1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

‘এটি কি আত্মহত্যা না সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড?’

দুর্ঘটনায় পড়া জার্মানউইংস বিমানের কো-পাইলট ইচ্ছা করেই বিমানটিকে নীচে নামিয়েছেন৷ ফ্রান্সের তদন্ত কর্মকর্তাদের এই অনুসন্ধানের পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মন্তব্যের ঝড় বয়ে যাচ্ছে৷

পিছিয়ে নেই সংবাদ মাধ্যমগুলোও৷ টুইটারে একের পর এক আপডেট দিয়ে যাচ্ছে বিশ্বের প্রথম সারির সংবাদ মাধ্যমগুলো৷

রয়টার্স লিখেছে, ফরাসি আইনজীবীর বক্তব্য, কো-পাইলট জার্মানউইংস এর বিমানটিকে বিধ্বস্ত করেছে৷

নিউইয়র্ক টাইমস বলছে, বিধ্বস্ত হওয়ার আগ মুহূর্তে যাত্রীরা বুঝতে পেরেছিলেন কি হতে যাচ্ছে৷

জন হাফিঙ্গা টুইটারে লিখেছেন, ‘‘আমি যা ভেবেছি তা যেন না হয়৷''

বিবিসি ওয়ার্ল্ডের প্রতিবেদন: বিধ্বস্ত বিমানটির কো-পাইলট আন্দ্রেয়াস লুবিৎসের বাসায় জার্মান পুলিশ অবস্থান নিয়েছে৷

কলিন উড পার্দেও টুইটারে লিখেছেন, গণমাধ্যম বিমান বিধ্বস্ত হওয়ার ব্যাপারটি বারবার বলছে এবং এটাও বলছে পাইলট স্বাভাবিক ছিল না৷ আমরা প্রশ্ন হলো, কেউ কখনো কোনো স্বাভাবিক পাইলটের সাথে দেখা করেছো?

জিওভানা গুয়াদাঙ্গো লিখেছেন, জার্মানউইংস এর কো-পাইলট নিজেকে হত্যা করতে ১৫০ যাত্রীর প্রাণ কেড়ে নিল-এ ব্যাপারটা একেবারেই মানতে পারছি না৷

ম্যাডি ক্রুনৎস লিখেছেন, এই ঘটনায় যারা প্রিয়জন হারিয়েছেন তাদের প্রতি আমার সমবেদনা৷

আব্দেলহেই লিখেছেন, জার্মান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, কো-পাইলটের সাথে কোনো সন্ত্রাসী দলের যোগাযোগ ছিল না৷

ফ্রাঙ্ক জি কম লিখেছেন, ‘‘ওহ ঈশ্বর, এটা কো-পাইলটের কাজ৷ কেন সে ১৫০ মানুষকে হত্যা করল, এটা কি কোনো ধর্মীয় কারণ, নাকি সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড?''

সংকলন: অমৃতা পারভেজ

সম্পাদনা: জাহিদুল হক

সংশ্লিষ্ট বিষয়