এবার সরাসরি তদন্তের মুখে ট্রাম্প? | বিশ্ব | DW | 15.06.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

যুক্তরাষ্ট্র

এবার সরাসরি তদন্তের মুখে ট্রাম্প?

রাশিয়ার সঙ্গে অবৈধ সম্পর্কের অভিযোগে জেরবার ট্রাম্প টিম৷ তার উপর তদন্তের কাজে বারবার বাধা সৃষ্টি করছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প৷ এমন অভিযোগের ভিত্তিতে তাঁর বিরুদ্ধেও তদন্ত চলছে বলে দাবি করছে ওয়াশিংটন পোস্ট৷

ট্রাম্প টিমের সঙ্গে রাশিয়ার ‘অবৈধ' সম্পর্ক নিয়ে একাধিক তদন্ত চলছে৷ কিন্তু এ পর্যন্ত ডোনাল্ড ট্রাম্প স্বয়ং রেহাই পেয়ে এসেছেন৷ এবার ওয়াশিংটন পোস্ট সংবাদপাত্র জানাচ্ছে, সরাসরি তাঁর বিরুদ্ধে তদন্ত করছেন প্রাক্তন এফবিআই প্রধান রবার্ট মালার৷ এমনকি সেই তদন্তে সহায়তা করতে এগিয়ে এসেছেন একাধিক গোয়েন্দা সংস্থার শীর্ষ কর্তাব্যক্তিরা৷ তাঁদের মধ্যে রয়েছেন জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থার প্রধান ড্যানিয়েল কোটস ও এনএসএ প্রধান অ্যাডমিরাল মাইক রজার্স৷ আগামী সপ্তাহেই রবার্ট মালার তাঁদের জেরা করতে পারেন বলে দাবি করছে ওয়াশিংটন পোস্ট৷ ট্রাম্প ‘অবস্ট্রাকশন অফ জাস্টিস' বা বিচার প্রক্রিয়ায় বাধা সৃষ্টি করার চেষ্টা করছেন কিনা, সেই বিষয়টি খতিয়ে দেখতে চান মালার৷

রবার্ট মালার ক্ষমতাসীন রিপাবলিকান ও বিরোধী ডেমোক্র্যাট দলের শ্রদ্ধার পাত্র৷ তাই ‘স্পেশাল কাউন্সেল' হিসেবে তাঁর ভাবমূর্তি অত্যন্ত স্বচ্ছ৷ তাই হাতেকলমে তাঁকে বরখাস্ত করার ক্ষমতা থাকলেও ট্রাম্প সেই ক্ষমতা প্রয়োগ করার ঝুঁকি নেবেন কিনা, তা নিয়ে বেশ সন্দেহ রয়েছে৷ 

ওয়াশিংটন পোস্ট তাদের প্রতিবেদনে এই তদন্তের প্রেক্ষাপট তুলে ধরেছে৷ ২২শে মার্চ ড্যানিয়েল কোটস তাঁর সহকর্মীদের বলেছিলেন, প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প তাঁর উপর চাপ সৃষ্টি করেছিলেন৷ তিনি বলেন, প্রাক্তন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টামাইক ফ্লিনের বিরুদ্ধে এফবিআই যাতে তদন্ত বন্ধ করে দেয়, সেই লক্ষ্যে তৎকালীন এফবিআই প্রধান জেমস কোমির কাজে হস্তক্ষেপ করতে বলেছিলেন ট্রাম্প৷ তার কয়েকদিন পর ট্রাম্প কোটস ও রজার্সের সঙ্গে আলাদা সংলাপে তাঁদের উপর চাপ সৃষ্টি করে বলেছিলেন, তাঁরা যেন প্রকাশ্যে বিবৃতি পেশ করে স্পষ্ট জানিয়ে দেন যে, তাঁর টিমের সঙ্গে রাশিয়ার কোনো যোগাযোগের প্রমাণ নেই৷ 

বলা বাহুল্য, এমন প্রতিবেদন প্রকাশিত হবার পর ট্রাম্প শিবির অত্যন্ত ক্ষুব্ধ৷ প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের ব্যক্তিগত আইনজীবী মার্ক ক্যাসোভিৎস এক বিবৃতিতে এই প্রতিবেদনের জন্য এফবিআইকে দায়ী করেছেন৷ এমন তথ্য ফাঁস করে দেওয়ার কাজকে তিনি বেআইনি আখ্যা দেন৷

এসবি/এসিবি (এএফপি, এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়