপরি এলভিসের অসামান্য প্রতিভা আজও মানুষকে একভাবে মুগ্ধ করে যায়৷ গানের রেকর্ড বিক্রিতে তাঁর ট্রিপল প্ল্যাটিনাম রেকর্ড এখনও ছাপিয়ে যেতে পারেন নি পরবর্তী কোন গায়ক বা গায়িকা৷

এলভিস চিরকালের জন্য৷ এলভিস চিরদিনের জন্য৷ মাত্র বিয়াল্লিশ বছর বয়সে এক হঠাৎ মৃত্যু বোধহয় সেই সত্যিটাকে বড় বেশি করে বাস্তব করে দিয়ে গেছে৷

প্রতিবেদন: সুপ্রিয় বন্দ্যোপাধ্যায়

সম্পাদনা: রিয়াজুল ইসলাম