1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

এবোলা দমনে সনাতন পদ্ধতির চিকিত্সকদের ভূমিকা

পশ্চিম আফ্রিকার মানুষ অসুস্থ হলে ডাক্তার বা হাসপাতালের বদলে সনাতন পদ্ধতির চিকিত্সকের কাছে যেতেই স্বাচ্ছন্দ বোধ করেন৷ এ কারণে এবোলার প্রকোপ বৃদ্ধি পাওয়ায় সেখানকার স্বাস্থ্যবিভাগ, ডাক্তার ও হিলাররা ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করছেন৷

‘বিকল্প থেরাপি ও প্রাকৃতিক ভেষজ চিকিত্সা কেন্দ্র’-টি লাইবেরিয়ার রাজধানী মনরোভিয়ার ছোট এক পৌর এলাকায় অবস্থিত৷ আফ্রিকার অনেক মানুষ সনাতন চিকিত্সা প্রথায় বিশ্বাস করেন৷ তাই অসুখ বিসুখ হলে এই কেন্দ্রে আসেন তারা৷ ‘‘আমি জ্বর, ম্যালেরিয়া, উচ্চরক্তচাপ ইত্যাদি ভালো করে থাকি৷ এ জন্য যে সব ওষুধ ব্যবহার করি, সেসব গাছের শেকড় থেকে প্রস্তুত করা হয়৷’’ বলেন কেন্দ্রটির চিকিত্সক পিস বেলো বা ‘ডক্টর পিস’৷

তিনি আরো জানান, ‘‘তবে এবোলা রোগীদের চিকিত্সা আমি করি না৷ অবশ্য কেউ এই রোগটি নিয়ে আমার কাছে আসেনি এখনও৷ আমার কাছে এমন কিছু নেই, যা দিয়ে আমি তাদের ভাল করতে পারি৷’’

একই সুর প্রতিবেশী দেশেও

প্রতিবেশী দেশ গিনির হিলার মুসা ট্রাওর-এর কণ্ঠেও একই সুর শোনা যায়৷ ভারপ্রাপ্ত মন্ত্রণালয় থেকে তাঁকে রোগটি সম্পর্কে বিশেষ পরামর্শ দেওয়া হয়েছে৷ তাই এবোলা রোগীদের চিকিত্সা করেন না তিনি৷

মুসার কথায়, ‘‘আমাদের বলা হয়েছে যে, কোনো রোগীর এবোলার লক্ষণ দেখলে সরাসরি নির্ধারিত চিকিত্সা কেন্দ্রে তাঁকে পাঠিয়ে দিতে এবং কর্তৃপক্ষকে খবরটি জানাতে৷’’

এই ধরনের প্রতিক্রিয়া সঠিক৷ বলেন সিয়েরা লেওনের রেডক্রসের মুখপাত্র আবুবকর তারাওয়ালি৷ তাঁর দেশেও অনেক মানুষ অসুখ-বিসুখ হলে সনাতন চিকিত্সকদের কাছে যান৷ আবুবকর ও তাঁর সহকর্মীরা এই হিলারদের সঙ্গে যোগাযোগ রেখে চলেন৷ তাঁদের পরামর্শ: ‘‘এবোলায় আক্রান্তরা তাদের কাছে এলে এইসব রোগীকে গ্রহণ বা চিকিত্সা না করতে৷’’ এর পরিবর্তে এইসব রোগীকে হাসপাতালে পাঠিয়ে দেওয়া কিংবা স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষকে জানানো উচিত৷

বড় চ্যালেঞ্জ

আবুবকর জানান, এবোলার লক্ষণ সিয়েরা লিওনেও দেখা যাচ্ছে৷ তবে সবাইকে ডাক্তার ও সাহায্য সংস্থাগুলির পরামর্শ শোনানোটা একটা বড় চ্যালেঞ্জ৷ এখনও অনেকে মনে করেন, ব্ল্যাক ম্যাজিক কিছু রোগ সারাতে পারে৷

চিকিত্সকদের প্রতি আস্থার অভাব

এছাড়া হাসপাতাল ও চিকিত্সকদের প্রতি আস্থার অভাবও রয়েছে৷ সিয়েরা লিওনে এবোলার প্রাদুর্ভাব দেখা দিলে একটি খবরও ছড়িয়ে পড়ে, যার এবোলা হয়েছে সে মারা যাবে৷ তাই অনেকের মনেই এই প্রশ্ন দেখা দেয়: ‘‘আমি কেন হাসপাতালে যাব? ডাক্তাররা যখন বলেই দিয়েছেন যে আমি আর বাঁচবো না৷’’

বিশেষ করে গ্রামাঞ্চলের মানুষরা হাসপাতাল এড়িয়ে চলেন৷ তাঁরা হিলারদের কাছে যান৷ অথবা হাসপাতালে গেলেও সাফল্য না দেখে আবার সনাতন পদ্ধতির ডাক্তারের শরণাপন্ন হন৷ দুটি বিষয়ই মহামারির জন্য বিপজ্জনক৷ এতে করে অসুখটি দ্রুত শনাক্ত করা সম্ভব হয় না৷ রোগীকে আলাদা না করায় ছড়িয়ে পড়ে ভাইরাস৷

ইতোমধ্যে সিয়েরা লিওনের হাসপাতালগুলিকে পাহারা দেওয়ার জন্য সেনা নিয়োগ করা হয়েছে, যাতে পরিবারের লোকজন ডাক্তারদের পরামর্শের বিরুদ্ধে রোগীকে জোর করে বের করে নিয়ে যেতে না পারে৷ উল্লেখ্য, গত ফেব্রুয়ারিতে এবোলার প্রকোপ শুরু হওয়ার পর পশ্চিম আফ্রিকায় মৃতের সংখ্যা হাজার ছাড়িয়েছে৷

দ্রুত বিস্তৃত হচ্ছে

গিনি থেকে প্রতিবেশী লাইবেরিয়া ও সিয়েরা লিওনেতে বিস্তৃত হয়েছে এবোলার ভাইরাস৷ সম্প্রতি আরো দূরের দেশ নাইজেরিয়ায় পৌঁছেছে এই ভাইরাসের থাবা৷

ভুক্তভোগী দেশগুলিতে অনেক মানুষই এই রোগের অস্তিত্ব স্বীকার করতে চান না৷ নিজের কিংবা আত্মীয়স্বজনের এবোলা হলেও তা জানাতে সংকোচ বোধ করেন৷ এর ফলে এবোলা-সংকটকে দমন করা আরো দুরূহ হয়ে উঠেছে৷ এ কারণে ভুক্তভোগী দেশগুলিতে মানুষকে সচেতন করার ক্যাম্পেন শুরু করেছেন চিকিত্সক ও স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ৷ এবোলার লক্ষণ, যেমন জ্বর, মাথাব্যথা ও পেশিব্যথা হলে হাসপাতাল বা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে যাওয়ার পরামর্শ দেন তাঁরা৷

এক্ষেত্রে হিলারদের ভূমিকাও গুরুত্বপূর্ণ৷ রেডক্রসের আবুবকর জানান, ‘‘কয়েকজন শীর্ষস্থানীয় হিলার আমাদের টিমের সঙ্গে আছেন৷ তাঁরা এবোলা ভাইরাসের হাত থেকে রক্ষা পাওয়ার ব্যাপারে মানুষকে সচেতন করেন৷ এবোলা যে হিলারদের কাছে নয় হাসপাতালে যাওয়ার মতো একটি ব্যাধি, সেই তথ্যও পৌঁছে দেন তাঁরা মানুষের কাছে৷’’

নির্বাচিত প্রতিবেদন