1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

এবার কিস্তি মাৎ করতে উঠেপড়ে লেগেছে খুঁদে বন্ধুরা

এক যে ছিল রাজা, আর তার ছিল এক রানি৷ তার হাতিশালে হাতি, ঘোড়াশালে ঘোড়া, ছিল নৌকা-সিপাই...আরো কতো কি ! না, কোন রূপকথার গল্প বলছি না৷ বলছি সত্যজিৎ রায়ের বিখ্যাত ছায়াছবি ‘সতরঞ্জ কে খিলাড়ি’র সেই ‘দাবা’ খেলার কথা৷

default

জার্মানির ‘নর্ডরাইন-ভেস্টফালেন' রাজ্যের প্রায় ১৫৭টি বাচ্চাদের স্কুলে বা ‘কিন্ডারগার্টেন'-এ শুরু হয়েছে ‘দাবা' শিক্ষার আসর৷ কম্পিউটার আর ‘ভিডিও গেমস'-এর যুগে তাই এবার ঘোড়ার আড়াই-ঘর আর ‘কিস্তি মাৎ'-এর চাল শিখতে ব্যস্ত ছোট্ট-ছোট্ট ছেলেমেয়ারা৷ কিন্তু কীভাবে ? কীভাবে সেই খুদে বন্ধুদের দাবার মতো তুখড় বুদ্ধিমত্তার একটা খেলায় আকৃষ্ট করছেন জার্মানরা ?

ছোট-ছোট রং-বেরং-এর বোতাম সাইজের ‘জেমস', নানা রকমের চকলেট - তাও আবার বিশাল পরিমাণে - এসব দিয়েই মন ভোলানো হয়ে থাকে ‘কিন্ডারগার্টেন'-এর বাচ্চাদের৷ এসবের প্রলোভন দেখিয়েই বাচ্চাদের শান্ত করে বসানো হয় দাবা খেলতে৷ আজ নয়, সেই ২০০৮ সাল থেকে৷ ছোট্ট ইউলিয়ুস জানায়, ‘‘রাজা'র যখন প্রাণ সংকট, সে অবস্থাকেই বলা হয় ‘কিস্তি মাৎ'৷ আর তখন রাজার পালানো ছাড়া আর কোনো উপায় থাকে না৷''

এই ছ'বছর বয়সী ছেলেটাও বুঝে গেছে দাবার মোদ্দা কথা৷ ‘নর্ডরাইন-ভেস্টফালেন'-এর আরো অসংখ্য বাচ্চার মতো, ইউলিয়ুসও স্কুলেই শিখে ফেলেছে দাবার সব তাবড় তাবড় চাল৷

Flash-Galerie Spiele Gesellschaftsspiele Schach

স্কুল বা ‘কিন্ডারগার্টেন'-এ শুরু হয়েছে ‘দাবা' শিক্ষার আসর

বাচ্চাদের এভাবে দাবা খেলা শেখানোর ব্যাপারটা প্রথমে মাথায় আসে রাল্ফ শ্রাইবারের৷ দাবা খেলতে ছোটবেলা থেকেই ভালোবাসতো রাল্ফ৷ তাই নিজের যখন মেয়ে হলো, তখন সে ভাবতে শুরু করল, তাকে কিভাবে খুব সহজ করে দাবা খেলা শেখানো যায়৷ আর এতে তাকে সাহায্য করেছিল রাল্ফ-এর স্ত্রীও৷ রাল্ফের কথায়, ‘‘আমরা প্রথমেই ও'কে দাবা খেলায় ব্যবহৃত প্রত্যেকটি ঘুঁটি সম্পর্কে ভাল করে বোঝাই৷ রাজা, রানি, হাতি, ঘোড়া - একে একে প্রত্যেকটি ঘুঁটির চাল বুঝিয়ে দেই৷ তারপর একদিকে আসল ঘুঁটি ও প্রতিপক্ষ হিসেবে চকলেট আর জেমস সাজিয়ে বলি - খেলো, তবে ঘুঁটি দিয়ে চকলেট আর জেমস কাটতে পারলেই কিন্তু, সে গুলো তোমরা খেতে পারবে৷ কয়েকদিন এভাবেই চলে৷ আর দেখা যায়, দু-তিন দিনের মধ্যেই তারা ঘুঁটির চালগুলি সব শিখে ফেলছে৷ তখন আমাদের মেয়ের বয়েস ছিল মাত্র আড়াই৷ অর্থাৎ, তিন বছর বয়সের মধ্যেই তারা শিখে ফেলে দাবা খেলা৷''

