1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

এবার ঘুমের মধ্যে মস্তিষ্ক সাফাই

যারা ঘুমাতে ভালোবাসে, তাদের ঘুমকাতুরে, কুম্ভকর্ণ – কত কীই না শুনতে হয়৷ শুনতে হয় ‘বেলা পর্যন্ত পড়ে পড়ে ঘুমানো হচ্ছে?’’ – এমন তীর্যক মন্তব্য৷ তা ঘুম কি খুব খারাপ কাজ? ঘুমানো মানে কি সময় নষ্ট করা?

বিজ্ঞানীরা মোটেই তা মনে করছেন না৷ বিশ্ববিখ্যাত ‘সাইন্স' পত্রিকায় ঘুমের উপকারিতার বিশদ বিবরণ ছাপা হয়েছে৷ বলা হয়েছে, সারাদিন ধরে মানুষ যা কিছু করে বেড়ায়, তার ফলে মস্তিষ্কে আবর্জনা ভরে যায়৷ ঘুমানোর পর মস্তিষ্ক শান্ত হলে এসে পড়ে সাফাই-কর্মীরা৷ শুধু উলটো-পাল্টা চিন্তা নয়, ঘুম নাকি দূর করে নানা কঠিন রোগও৷ মানুষ যে সারা জীবনের প্রায় এক তৃতীয়াংশই ঘুমিয়ে কাটায়, তা মোটেই কোনো ভুল নয়৷

গবেষণাগারে ইঁদুরের উপর পরীক্ষা চালিয়ে এ বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ জ্ঞান অর্জন করেছেন বিজ্ঞানীরা৷ তাঁরা লক্ষ্য করেছেন, প্রথমে ‘সেরিব্রাল স্পাইনাল ফ্লুইড' মস্তিষ্কের কোষে পাম্প করা হয়৷

তারপর দেখলেন, কীভাবে ঘুমানোর সময় কোষের মধ্য থেকে আবর্জনা বেরিয়ে যাচ্ছে মস্তিষ্কের শিরা বেয়ে৷ তারপর শরীরের ‘সার্কুলেটরি' ব্যবস্থার মধ্য দিয়ে তা দূর হয়ে যায়৷ এই আবর্জনার মধ্যে রয়েছে ‘অ্যামিলয়েড বেটা'-র মতো পদার্থ, যা এক ধরনের প্রোটিন৷ আল্সহাইমার রোগের অন্যতম কারণ এটি৷

গোটা প্রক্রিয়াটা এভাবে বর্ণনা করেছেন বিজ্ঞানীরা৷ ঘুমানোর পর মস্তিষ্কের কোষগুলি প্রায় ৬০ শতাংশ সংকুচিত হয়ে যায়৷ ফলে ‘সেরিব্রাল স্পাইনাল ফ্লুইড' আরও সহজে ও দ্রুত তার মধ্য দিয়ে যাতায়াত করতে পারে৷ তাছাড়া মস্তিষ্কের মধ্যে ‘গ্লিমফ্যাটিক সিস্টেম' নামে একটি ব্যবস্থা রয়েছে৷ ঘুমানোর পর তার গতি প্রায় ১০ গুণ বেড়ে যায়৷ এই কাঠামোর মধ্যেই আবর্জনা সাফাইয়ের প্রক্রিয়া চলে৷

শুনতে খুব জটিল মনে হচ্ছে? খোলসা করে একটা উপমা দিয়েছেন গবেষণা প্রকল্পের বিজ্ঞানীরা৷ বলছেন, ‘‘ধরে নিন, বাড়িতে বিশাল পার্টি চলছে৷ হয় আপনি অতিথিদের আপ্যায়ন করছেন৷ অথবা আপনি বাড়ি পরিষ্কার করছেন৷ দুটো কাজ একসঙ্গে করা সম্ভব নয়৷''

অতএব যাঁরা ঘুমাতে ভালবাসেন, তাঁরা এবার থেকে মাথা তুলে বলতে পারেন, ‘‘বিরক্ত করবেন না, মস্তিষ্কে সাফাইয়ের কাজ চলছে৷''

এসবি / জেডএইচ (এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন