1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

এবার বিএনপি নেতা আব্দুল আলীমের বিরুদ্ধে রায়

জিয়াউর রহমান সরকারের সাবেক বস্ত্র ও রেলমন্ত্রী এবং বিএনপি নেতা আব্দুল আলীমের বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধ মামলার রায় ঘোষণা হবে বুধবার৷ সকালে ট্রাইব্যুনাল ২ এই রায় ঘোষণা করবে৷ এক্ষেত্রেও সর্বোচ্চ শাস্তি আশা করছেন আইনজীবীরা৷

২০১১ সালের ২৭শে মার্চ আব্দুল আলীমকে তাঁর জয়পুরহাটের বাসা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়৷ ১১ই জুন তাঁর বিরুদ্ধে মানবতাবিরোধী অভিযোগ আমলে নেয় ট্রাইব্যুনাল৷ তবে এর আগেই তাঁর শারীরীক অবস্থা বিবেচনা করে আলীমকে জামিন দেয়া হয়৷ তাঁর বিরুদ্ধে মোট ১৭টি অভিযোগ গঠন করা হয়৷ চলতি বছরের ২২শে সেপ্টেম্বর মামলার সাক্ষ্য গ্রহণ এবং যুক্তি-তর্ক শেষে রায়ের জন্য অপেক্ষমান ছিল মামলাটি৷ সেদিনই তাঁর জামিন বাতিল করে কারাগারে পাঠানো হয়৷ এই মামলায় মোট ৩৫ জন সাক্ষী দিয়েছেন৷ আর আব্দুল আলীমের পক্ষে সাক্ষী দিয়েছেন মোট তিনজন৷

আব্দুল আলীমের বিরুদ্ধে ১৭টি অভিযোগের মধ্যে তিনটি অভিযোগ গণহত্যার৷ এগুলো হলো ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে জয়পুরহাটের কড়ই কাদিরপুর গ্রামে ৩৭০ জন সংখ্যালঘুকে হত্যা, উত্তর হাটশহরে নয় জন এবং জয়পুরহাট চিনিকলে তথাকথিত বিচার বসিয়ে ২৫ জনকে হত্যা৷ এছাড়া আরো ১০টি হত্যাকাণ্ড এবং দেশান্তরে বাধ্য করার অভিযোগ রয়েছে৷ আব্দুল আলীম পাকিস্তানি সেনাবাহিনীকে তালিকা তৈরি করে দিতেন এবং সেই তালিকা ধরে গণহত্যা চালানো হতো বলে অভিযোগ৷ এছাড়া, জয়পুরহাটে রাজাকার, আলবদর এবং শান্তি কমিটি নাকি তাঁর পরমর্শেই পরিচালিত হতো৷

Bangladesch Shaheed Rumi Squad Shahbag Dhaka auf Facebook

আব্দুল আলীমের বিরুদ্ধে ১৭টি অভিযোগের মধ্যে তিনটি অভিযোগ গণহত্যার

এই মামলার প্রসিকিউটর রাণা দাসগুপ্ত ডয়চে ভেলেকে জানান, আব্দুল আলীমের বিরুদ্ধে মোট ১৭টি অভিযোগ গঠন করা হলেও তারা ১৫টি অভিযোগের সাক্ষ্য-প্রমাণ আদালতে উপস্থাপন করেছেন৷ কারণ তাতেই তাঁর বিরুদ্ধে মানবতাবিরোধী অভিযোগ প্রমাণ হয়েছে৷ তাই বাকি দুটি অভিযোগের সাক্ষ্য-প্রমাণ হাজির করতে গিয়ে তারা সময় নষ্ট করেননি৷ তিনি আশা করেন, এই মামলায় আব্দুল আলীমের সর্বোচ্চ শাস্তি হবে৷

আব্দুল আলীমের আইনজীবী তাজুল ইসলাম অবশ্য ডয়চে ভেলের কাছে দাবি করেন যে, রাষ্ট্রপক্ষ কোনো অভিযোগই প্রমাণ করতে পারেনি৷ তাঁর বিরুদ্ধে কল্পিত অভিযোগ আনা হয়েছে৷ তিনি মনে করেন, এই মামলায় আব্দুল আলীমের বেকসুর খালাস পাওয়া উচিত৷

আব্দুল আলীম হলো দ্বিতীয় বিএনপি নেতা যাঁর বিরুদ্ধে রায় দেয়া হচ্ছে৷ এর আগে আরেক বিএনপি নেতা এবং সংসদ সদস্য সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীকে মৃত্যুদণ্ড দেয় ট্রাইব্যুনাল৷ প্রসঙ্গত, ট্রাইব্যুনাল এ পর্যন্ত সাতটি মামলার রায় দিয়েছে৷ যার মধ্যে ছয়টিতে জামায়াতের শীর্ষ ছয়জন নেতার দণ্ড হয়েছে৷ আলীমের বিরুদ্ধে রায় হবে ট্রাইব্যুনালের অষ্টম রায়৷

এদিকে, এই রায়কে সামনে রেখে ট্রাইব্যুনালসহ দেশের গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনার নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে৷ বিশেষ করে, এবার তথ্য-প্রযুক্তি নিরাপত্তার দিকে বিশেষভাবে নজর রাখা হচ্ছে বলে ডয়চে ভেলেকে জানান ট্রাইব্যুনালের প্রধান তদন্ত সমন্বয়কারী আব্দুল হান্নান খান৷ তিনি বলেন, সাকা চৌধুরীর রায়ের খসড়া ফাঁসের মতো ঘটনা আর যাতে না ঘটতে পারে, সেদিকে নজর রাখা হচ্ছে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়