নিজের মেয়েকে শেখানোর পর, রাল্ফ ‘নর্ডরাইন-ভেস্টফালেন' রাজ্যের আরো বেশ কয়েকটা স্কুলে এভাবে দাবা শেখানোর উপায়ের কথা জানায়৷ দেখতে দেখতে প্রায় ১৫৭টি স্কুলে পাঠক্রমের মধ্যেই অন্তর্ভুক্ত করা হয় দাবা৷ আর কেনই বা হবে না ? দাবা তো আর শুধু খেলা না৷ এতো একরকম রাজ্য জয়৷ এতে রাজা-রানি আছে, যুদ্ধ আছে, হার-জিত আছে৷ তাই বাচ্চারা এ খেলায় দারুণ মজা পায়৷ কাজে লাগায় তাদের কল্পনা শক্তি, সত্যি করে তোলে যুদ্ধ জয়ের স্বপ্ন৷

Schach für Kinder

দাবা খেলায় শান্ত তো বটেই, বেশ মনোযোগীও হয়ে ওঠে বাচ্চারা

‘‘এবার আমার চাল....আর তারপর কিন্তু আমার৷'' হ্যাঁ, এবার ডেনিসের চাল৷ ইউলিউস-কে সঙ্গে নিয়ে আজ সে দু-দুটো মেয়ের বিপক্ষে খেলছে৷ মাটিতে দাবার বোর্ড পেতে গোল করে বসেছে ওরা৷ বেশ ভালোই খেলে ওরা৷ আর তাই তো, স্কুল কর্তৃপক্ষের তরফ থেকেই ওদের প্রত্যেককে একটা করে দাবার বোর্ড আর ঘুঁটি দেওয়া হয়েছে৷ ডেনিস বলে, ‘‘প্রথম দিকে খাতার মধ্যে ছক কেটে সাদা, কালো রঙ করে খেলতে হতো আমাদের৷ প্রতিটি চালে রাবার দিয়ে মুছে মুছে খেলতে হতো আমাদের৷ কিন্তু এখন, আমাদের খেলার বোর্ড আছে৷ তাই এখন আমাদের খুব মজা৷''

এভাবে যে বাচ্চারা একটা নতুন খেলাই শিখছে - তা নয়৷ এভাবে তাদের বেশ অনেকক্ষণ ধরে একটা জায়গায় আটকে রাখা যায়৷ এতে শান্ত তো বটেই, বেশ মনোযোগীও হয়ে ওঠে বাচ্চারা৷ ফলে অন্যান্য কাজে, বিশেষত পড়াশোনার সময় তাদের চঞ্চলতাও কমে৷ আনন্দের সঙ্গে জানালেন পাঁচ বছর বয়সী ডেনিসের মা নিকোল গামবালাট৷ হবে না ? সেখানেই তো এ পরিকল্পনার ‘কিস্তি মাৎ'৷

‘‘কিস্তি মাৎ৷ অর্থাৎ, যখন কোথাও যাওয়ার আর পথ থাকে না - তখনই হয় কিস্তি মাৎ৷ আর তখন রাজা যায় মরে৷ আমি, মানে আমার যদি এখন চাল থাকতো...তাহলে এখন আমিই হয়ে যেতাম কিস্তি মাৎ৷'' জানালো খুঁদে বন্ধু ডেনিস৷

প্রতিবেদক : দেবারতি গুহ

সম্পাদনা : আব্দুল্লাহ আল-ফারূক

সংশ্লিষ্ট বিষয়