1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

এবার দক্ষিণ আফ্রিকায় বিশ্বকাপ আদালত

বিশ্বকাপ ফুটবলের আসর শুরু হয়েছে এই তো চারদিন হলো৷ নানা দেশ থেকে সেখানে এসেছে ফুটবল প্রেমীরা৷ খেলোয়াড়, কর্মকর্তা আর সংশ্লিষ্ট সকলের সঙ্গে রয়েছেন সাংবাদিকরাও৷ কিন্তু নিরাপত্তার সমস্যা এখনো রয়ে গেছে৷

default

আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি এখনো সম্পূর্ণ সন্তোষজনক নয়

খেলা দেখতে এসে সাংবাদিক এবং বেশ কিছু ফুটবল প্রেমী উঠেছেন জোহানেসবার্গের একটি হোটেলে৷ নাম মাগালিসবুর্গ৷ সেই হোটেলে হলো ডাকাতি৷ সর্বস্ব লুট৷ তিন সাংবাদিক যাচ্ছিলেন কোথাও৷ হঠাৎ পথ আগলে দাঁড়ায় দুই অস্ত্রধারী৷ তারপর টেনেহিঁচড়ে তাদের অপহরণ করার চেষ্টা৷ যদিও অসফল৷ কেপটাউনে খেলা দেখতে আসা এক পর্যটকের ব্যাগ নিয়ে চম্পট এক মহিলা ছিনতাইকারী৷ আরেক শহরে চার চীনা সাংবাদিকের সর্বস্ব লুট৷

এক কথায় খেলা চলাকালীন বিদেশীদের উপর অপরাধকারীরা চড়াও হবার ঘটনা বাড়ছে৷ অবশ্য বছরের অন্য সময়গুলোতেও কিন্তু দক্ষিণ আফ্রিকার নগর-বন্দরে অপরাধের মাত্রা একেবারে কম নয়৷

কী ব্যবস্থা নিচ্ছে সরকার

বিশ্বকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট চলাকালে নিরাপত্তা পরিস্থিতি ঠিক রাখতে বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে দক্ষিণ আফ্রিকা৷ স্টেডিয়ামের চারধারে, আশেপাশের এলাকা এবং হোটেলগুলোয় নিয়োগ দেয়া হয়েছে মোট ৪১ হাজার পুলিশ৷ হেলিকপ্টারে চলছে টহল, জলকামান নিয়ে প্রস্তুত পুলিশের কতিপয় সদস্য৷ কিন্তু এগুলোকে কোন ভ্রূক্ষেপ করছে না অপরাধীরা৷

তাই সেখানকার সরকার বিশ্বকাপ উপলক্ষে দ্রুত বিচার আদালত গঠন করেছে৷ যেখানে অপরাধ, যেখানে পাকড়াও, সেখানেই বিচার৷ আর বিচারের রায় দেয়াও হবে সেখানেই৷ দিনের পর দিন বিচার, আদালতে যাওয়া-আসা বা উকিল-মোক্তারের বিষয়গুলোকে একেবারে পাত্তা না দিয়েই কাজ করে যাচ্ছে এই আদালত৷ নাম দেয়া হয়েছে বিশ্বকাপ আদালত৷ এ ধরণের ৫৬টি আদালত দেশব্যাপী কাজ করছে৷ গত চারদিনে আদালত ২০টি অপরাধের রায় দিয়েছে৷ এর মধ্যে একজনকে দেয়া হয়েছে ১৫ বছরের কারাদণ্ড৷ অপরাধকান্ড ঘটনার কিছু সময় বাদেই শুরু হয়েছে তার কারাবাস৷ দ্রুত বিচার আদালত বোধ হয় একেই বলে৷

প্রতিবেদন: সাগর সরওয়ার
সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন

সংশ্লিষ্ট বিষয়